Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:৫৭
টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক ♦ রুপা হক
ব্রিটেনে বাংলাদেশি ছায়া প্রতিমন্ত্রী
ব্রিটেনে বাংলাদেশি ছায়া প্রতিমন্ত্রী

টিউলিপ সিদ্দিক

ছায়া শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

যুক্তরাজ্যে নতুন ছায়া শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পদে মনোনীত হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক। আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে অগ্রণী বাঙালি নেতা হিসেবে তিনি বিশ্ববাসীর কাছে নিজের পরিচয় তুলে ধরেছেন।

যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির ছায়া মন্ত্রিসভায় তার অন্তর্ভুক্তি এক অনন্য অর্জন। টিউলিপ আজ বিশ্ব রাজনীতির পরিমণ্ডলে জয়পতাকাধারী এক নারী।

টিউলিপ সিদ্দিক দেশটির বিরোধী দল লেবার পার্টি নেতা জেরোমি করবিনের নেতৃত্বাধীনে কাজ করছেন। তাকে চলতি বছরের ১০ অক্টোবর পুনর্গঠিত ছায়া সরকারে ‘শ্যাডো এডুকেশন’ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

যুক্তরাজ্যের হ্যাম্পস্টেড ও কিলবার্ন এলাকার পার্লামেন্ট সদস্য টিউলিপ ছায়া সরকারের শিক্ষামন্ত্রী অ্যাঞ্জেলা রেইনারের অধীনে শ্যাডো মিনিস্টার ফর আর্লি ইয়ার্স এডুকেশন-এ কাজ করবেন। এর আগে টিউলিপ সিদ্দিক করবিনের প্রথম ছায়া সরকারের সংস্কৃতি, গণমাধ্যম ও ক্রীড়াবিষয়ক মন্ত্রী মাইকেল ডাগারের ব্যক্তিগত সচিবের দায়িত্বে ছিলেন।

প্রবাসে থেকেও জনকল্যাণমূলক কাজে যুক্ত থেকেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিক। এই বয়সেই চারিত্রিক নিষ্ঠা, নিজের কাজের প্রতি দৃঢ়বিশ্বাস টিউলিপকে কৃতিত্বের সঙ্গে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। কাজের মাধ্যমে ব্রিটিশ রাজনীতিতে একটি পাকা আসন তৈরি করে চলেছেন, যা বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক রাজনীতিতেও সুদূরপ্রসারী ও ইতিবাচক প্রভাব বিস্তার করবে— সেটাই প্রত্যাশিত।

টিউলিপ সিদ্দিকের জন্ম ১৬ সেপ্টেম্বর ১৯৮২। লন্ডনের মিচামে জন্ম নেওয়া টিউলিপ কিংস কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৫ বছর বয়স থেকে হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্নে বসবাস করছেন তিনি। পড়েছেন এই এলাকার স্কুলে। ২০১০ সালে স্থানীয় ক্যামডেন কাউন্সিলে প্রথম বাঙালি নারী কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তিনি। ছোটবেলা থেকেই রাজনীতি করতে চেয়েছেন টিউলিপ সিদ্দিক। রাজনীতি মানে তার কাছে মানুষের সেবা করা। টিউলিপের দাবি, এই চেতনার সঞ্চার করেছেন তার খালা শেখ হাসিনা। টিউলিপের কাছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোল মডেল।

 

রুপা হক

ছায়া স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশিদের সাফল্যগাথা।   সে পথেই আরেক ধাপ এগিয়ে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করেছেন রুপা হক। ছায়া স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী রুপা হক যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির ছায়া মন্ত্রিসভার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়বিষয়ক প্রতিমন্ত্র্রী হিসেবে মনোনীত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রুপা হক। ১৪ অক্টোবর লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন তাকে এ পদে নিয়োগ দেন।

রুপা হকের বাড়ি বাংলাদেশের পাবনা শহরের মকছেদপুরে। বাবা মুহাম্মদ হক এবং মা রোশান আরা হক। ১৯৭২ সালের ২ এপ্রিল লন্ডনের কুইন চার্লেটস হসপিটালে রুপা হকের জন্ম হয়। পরিবারের সঙ্গে লন্ডনে তার বেড়ে ওঠা। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লাভ করেন ব্যাচেলর ডিগ্রি। পরে ইয়ুথ কালচার বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন ইউনিভার্সিটি অব ইস্ট লন্ডন থেকে। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়বিষয়ক ছায়ামন্ত্রী ডায়ান অ্যাবোটের নেতৃত্বে কাজ করবেন রুপা হক। কমপক্ষে ১৮ মাসের জন্য পদটিতে তিনি নির্বাচিত হলেন। এ প্রসঙ্গে রুপা টুইটারে লিখেছেন, স্বরাষ্ট্রবিষয়ক ছায়া প্রতিমন্ত্রী হিসেবে লেবার পার্টির অগ্রগামী দলে যুক্ত হয়ে খুব খুশি হয়েছি। ক্ষমতাসীন সংরক্ষণশীল রাজনৈতিক সরকারকে চাপে রাখার জন্য আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। আর পশ্চাত্গামী দলকে রুখতে এটাই আমাদের কাছে এখন বড় একটা সুযোগ। যুক্তরাজ্যে সংসদীয় গণতন্ত্রের রীতি অনুযায়ী সরকারকে জবাবদিহি করার জন্য বিরোধী দল এই মন্ত্রিসভা গঠন করে থাকে। তাই এটিকে বলা হয় ছায়া মন্ত্রিসভা বা শ্যাডো কেবিনেট। ছায়া মন্ত্রিসভায় দায়িতপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের কাজ হলো সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের সিদ্ধান্ত ও কার্যক্রমের পর্যবেক্ষণ, বিশ্লেষণ ও ভুলত্রুটি তুলে ধরে চ্যালেঞ্জ করা। সেই সঙ্গে নিজ দলের পক্ষে বিকল্প প্রস্তাব উপস্থাপন করা। দল ক্ষমতায় গেলে ছায়ামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনকারীরা পরবর্তীতে মন্ত্রিত্বের জন্য অগ্রাধিকার পান। এ কারণে ছায়া মন্ত্রিসভায় দায়িত্ব পাওয়ার বিষয়টি ব্রিটিশ রাজনীতিতে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। রুপা হক ২০১৫ সালে লন্ডনের ‘ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন’ আসন থেকে প্রথমবারের মতো এমপি নির্বাচিত হন। দলীয় এমপিদের বিদ্রোহের কারণে সম্প্রতি নতুন করে নেতৃত্বে টিকে থাকার লড়াই করতে হয় জেরেমি করবিনকে। কিন্তু এবারও ব্যাপক সমর্থন নিয়ে করবিন নতুন করে তার মন্ত্রিপরিষদ গঠন করেন।

 

ব্রিটেনের রাজনীতিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূতদের পথিকৃৎ

রুশনারা আলী

ব্রিটেনের রাজনীতিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রাজনীতিবিদদের পথিকৃৎ বলা হয় রুশনারা আলীকে। পূর্ব লন্ডনের ‘বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো’ আসনে লেবার পার্টির বর্তমান এমপি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কৃতী সন্তান রুশনারা আলী। চলতি বছর ৭ মে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে রুশনারা আলী একই পদে দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। রুশনারার পৈতৃক বাড়ি সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকজি ইউনিয়নের ভুরকি গ্রামে। বাবা আফতাব আলী ও মা রানু বেগম। ১৯৭৫ সালের ১৪ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন রুশনারা। তার ডাকনাম স্বপ্না। মাত্র সাত বছর বয়সে তিনি বাবা-মার সঙ্গে লন্ডনে চলে যান। রুশনারা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন। প্রথম দফায় মন্ত্রী থাকাকালীন তিনি এনার্জি অ্যান্ড ক্লাইমেট চেঞ্জ-বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। এর আগে রুশনারা আলীকে বাংলাদেশ-বিষয়ক বাণিজ্য দূত হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। এ ছাড়াও রুশনারা আলী ট্রেজারি কমিটির সদস্য, ছায়া শিক্ষামন্ত্রী, ছায়া আন্তর্জাতিক উন্নয়নমন্ত্রী ছিলেন।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow