Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৮:২৯ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:০৮
এক রেমিটেন্স যোদ্ধার আকাশ ছোঁয়ার গল্প
এইচ এম হুমায়ুন কবির, ওমান
এক রেমিটেন্স যোদ্ধার আকাশ ছোঁয়ার গল্প

জীবনের প্রয়োজন এবং ভাগ্য বদলের আশায় মানুষ কত কিছুই না করে। কেউ চাকরি আবার কেউ ব্যবসা। কি দেশে? কি প্রবাসে? তবে প্রবাসীদের গল্প একটু ভিন্ন রকম। পরিবার পরিজন ছেড়ে স্বপ্ন ছোঁয়ার প্রত্যয়ে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন প্রবাসীরা।

সকালে সূর্য উদয়ের সঙ্গে যেন শুরু হয় একজন প্রবাসীর ব্যস্ততা। আর শেষ হয় ক্লান্তি আর ঘামে ভরা বদনে রক্তিম সন্ধ্যায়। এমন পরিশ্রমের পরেও কি সকলেই ধরতে পারেন কাঙ্ক্ষিত সেই সোনার হরিণ? না একদম না; দিন শেষে দেখা যায় সংখ্যায় খুব অপ্রতুল সফল ও সাহসী মুখ।

যশোরের অভয়নগরের মুহাম্মাদ আবুল হাসান তেমনই একজন সফল প্রবাসী। যার কাছে ধরা দিয়েছে কাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের সেই সোনালী হরিণটি। 

নোওয়াপাড়ার একতারপুর গ্রামেই তার বেড়ে উঠা মুহাম্মাদ আবুল হাসানের। পড়ালেখার জন্য ইউরোপে পাড়ি জমান তিনি, পড়ালেখার পাশাপাশি ব্যবসায়ও নেমে পড়েন। শুরুতে ঢাকায় ব্যবসা করলেও দেশের ব্যবসায় আশানুরূপ সফলতা না পেয়ে পাড়ি জমান সীমানা পেড়িয়ে ইউরোপে। সেখানে বিভিন্ন ব্যবসা বাণিজ্য শুরু করলেও তেমন সম্ভাবনা আর সফলতা ধরা দেয় না।

এরপর ২০০৭ সালে পাড়ি জমান মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ দেশ ওমানের বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের কেন্দ্রস্থল মাত্রায়। সেখানে হাসান টেক্সটাইল নামে নিজস্ব শো-রুম দিয়ে স্বল্প পরিসরে শুরু করলেও এক পর্যায়ে ওমানিদের বিভিন্ন প্রকারের টেক্সটাইল কাপড় সরাসরি চায়না, জাপান, ইন্দোনেশিয়া ও তাইওয়ান থেকে আমদানি করে ওমানের বিভিন্ন দোকানে পাইকারি সাপ্লাই দেয়া শুরু করেন। আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। তিনি ব্যবসার পাশাপাশি সমাজসেবামূলক কাজও করছেন সমান তালে।

এখন তার সুনাম সারা বিশ্ব ছড়িয়ে পড়েছে। এবার বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে নতুন একটি ব্রান্ডের চেইন কফি শপ কোম্পানি চালুর অপেক্ষায় রয়েছে।  
 
ডি প্রতিদিন/১২ জানুয়ারি ২০১৯/আরাফাত

আপনার মন্তব্য

up-arrow