Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০২:৫৫
স্বামীর মনোনয়ন বাতিলের দাবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির নেতা মোস্তফা আল মাহমুদের মনোনয়ন বাতিলের দাবি জানিয়েছেন তার স্ত্রী নুজহাতুন নেছা। গতকাল ক্রাইম রিপোর্টার্স বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেড কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি জানান।নুজহাতুন নেছা বলেন, ১৯৯৯ সালের ৬ আগস্ট পারিবারিকভাবে মোস্তফার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। প্রথম কন্যাসন্তানের পর ২০০৩ সালে পুত্রসন্তানের মা হন নুজহাত। এর ছয় মাসের মাথায় মোস্তফা হঠাৎ চীন চলে যান। পরে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। বাধ্য হয়ে জামালপুরে একটি কুঁড়েঘর তুলে সন্তানদের নিয়ে নুজহাত বসবাস শুরু করেন। সেখানে কৃষিকাজ করে চলে তার সংসার। তিনি বলেন, ২০০৪ সালে খবর পান তার স্বামী চীনে বিয়ে করতে যাচ্ছেন। নিজের গয়না বিক্রি করে সন্তানদের নিয়ে চীন গিয়ে স্বামীর সঙ্গে থাকা শুরু করেন। কিন্তু সেখানে প্রায়ই মারধরের শিকার হন। একপর্যায়ে তাকে সেকেন্ড হোমের কথা বলে মোস্তফা মালয়েশিয়ায় নিয়ে যান। সেখানে তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতনই ছিল তার প্রধান কাজ। পরে পুলিশের সহায়তায় তিনি রক্ষা পান। ঘটনার পর মোস্তফা পালিয়ে বাংলাদেশে আসেন। নুজহাত বলেন, তিনি জানতে পেরেছেন শাহিনা নামের এক মেয়ের (মোস্তফার চাচাতো বোন) সঙ্গে মোস্তফার অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামালপুর-২ (ইসলামপুর) আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করতে যাচ্ছেন মোস্তফা। নুজহাত প্রশ্ন রেখে বলেন, যিনি নিজের স্ত্রী-সন্তানদের খোঁজ রাখেন না, সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে কীভাবে তিনি এলাকার মানুষের খোঁজখবর রাখবেন! তিনি সংবাদ সম্মেলনে সরকারের কাছে নিজের সন্তানদের অধিকার আদায়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও মোস্তফা আল মাহমুদের মনোনয়ন বাতিলের দাবি জানান। এদিকে স্ত্রীর এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মোস্তফা আল মাহমুদ। স্ত্রীর অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখতে সাংবাদিকদের অনুরোধ জানান তিনি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow