Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১০:৫৩
হারিকেন ম্যাথিউ লণ্ডভণ্ড করেছে হাইতিকে
আ স ম মাসুম, হাইতি থেকে:
হারিকেন ম্যাথিউ লণ্ডভণ্ড করেছে হাইতিকে

ব্রিটেন থেকে আমেরিকার ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মিয়ামী হয়ে দ্বীপরাষ্ট্র হাইতির রাজধানী পোর্ট অব প্রিন্স। যাত্রার বর্ণনাটি যেভাবে এক লাইনে বললাম বিষয়টি সেভাবে নয়, পুরো ২৬ ঘণ্টা জার্নির পর এসে যখন নামলাম তখন অনেকটা অবাকই হলাম।

মাত্র এক সপ্তাহ আগেই সাউথ আমেরিকার উপর দিয়ে ৫ ক্যাটাগরির হারিকেন চলে গেছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১ কোটি মানুষের দেশ হাইতি। কিন্তু তার কোন উত্তাপ নেই দেশটির রাজধানীতে। রিসিভ করতে আসা লাইফ ইউএসএ এনজিওর স্থানীয় প্রজেক্ট ম্যানাজার আব্দুর রহমান জানালেন, ২০১০ সালের ভূমিকম্পে ১০ হাজার মানুষ মারা যায়, এরপর থেকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেন গা সওয়া হয়ে গেছে। তাই দেড় হাজার মানুষের প্রাণ কেড়ে নেয়া হারিকেন ম্যাথিউ দেশটির রাজধানীতে তেমন কোন প্রভাব ফেলেনি।

হারিকেন ম্যাথিউয়ের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশটির দক্ষিণ অঞ্চলের লেকাই, জেরেমি এলাকার বিস্তীর্ণ গ্রামগুলো। ৭৫ হাজার মানুষের মাথার উপর থেকে ছাদ চলে গেছে। কলেরা দেখা দিয়েছে মহামারী হয়ে। তাই হাইতি যাত্রার আগে অবশ্যই কলেরা ভ্যাকসিন, হেপাটাইটিস বি এবং ম্যালেরিয়া ট্যাবলেট নিতেই হবে।

রাজধানী পোর্ট অব প্রিন্স থেকে তাই এবারের যাত্রাপথ হচ্ছে লেকাই। প্রায় ৬ ঘণ্টার যাত্রা। দেশটির রাস্তাঘাট, ফুটপাতের বাজার, আবহাওয়া সবই বাংলাদেশের সাথে চমৎকার মিলে যায়। মিলে যায় বাংলাদেশের জ্যামের সাথে। আমেরিকার ছায়াতলে থেকেও পৃথিবীর অন্যতম দরিদ্র দেশ হাইতির জীবন মান তৃতীয় বিশ্বেরও নিচে! এখানে আমেরিকার ডলারের সাথে হেইশিয়ান গরোড মানে হেইতি ডলার চলে। মাত্র ১৮শ' মাইল দূরত্ব হলেও আমেরিকার ১ ডলারের বিপরিতে ৬৫ হেইশিয়ান গরোড পাওয়া যায়। কিন্তু জিনিসপত্রের দাম আমেরিকার সাথে পাল্লা দিয়েই চলে।

দেশটির যেদিকে তাকাবেন সেদিকেই পাহাড়, পাহাড়ের খাজে বাড়ি-ঘর। বিভিন্ন রঙের বাড়িঘর দূর থেকে দেখলে সবুজ ক্যানভাসের গায়ে যেন লাল, নীল, সবুজ, কমলা নানা রঙের একটি অপূর্ব চিত্রকর্মই মনে হয়। সেই পাহাড় পেরিয়েই একদিকে উত্তর আটলান্টিক মহাসাগর আর অন্যদিকে ক্যারিবিয়ান সাগর। দুটি সাগরই মোহনীয় সৌন্দর্য নিয়ে আছড়ে পড়ে হাইতির উপর তারপরও মায়ামী বিচ আর ল্যাটিন আমেরিকার ব্রাজিল, ভেনেজুয়েলা ইত্যাদি বিচ পর্যটনের কাছে হার মেনেছে দেশটি।

পাহাড় ডিঙ্গিয়ে সমুদ্রের কোল ঘেঁষে দেশটির সৌন্দর্য্য দেখতে দেখতে যতই লেকাইয়ের দিকে এগুচ্ছি ততই টের পাচ্ছি হারিকেন ম্যাথিও এর ভয়াবহতা। স্ফটিক নীল সমুদ্রের পাড়ে মাইলের পর মাইল নারিকেল আর কলার বাগান একেবারে দুমড়ে মুচড়ে গেছে। পাহাড়ের খাজের ছোট ছোট গ্রাম আর বাজার যেন মাটিতে শুইয়ে দিয়ে গেছে বাতাসের ঝড়। সেপ্টেম্বরের ২২ তারিখ উৎপত্তি হওয়া হারিকেনটি ৭ অক্টোবর সকালে আছড়ে পড়ে হাইতিতে! এছাড়া কিউবা, মিয়ামী এবং ডমেনিকা রিপাবলিকও আক্রান্ত হয়। ২০০৭ সালের হারিকেন ফেলিক্সের পর এটাই সবচেয়ে বড় হারিকেন এই অঞ্চলের মধ্যে।

২০১০ সালে হাইতির উপর স্মরণকালের বড় ভূমিকম্প হয়ে যায়। এতে দেশটির ৩ লক্ষ মানুষ মারা যায়। তখন থেকেই হাজার হাজার মানুষ রাস্তায়। সেই সাথে আবারও এখন হারিক্যান ম্যাথিউ যোগ করলো আরও ৭৫ হাজার মানুষের নাম!

 

বিডি-প্রতিদিন/ ১৬ অক্টোবর, ২০১৬/ আফরোজ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow