Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৫ জুলাই, ২০১৬ ২১:৫১
গিনেস রেকর্ডস
গিনেস রেকর্ডস

পৃথিবীর সবচেয়ে অদ্ভুত ও আলোচিত বিষয়গুলোর গুদামঘর বলা যায় গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসকে।

 এটি মূলত একটি বার্ষিক প্রকাশনা। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিশ্বরেকর্ড নথিভুক্ত করার জন্য প্রতি বছর গিনেস কর্তৃপক্ষের কাছে প্রায় ৫০ হাজার আবেদন আসে। গড়ে সেখান থেকে মনোনয়ন পায় ৬ হাজারটি। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের অফিশিয়াল সাইট ঘেঁটে বিস্তারিত তুলে ধরেছেন— মাহবুবুল আলম

 

৮ ঘণ্টায় সাড়ে ৭ লাখ চারা রোপণ

মাত্র ৮ ঘণ্টায় ৭ লাখ ৬৫ হাজার ৭৩টি চারা রোপণ করে বিশ্বরেকর্ড গড়েছে বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যের অধিকারী লাতিন আমেরিকার দেশ ইকুয়েডর। ২০১৫ সালের ১৬ মে সারা দেশের মোট ২৩৭ স্থানের ২ হাজার ২৬৯ হেক্টর জমিতে এসব গাছের চারা রোপণ করা হয়। দেশটির পরিবেশ মন্ত্রণালয় আয়োজিত এ কর্মসূচিতে অংশ নেন সারা দেশের ৫৭ হাজার ৫১২ জন মানুষ। অবশ্য পকেটের অর্থ দিয়ে দেশবাসীকে এই চারা কিনতে হয়নি। কর্মসূচিতে রোপণ করা সব চারার সরবরাহ করা হয় মন্ত্রণালয় থেকেই। ২০১৭ সালের মধ্যে ‘বন উজাড়’ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে নেওয়া ইকুয়েডর সরকারের এ উদ্যোগ, গিনেস বুক রেকর্ডসে তাদের লক্ষ্যে পৌঁছতে উৎসাহিত করবে বলে মনে করছে ওয়েবসাইটটি।

 

কনিষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতা

বয়স মাত্র ৭ বছর ৩৪০ দিন। স্বাভাবিকভাবেই এই বয়সে শিশুরা খেলাধুলা, নাচ-গান কিংবা পড়াশোনা করতে চায়। কিন্তু ব্যতিক্রম সওগাত বিস্তা। কারণ এই বয়সে সিনেমা পরিচালনা করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে হিমালয়বেষ্টিত দেশ নেপালের ছোট্ট এই শিশুটি। আর অবাক বিশ্ব চেয়ে চেয়ে দেখেছে তার ক্রিয়েভিটি। যার ফলে ইতিমধ্যেই বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে জায়গা করে নিয়েছে সওগাত। তার পরিচালিত ছবির নাম ‘লাভ ইউ বাবা’। দেশটির বিভিন্ন লোকেশনে ২৭ দিন ধরে দৃশ্যধারণের পর ২০১৪ সালের ১২ ডিসেম্বর ছবিটি মুক্তি পায়।   কাঠমান্ডুর একটি ইংলিশ মিডিয়ামের গ্রেড-২-এর ছাত্র সওগাতের এখন শখ বড় হয়ে খ্যাতিমান সিনেমা পরিচালক হওয়া। এর আগের রেকর্ডটি ছিল ভারতের কিষাণ শ্রীকান্ত নামে এক শিশুর। ২০০৬ সালে মাত্র ৯ বছর বয়সে ‘ফুটপথ’ নামক ছবিটি শ্রীকান্তকে বসিয়েছিল কনিষ্ঠ সিনেমা পরিচালকের আসনে।

 

সবচেয়ে বড় সিনেমার পোস্টার

যদি এখন কোনো সিনেমাপ্রেমিককে জিজ্ঞাসা করা হয়, ভারতের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ছবি কোনটি? অনায়াসে তিনি বলে দেবেন এস এস রাজামৌলির ‘বাহুবলী’। ছবিটি আরও একদিক থেকে অন্যসব রেকর্ডকে ছাপিয়ে গেছে। তবে তা শুধু ভারতের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। বিশ্বের সবচেয়ে বড় পোস্টারের রেকর্ড গড়েছে ভারতের বক্স-অফিস তোলপাড় করে ফেলা তেলেগু সিনেমাটি। গত বছরের ২৭ জুন সিনেমাটি মুক্তির আগ দিয়ে কেরালায় অনুষ্ঠিত হয় সিনেমাটির অডিও লঞ্চিং অনুষ্ঠান। সেখানেই ছবির পোস্টারটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। গিনেস বুকের তথ্যানুযায়ী, বাহুবলীর আগের রেকর্ডটি ছিল তুর্কি এক পার্কি ছবির ৫০ হাজার ৬৮৭ বর্গফুট আকারের একটি পোস্টারের। কিন্তু ওই দিন ১৮টি টেনিস কোর্টে ৫১ হাজার ৫৯৮ বর্গফুটের পোস্টারটি প্রদর্শন করে সেই রেকর্ড ভাঙে বাহুবলী। ৩০ জনের একটি দল ৩ দিন ৩ রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে পোস্টারটি তৈরি করে।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow