Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ জুন, ২০১৬ ২২:২৮
গিনেস রেকর্ডস
গিনেস রেকর্ডস

পৃথিবীর সবচেয়ে অদ্ভুত এবং আলোচিত বিষয়গুলোর গুদামঘর বলা যায় গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডকে।  এটি মূলত একটি বার্ষিক প্রকাশনা। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিশ্ব রেকর্ড নথিভুক্ত করার জন্য প্রতি বছর গিনেস কর্তৃপক্ষের কাছে প্রায় ৫০ হাজার আবেদন আসে।

গড়ে সেখান থেকে মনোনয়ন পায় ৬ হাজারটি। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের অফিশিয়াল সাইট ঘেঁটে বিস্তারিত তুলে ধরেছেন— মাহবুবুল আলম

 

১৯ শতকের একমাত্র জীবিত মানুষ

বর্তমান বিশ্বের প্রাচীনতম জীবিত মানুষ এমা মার্টিনা লুইজিয়া মরানো। তাকে বলা হচ্ছে ১৯ শতকের একমাত্র জীবিত মানুষ। তিনি ১৮৯৯ সালের ২৯ নভেম্বর ইতালির ভার্সিলিতে জন্মগ্রহণ করেন। এখানেই কাটে তার শৈশবকাল। পরবর্তীতে ভার্বানিয়ায় স্থানান্তর হন। সেখানে ১৯২৬ সালে এক যুবকের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। কিন্তু ৬ মাসের একমাত্র শিশু সন্তানের মৃত্যুর পর তিনি বৈবাহিক সম্পর্ক ছিন্ন করে একাকী বসবাস করা শুরু করেন। বর্তমানে সেই অ্যাপার্টমেন্টেই বাস করছেন এমা মার্টিনা। শত বছরেরও বেশি দিন  বেঁচে থাকার পেছনে রয়েছে তার দৈনন্দিন খাবার তালিকা। দীর্ঘ ৯০ বছর ধরে তিনি প্রতিদিন একটা সিদ্ধসহ তিনটা ডিম, সতেজ ইতালিয়ান পাস্তা ও এক প্লেট কাঁচা মাংস খাচ্ছেন। চলতি বছরের ১২ মে নিউইয়র্কের বাসিন্দা সুসানাহ মুশহাত জন মারা গেলে ১১৬ বছর ১৬৯ দিন বয়সে জীবিত ব্যক্তিদের মধ্যে সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ হিসাবে গিনেস বুকে নাম লেখান তিনি। সর্বকালের বয়োজ্যেষ্ঠ মানুষের থেকে মাত্র ৬ বছরের ছোট এমা মার্টিনা একই সঙ্গে জীবিত নারীদের মধ্যেও বয়োজ্যেষ্ঠ।

 

মাদুর বুনে গিনেস বুকে মালয়েশিয়া

মালয়েশিয়ার বর্নিও দ্বীপের বাকুন, মারুম ও বারাম সম্প্রদায়ের প্রায় ৪০০ নারী তাঁতশিল্পী মাদুর বুনে গিনেস বুক অব রেকর্ডে ঢুকে গেছেন। হাতে তৈরি ওই মাদুরের দৈর্ঘ্য ১১২৮.২৭২ মিটার, যা দিয়ে ভেনেজুয়েলায় অবস্থিত বিশ্বের উচ্চতম জলপ্রপাত অ্যাঞ্জেলকে ঢেকে ফেলা সম্ভব। ওরাং উলু নামে পরিচিত ওই হস্তশিল্পীদের একমাত্র দেশটি বর্নিও দ্বীপে দেখা মেলে। যাদের হাতের সংস্পর্শে এত বড় মাদুর তৈরি করা সম্ভব হয়েছে, এসব নারী বেতের মাদুর তৈরিতে খুবই দক্ষ হিসেবে স্থানীয়ভাবে পরিচিত। চলতি বছরের জানুয়ারিতে শুরু, এরপর পাঁচ মাস ধরে তারা এই বিশালকায় কম্বলটি তৈরি করেন। পরবর্তীতে কম্বল বুননের ওই দৃশ্যগুলো নিয়ে একটি ডকুমেন্টারি ফিল্মও নির্মাণ করা হয়েছে, যার নাম রাখা হয়েছে ম্যাট ওয়েবার টেল’। রেকর্ড গড়া কম্বলে মূলত ওই উপজাতিদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ফুটে উঠেছে। এর আগে ২০১০ সালে সুইডেনের হেমটেক্স এবি কর্তৃক তৈরি ৭৯৭.৫১ মিটার দৈর্ঘ্যের কম্বলই ছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড়।

 

ধোনির ব্যাটের দাম সোয়া কোটি টাকা

কার ব্যাটের দাম সবচেয়ে বেশি? প্রশ্নটা করলেই আপনার মনে হতে পারে ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইলের। কারণ অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশে গত কয়েক মাস আগেই তিনি স্বর্ণের ব্যাট হাতে মাঠে নামেন। কিন্তু গেইল নয়, ক্রিকেটের সবচেয়ে দামি ব্যাট নিয়ে মাঠে নামেন টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। ২০১১ সালের ১১ জুলাই লন্ডনে ধোনির ওই ব্যাটটা নিলামে তোলা হয়। এরপর ১ লাখ ৬১ হাজার ২৯৫ মার্কিন ডলার দিয়ে ব্যাট কিনে নেয় ভারতের আর কে গ্লোবাল  শেয়ার অ্যান্ড সিকিউরিটিস  কোম্পানি। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার মূল্য ১ কোটি ২৬ লাখ ৬ হাজার টাকা। আর এটাই এখন পর্যন্ত বিক্রি হওয়া সবচেয়ে দামি ব্যাট। কিন্তু কী মহত্ত্ব আছে এই ব্যাটের? ২০১১ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে  তোলেন ভারত। টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে ধোনির ওই ব্যাট থেকেই ম্যাচের জয়সূচক রানটি আসে। ব্যাটটি মহামূল্যবান হওয়ার ওই একটাই কারণ।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow