Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৩:৫৯ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৩:৫৯
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন
জহিরুল ইসলাম হিরণ, মালয়েশিয়া থেকে:
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন

একুশের চেতনায় সম্মিলিতভাবে দেশ গড়ার প্রত্যয়ে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান ২১ শে ফেব্রুয়ারি পালন করা হয়েছে। 

বাংলাদেশ দূতাবাসে বুধবার স্থানীয় সময় সকাল ৯ টায় রাষ্ট্রদূত মহ. শহিদুল ইসলাম পতাকা উত্তোলন করেন। পরে ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা ও তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

এরপর মালয়েশিয়ার ট্যুরিজম সেন্টার (মেটিক) এ হাইকমিশনের অস্থায়ী স্মৃতিসৌধে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে প্রথমেই পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন রাষ্ট্রদূত মহ. শহীদুল ইসলামের নেতৃত্বে দূতাবাসের সকল কর্মকর্তারা। 

এর পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়া, যুবলীগ, সেচ্ছা সেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, ছাত্র লীগসহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এ ছাড়া ফেনী সমিতি মালয়েশিয়া, ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলা সমিতি মালয়েশিয়া, বাংলাদেশ স্টুডেন্ট ইউনিয়ন মালয়েশিয়া ,চাঁদপুর জেলা সমিতি, যশোর জেলা সমিতি, প্রবাস কথা অনলাইন পোর্টাল, মামা সাংস্কৃতিক শিল্পী গোষ্ঠীসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও কমিউনিটি সংগঠনসহ নানা পেশাজীবী প্রবাসী বাঙালীরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর মো. সায়েদুল ইসলামের পরিচালনায় একুশের আলোচনা সভা। সভার শুরুতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন এয়ার কমডোর হুমায়ূন কবির। প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন, দূতালয় প্রধান ওয়াহিদা আহমেদ। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন মিনিষ্টার রইছ হাসান সারোয়ার এবং প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের শ্রম শাখার ২য় সচিব মো: ফরিদ আহমদ।

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত মহ. শহীদুল ইসলাম বলেন, একুশে ভাষার আন্দোলন হলেও প্রকৃত আন্দোলন হলো শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে বাঙালির সম্মিলিত প্রতিবাদ। সেদিন আত্মঅধিকার, সমতাভিত্তিক সমাজ আর গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র বিনির্মাণের স্বপ্নে জেগে উঠেছিল তখনকার পূর্ব পাকিস্তানের মানুষ। একুশেতেই ঘটে বাঙালরি আত্মবিকাশ। যার ধারাবাহিকতায় দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের পথ বেয়ে এসেছে মুক্তিযুদ্ধ।

তিনি বলেন, হাজার বছরের পরাধীনতার শৃঙ্খল ছিন্ন করে এসেছে অমৃত স্বাধীনতা। একুশ বাঙালির চেতনার প্রতীক। মহান ভাষা শহীদদের স্মরণে সারা দেশে অগণিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এবং বিদেশে যেখানে বাঙালি আছে সেখানেই গড়ে উঠেছে আমাদের অহঙ্কারের প্রতীক শহীদ মিনার। একুশে তাই আত্মত্যাগের অহঙ্কারে ভাস্বর মহান একটি দিন। জেগে উঠার প্রেরণা। দেশমাতৃকার প্রয়োজনে আত্মোৎসর্গ করার শপথ গ্রহণের দিন আজ।

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, দূতাবাসের ফার্ষ্ট সেক্রেটারি মাসুদ হোসেন, কমার্শিয়াল উইং মো. রাজিবুল আহসান, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মশিউর রহমান তালুকদার, শ্রম শাখার প্রথম সচিব হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল, প্রথম সচিব তাহমিনা ইয়াছমিন, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ সহ দলের অঙ্গসংগঠন সহ দেশটিতে কর্মরত ইলেক্ট্রনিকস/ প্রিন্ট মিডিয়া সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠন ও দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ।

বিডিপ্রতিদিন/ ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮/ ই জাহান

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow