Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ মে, ২০১৮ ১১:১৯ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ মে, ২০১৮ ১৩:৩৫
বিক্রি হয়ে যাচ্ছে নারী
মির্জা মেহেদী তমাল
বিক্রি হয়ে যাচ্ছে নারী
প্রতীকী ছবি

রুমটা দেখতে যেন হাজতখানা। বেশ বড়। নাহারের জায়গা হলো সেখানে। তার মতো আরও অনেক নারী সেখানে বন্দী। দিনের পর দিন। কেউ জানে না কখন কার ডাক পড়বে। টানা ১৫ দিন পর ডাক পড়ল নাহারের। নাহার তার নিজের নাম শুনতেই লাফিয়ে উঠেছিল। ভাবছিল নাহার, এই বুঝি মুক্তি মিলল। খোলা আকাশ দেখবে। বুক ভরে নিঃশ্বাস নেবে। আরবের কয়েকজন লোক বড় একটা গাড়িতে করে নাহারকে নিয়ে চলতে শুরু করল। দীর্ঘ ৭৭ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে আরেক শহরে তারা। আবারও বন্দীশালা। সেখানে তার ওপর প্রতিনিয়ত পাশবিক নির্যাতন চলে। সেখানে দীর্ঘ চার মাস। প্রাণ বাঁচাতে নাহার পালাল সেই বন্দীশালা থেকে। ধরা পড়ল। এবার তাকে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হলো। একপর্যায়ে নাহার বিক্রি হলো যৌনদাসী হিসেবে চড়া দামে।

এটা প্রাচীন যুগের দাস বিক্রির ঘটনা নয়। দাসপ্রথা  নিয়ে নির্মিত কোনো মুভির ক্লিপ নয়। এটি এই সভ্য যুগে মধ্যপ্রাচ্যের রিয়াদ নগরীর ঘটনা। যেখানে বাংলাদেশি নারীদের বিক্রি করা হচ্ছে যৌনদাসী হিসেবে। কেউ পালিয়ে প্রাণ বাঁচাচ্ছেন, কেউ নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে যাচ্ছেন। যারা দেশে যোগাযোগ করতে পারছেন, তাদের কেউ কেউ ফিরতে পারছেন পরিবারের কাছে। সৌদি আরবের বিভিন্ন নগরী থেকে এভাবেই নির্যাতন সইতে না পেরে প্রায় প্রতিদিনই দেশে ফিরে আসছেন অসহায় নারীরা। যারা ভাগ্য ফেরাতে পারি জমিয়েছিলেন মধ্যপ্রাচ্যে। কিন্তু কাজের নামে সেখানে গিয়ে বড় ধরনের ফাঁকির মধ্যে পড়ে যান। ভাগ্য ফেরানোর চেষ্টাই হয়ে ওঠে তাদের জীবনের বড় কাল। গত শনিবারও এমন ভাবে নির্যাতনের শিকার বেশ কয়েকজন নারী দেশে ফিরেছেন। বলেছেন, আমার মতো কোনো নারী যেন এমন ফাঁদে পা দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে না যান।

ভাগ্য ফেরাতে সৌদি আরবে যাওয়া নারীদের ভাগ্যই যেন কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। গত শনিবার রাত ৯টায় ৬৬ নারী শ্রমিক দেশে ফেরত এসেছেন। এদেরই একজন নাহার (ছদ্মনাম)। দুই বছর আগে কাজের সন্ধানে সৌদি আরব যান। এই সময়টায় তাকে মোকাবিলা করতে হয়েছে বিরূপ পরিস্থিতি। তিনি বলেন, ‘যে বাড়িতে আমি ছিলাম সেখানে ১০টি রুম ঝাড়ু দিতে হতো। ঠিকমতো খাবার দিত না। মালিক আমারে অত্যাচার করত। চাকরি ছাড়তে চাইলেও আমারে ছাড়তে চায় নাই মালিক। ছাড়ার কথা বললে আরও বেশি মাইর দিত।’ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা কর্মীরা বলেন, প্রায় প্রতিদিনই নারী শ্রমিকরা দেশে ফিরছেন। নাহার জানান, ‘দুই বছর আগে রিয়াদ যাই। সৌদি আরব যাওয়ার জন্য মিরাজ নামের এক দালালকে ৬০ হাজার টাকা দিছিলাম। সে আমাকে বলছিল অনেক ভালো জায়গা। যাওয়ার পর প্রথমে আমাকে এক মালিকের কাছে বিক্রি করা হয়। মালিকের অত্যাচারে ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে যাই। তখন আমারে ধরে একটা কোম্পানির মাধ্যমে ছয় লাখ টাকায় বিক্রি করে দেয়। আমার মতো আরও কয়েকশ মেয়ে আছে সেখানে। তাদের দিয়ে জোর করে দেহব্যবসা করানো হয়। আমি একবার সুযোগ বুঝে আমার স্বামীকে ফোন দিয়া সব বলি। তারপর আমাকে সৌদি আরবে বাংলাদেশি দূতাবাসের মাধ্যমে উদ্ধার করা হয়। আমার আগের মালিকের কাছে বেতন পাওনা ছিল। দূতাবাসের মাধ্যমে চাপ দিয়ে সেই টাকা পাইছি।’

ফেরত আসা আরেক নারী মাত্র দুই মাস আগেই তিনি সৌদি আরব গিয়েছিলেন। এত অল্প সময়ের মধ্যে ফিরে আসার কারণ জানতে চাইলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। বলেন, ‘যাওয়ার পর আমারে ১৫ দিন আটকায় রাখছে। এক দালালের মাধ্যমে ১০ হাজার ট্যাকা দিয়া সৌদি আরব গেছিলাম। ১০০০ রিয়াল বেতন দেওয়ার কথা আছিল। বাসাবাড়ির কাম। প্রথম বাড়িতে মালিকের বউ অনেক মারত। তাদের ভাষা বুঝতাম না। কাজের দেরি হইলেই লাঠি দিয়া মারত। এরপর আমারে সেখান থেকে নিয়া আরেক জায়গায় দিছে। সেখানেও ঘরের কাজ। ছোট ফ্যামিলি বইলা আমারে পাঠায়ছিল কিন্তু গিয়া দেখি অনেক মানুষ পরিবারে। পরে সেখান থেকে পালায় যাই দূতাবাসে। এরপর আমারে দেশে পাঠায় দিছে। আমার পাসপোর্ট পর্যন্ত দেয় নাই, কোনো ট্যাকাও দেয় নাই। আমি খালি হাতে ফিরছি। আমারে সারা রাত ঘুমাতে দিত না।’

ফেরত আসা নারীরা জানিয়েছেন, একই ফ্লাইটে তারা দেশে ফিরেছেন অন্তত ৮০ জন। এ ছাড়া ইমিগ্রেশন ক্যাম্পে রয়েছেন ৪০-৫০ জন। আর দূতাবাসে অপেক্ষমাণ আছে আরও কয়েকশ।

ফেরত আসা সেলিনা জানান, সৌদি আরবে প্রতিনিয়ত নারীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। সেখানে তাদের আটকে রেখে ইলেকট্রিক শক দেওয়ার পাশাপাশি রড গরম করে  ছেঁকা পর্যন্ত দেওয়া হয়। সেলিনা বলেন, ‘আমার পাসপোর্ট রেখে দিয়েছে মালিক। আমি সেখান থেকে পালিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে আসি। দূতাবাস থেকে আমাকে আউটপাস দিয়ে দেশে পাঠিয়ে দিয়েছে। আমি এক বছর কাজ করেছি। কিন্তু বেতন দিয়েছে তিন মাসের। এর আগে আমি ওমানে ছিলাম। আমি তাদের ভাষা জানি। আমাকে অনেক গালাগালি করত। খেতে দিত না ঠিকমতো।’

পিংকি জানান, সৌদি আরব যাওয়ার পর জানতেন না কোথায় কাজ করছেন। এলাকার নাম জানতেন না। বাসার মালিকের নামও জানা ছিল না তার। ভাষাও বোঝেন না তাই, ইশারায় নির্দেশ বুঝে নিয়ে সব কাজ করতেন। প্রতিদিন তিনতলা বাসা ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার করতে হতো তাকে। প্রতিটি তলার ১০টি বড় বড় রুম ছিল। এমনকি ছাদও পরিষ্কার করতে হতো প্রতিদিন। তিনি বলেন, ‘সকালে উঠে থালা-বাসন পরিষ্কার করতাম। এরপর সারাদিন পানি দিয়ে ঘর-বাড়ি পরিষ্কার করতে করতে পুরো শরীর ভিজে যেত। শুকনা কাপড় পরারও সময় পেতাম না। রাতে ভেজা কাপড়েই ঘুমিয়ে পড়তাম, টের পেতাম না। সকালে ওঠার পর বুঝতাম গায়ের কাপড় ভেজা ছিল। পরের দিন আবার একই কাজ। এত কাজের বিনিময়ে সকালে একটা আর রাতে একটা রুটি খেতে দিত। হাতে-পায়ে ধরে ভাত চাইলেও দিত না। ওরা অনেক ভালো-মন্দ খাবার খেত, আমাকে দিত একটা রুটি। আমার মতো কেউ যেন আর সৌদি আরব না যায়।’ ওই নারী বলেন, ‘প্রথম রোজার দিন (বৃহস্পতিবার) রাতে একটা রুটি দিয়েছিল খেতে। আমরা নয়জন মেয়ে মিলে তাদের ভাত দেওয়ার অনুরোধ করার পর সাহরিতে ভাত দেয়। আলু আর পিয়াজের পাতার ভাজি দিয়ে ভাত খেয়েছি। ইফতার করেছি এক গ্লাস পানি দিয়ে। দুই ঘণ্টার পর ভাত দিয়েছে আলু আর পিয়াজ পাতার ভাজি দিয়ে।’ চোখের পানি মুছতে মুছতে তিনি বলেন, ‘সৌদি আরব যাওয়ার পর খাওয়ার খুব কষ্টে ছিলাম ভাই। আপনিই বলেন, খেতে না পাওয়ার চেয়ে আর কী কষ্ট আছে।’ এই নারীর বাবা বাবুল বলেন, ‘আমার মেয়ের বয়স এখন ১৮ বছর। কিন্তু ২৬ বছর দেখিয়ে ওর পাসপোর্ট করা হয়েছে। এখনো জাতীয় পরিচয়পত্র হয়নি আমার মেয়ের। মেয়ে চেয়েছিল, বেশি টাকা আয় হলে ছোট ভাইবোন দুটির লেখাপড়া করবে। কিন্তু তাকেই হারানোর অবস্থা হয়েছিল। তাকে ফিরে পেয়েছি। আপনারা দোয়া করবেন আমার মেয়ের জন্য।’ দারিদ্র্য বিমোচন এবং কর্মক্ষেত্রের স্বল্পতার কারণে নারীরা বেছে নেন অভিবাসন ব্যবস্থা। নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে দেশ ছেড়ে পাড়ি জমান সুদূর সৌদি আরব, আরব-আমিরাত, কুয়েত, ওমান, কাতার, বাহরাইন, লেবাননসহ বিশ্বের ১৮টি দেশে। জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) দেওয়া তথ্যমতে, ২০১৭ সালে অভিবাসী নারীর সংখ্যা ছিল ১২ লাখ ১৯ হাজার ৯২৫ জন, যা মোট অভিবাসন সংখ্যার ১৩ শতাংশ।

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow