Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:০৩
প্রেমে ব্যর্থতার কারণসমূহ
আফরীন সুমু
প্রেমে ব্যর্থতার কারণসমূহ

মফিজ এ পর্যন্ত ঊনআশি জনকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে সম্মতি আদায়ে ব্যর্থ হয়েছেন। কেন এ সমস্যা? বিয়ের প্রস্তাব দিলেও কেন মেয়েরা তাকে ‘ভাইয়া’ সম্বোধন করে বোঝাতে শুরু করে? অনেক ভেবেও তিনি এ রহস্যের কূলকিনারা পান না। মফিজ সাহেব হয়তো জানেন না, ইদানীং দেশের বহু ছেলে একই সমস্যায় ভুগছে। ছেলেদের কাছে এটি এক প্রকার জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আসুন এই সমস্যাটির কিছু কারণ ও সমাধান জেনে নেওয়া যাক—

 

মেয়েরা কেন ছেলেদের প্রেম বা বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে?

উত্তর : ইদানীং মেয়েরা খুব দ্রুত কোথাও না কোথাও ‘এনগেইজ’ হয়ে যায়। আইবুড়ো হওয়ার রিস্ক কমাতে এই উদ্যোগ নেয় তারা। এ কথা জেনেও প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে সিঙ্গেল ছেলেরা প্রত্যাখ্যাত হয়।

প্রবলেম এক। হতে পারে মেয়েদের তুলনায়  সিঙ্গেল ছেলেদের সংখ্যা বেশি। ধরা যাক ছেলে ও মেয়ের অনুপাত দশ ইস্টু দুই। তাহলে প্রতি একজন মেয়েকে পাঁচজন করে সিঙ্গেল ছেলে নক করতে পারবে। সেক্ষেত্রে মেয়েটি পাঁচজনের সঙ্গে প্রেম চালিয়ে গেলেও বিয়ে কিন্তু করবে একজনকেই। সুতরাং বাকি চারজন প্রত্যাখ্যাত।

প্রবলেম দুই। গায়ে পড়া স্বভাব ছেলেদের একটি গুরুতর সমস্যা। এই স্বভাবদুষ্ট ছেলেরা  প্রত্যাখ্যাত না হওয়ার কোনো কারণ নেই।

প্রবলেম তিন। ছেলেদের বেশ কিছু ভুল ধারণা রয়েছে। প্রথমত, আন্দাজের ভুল। অনেক ছেলেই আন্দাজ করে নেয়, সে পাত্তা পাওয়ার যোগ্য। মেয়েদের কাছে এই আত্মবিশ্বাসের এক পাইও দাম নেই। দ্বিতীয়ত, ফেসবুক প্রোফাইল দেখে বিচার করা। কোনো ছেলে যদি ধরেই নেয়, তার চেয়ে কম লাইক, কমেন্ট পাওয়া মেয়েরা তাকে গ্রহণ করার জন্য দুই পায়ে দাঁড়িয়ে আছে, তাহলে তার প্রত্যাখ্যান কনফার্ম। কেননা যে মেয়ের লাইক, কমেন্ট যত কম সে মেয়ের ভাবের অনুপাত তত বেশি। তৃতীয়ত, সত্য কথার ভাত তরকারি নাই। যেসব ছেলে অতি সত্যবাদী প্রত্যাখ্যান শব্দটি তাদের কপালে স্টিকারের মতো সেঁটে যাবে।

 

এই তো গেল কারণ। এবার সমাধানের কয়েকটি উপায়—

► ধৈর্য হারানো চলবে না। কয়েক হাজার মেয়ের কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পরও থাকতে হবে অবিচল, অটল।

► মেয়েদের সঙ্গে প্রচুর মিশতে হবে, কিন্তু গায়ে পড়া স্বভাব হওয়া যাবে না। প্রচুর মিশবেন কিন্তু গায়ে পড়বেন না— এটা কীভাবে সম্ভব সেটা আপনার ব্যাপার।

► আন্দাজের ক্ষেত্রে বুদ্ধিমান হোন। আপনি শাহরুখ খান কিংবা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও না— এটা মেনে নিন।

► ইনবক্সে হাই হ্যালো বললে মাসের পর মাস ঝুলিয়ে রাখে এমন মেয়েদের থেকে কয়েকশ হাত দূরে থাকুন। আবার সঙ্গে সঙ্গে রিপ্লাই পেলেও খুশিতে লাফালাফির কিছু নাই। ধৈর্য্য নিয়ে লেগে থাকুন গ্রিন সিগন্যাল পাওয়া পর্যন্ত।

► অতি সত্যবাদিতা পরিহার করুন। সাঁতার না জানলেও বলতে হবে আপনি সাতসমুদ্র তেরো নদী খুব দ্রুতই পাড়ি দিতে পারবেন। আকাশের চাঁদটি আম পাড়ার বাঁশ দিয়ে পেড়ে দিতে পারবেন। প্রেমে পড়ার সময় সব মেয়েই বোকা বোকা টাইপ থাকে। এটা কাজে লাগান।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow