Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৩:১৩ অনলাইন ভার্সন
ড. মোমেনের ইউরিনাল স্টোন অপসারণ
এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে
ড. মোমেনের ইউরিনাল স্টোন অপসারণ
নিউজার্সির হ্যাকেনসেক হাসপাতালে ড. মোমেন। ছবি-এনআরবি নিউজ।
bd-pratidin

পরিপূর্ণ লেজার-অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ইউরিনাল স্টোনটি গুড়িয়ে ড. এ কে এ মোমেনের শরীর থেকে ফেলে দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার এই লেজার-অস্ত্রোপচারের কয়েক ঘণ্টা পরই সাবেক রাষ্ট্রদূত ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের জাতীয় কমিটির প্রেসিডেন্ট ড. মোমেন নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডে কন্যার বাসায় ফিরেছেন। তিনি এখন পরিপূর্ণভাবে সুস্থ আছেন। তবে এক সপ্তাহ পর পুনরায় নিউজার্সির হ্যাকেনসেক হাসপাতালে সর্বশেষ ফলোআপের জন্য যেতে বলা হয়েছে। 

‘ইউরিনাল স্টোন’ অপসারণের জন্য গত ৬ সেপ্টেম্বর সর্বপ্রথম নিউজার্সির হ্যাকেনসেক হাসপাতালে ভর্তি হন ড. মোমেন। ভর্তির পরই সেই স্টোন অপসারণের প্রাথমিক একটি অস্ত্রোপচার করা হয়। এরপর বিশেষ চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ১৩ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) পুনরায় একই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। 

এদিন সন্ধ্যায় ড. মোমেন এ সংবাদদাতাকে বলেন, ‘সকলের দোয়ায় স্টোনটি গুড়িয়ে বের করা সম্ভব হয়েছে। এখন আমি সম্পূর্ণ সুস্থ।’ 

উল্লেখ্য, কানাডার টরন্টোতে ১ ও ২ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত ‘বিশ্ব সিলেট সম্মেলন’-এ অংশগ্রহণের সময়েই অসুস্থ হয়ে পড়েন ড. মোমেন। টরন্টোর হাসপাতালে দিনভর পরীক্ষার পর সামান্য সুস্থ হলেই নিউইয়র্কে ফিরে এখানকার খ্যাতনামা ইউরোলজিস্ট ড. মোতাহার আহমেদের পরামর্শে ‘ইউরিনাল স্টোন’ অপসারণের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। 

এ প্রসঙ্গে ড. মোমেন উল্লেখ করেন, আমার চিকিৎসা টিমের সদস্যগণের মধ্যে আরও দুই বাংলাদেশি চিকিৎসক রয়েছেন। তারা হলেন- ড. সোহেল আহমেদ এবং ওমর হাসান। এই ৩ জনের মধ্যে দু’জনই সিলেটি। ফলে অত্যন্ত স্বাচ্ছন্দবোধ করেছি এই অস্ত্রোপচার নিয়ে।
যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর মধ্যে এটি হচ্ছে অনতম সেরা একটি হাসপাতাল। 

এ সময় ড. মোমেন বিশেষভাবে উল্লেখ করেন, আমার বয়স এখন ৭২ বছর। ৩৬ বছরের মত যুক্তরাষ্ট্রে ছিলাম। সৌদি আরবেও ছিলাম কিছুদিন। জীবনে কখনোই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি। ঘনঘন চিকিৎিসকের কাছেও যাইনি। এটিই প্রথম ঘটনা হাসপাতালে রাত কাটানোর। 

‘বাংলাদেশে ফিরেই সিলেটে গিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নামতে হবে। সিলেট-১ থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবার কথা তার। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন বঙ্গবন্ধু কন্যা দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তাই, ফেরার আগেই সবকিছু চেকআপ করার একটি সুযোগ পেয়ে পরমকরুণাময়ের শোকরানা আদায় করছি’-বলেন ড. মোমেন। 

এদিকে, ড. এ কে এ মোমেনের দ্রুত আরোগ্য কামনায় প্রবাসীদের দোয়া চেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড. খন্দকার মনসুর এবং সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল কাদের দিয়া। 

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow