Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:০২
ভ্রমণ
চোখ জুড়ানো গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন
চোখ জুড়ানো গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন

প্রকৃতি যেন নিজের পরিকল্পনায় গড়েছে অনন্য সাম্রাজ্য। চোখকে বিশ্বাস করা দায়! ‘মাদার নেচারস ক্রাউন জুয়েল’ তকমাটা একেই মানায়।

গিরিখাতের মধ্য দিয়ে বয়ে চলা কলোরাডো নদী যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনার গ্র্যান্ড ক্যানিয়নে এনে দিয়েছে ভিন্ন মাত্রা। লিখেছেন— আবদুল কাদের

 

গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন— রুক্ষ পাথরে গড়া পাহাড় আর পাহাড়। তাও আবার যেন তেন পাহাড় নয়, বিচিত্র সব রঙের বিচিত্র সব পাহাড়। রয়েছে অসংখ্য গিরিখাত। গিরিখাত হচ্ছে পাহাড়ের গায়ে বিশালাকারের ফাটল। এই ফাটল এতই বিশাল যে, কিছু কিছু ফাটল মাইলখানেক চওড়া পর্যন্ত হয়। আর এসব ফাটল এক দিনে তৈরি হয়নি। ধারণা করা হয় কোটি কোটি বছর ধরে তৈরি হয়েছে এসব ফাটল বা গিরিখাত। পাথুরে পাহাড় ও গিরিখাতের অসম্ভব সুন্দর এই রাজ্যটির নাম ‘দ্য গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন’।

পাথরের মধ্য দিয়ে কলোরাডো নদী এমনভাবে বয়ে চলেছে যার ফলে প্রকাণ্ড এক গর্ত তৈরি হয়েছে। মাইলের পর মাইল সেই গর্ত। অঞ্চলটা অনেকটা মরুভূমির মতো এবং পাথরের রংও লাল। যার ফলে তৈরি হয়েছে গভীর গিরিখাত। প্রকৃতির এক আশ্চর্য সৃষ্টি এই গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন। দেখলে মনে হবে বাইরের কোনো গ্রহ।

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যে অবস্থিত গিরিখাত গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন। এই গিরিখাতের মধ্য দিয়ে বয়ে চলা কলোরাডো নদী। মূলত এটি যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল পার্কের ভিতর দিয়ে তৈরি হওয়া গিরিখাত। গিরিখাতের দৈর্ঘ্য ২৭৭ মাইল এবং প্রস্থ প্রায় ০.২৫ থেকে ১৮ মাইল পর্যন্ত এবং গভীরতা প্রায় ১৮০০ মিটার। প্রকৃতি যে সব বিস্ময় মানুষকে যুগে যুগে মুগ্ধ করেছে গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন তারই একটি।

 

আজকের গ্র্যান্ড ক্যানিয়নের পেছনে প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্টের বিশাল ভূমিকা রয়েছে। তিনি প্রায়ই এখানে শিকার এবং ভ্রমণের উদ্দেশে আসতেন।

গ্র্যান্ড ক্যানিয়নে বেড়াতে আসা দর্শনার্থীরা সহজেই প্রকৃতির প্রেমে পড়ে যান। কারণ এখানে আসার পথে প্রথমেই পড়ে লেক পাওয়েল। এটি পেজের কাছের জলাশয়। উতা আর অ্যারিজোনার মধ্যে সীমান্ত হিসেবে কাজ করে এ জলাশয়। প্রায় ২০০০ মাইল লম্বা এ জলাশয় আমেরিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম ম্যান মেড লেক। গাছপালা, নানা রঙের ফুলের সমাবেশে জায়গাটি অসম্ভব সুন্দর।

এখানে লেকের ধারে হাইকিং করতে দারুণ লাগে। রয়েছে রেনবো ব্রিজ ন্যাশনাল মনুমেন্ট। পৃথিবীর বৃহত্তম পাথরের ব্রিজ এটি। বোট নিয়ে ঘুরে দেখতে পারবেন অ্যান্টিলোপ, গ্লেন ক্যানিয়ন, নাভাজো ক্যানিয়ন। পানির মধ্য দিয়ে চলা নৌকা, পাথরের মধ্য দিয়ে এঁকেবেঁকে চলা জলাশয় যেন অপরূপ সৌন্দর্যকে নিয়ন্ত্রণ করে। অ্যান্টিলোপ ক্যানিয়ন আবার ১০ মাইল লম্বা। ৪ মাইলের দেয়াল ফলক পেরিয়ে রাস্তা সরু হয়ে গেছে। বেশ রোমাঞ্চকর ব্যাপার। গ্লেন ক্যানিয়ন ড্যামও দেখার মতো। ইউএসএর দ্বিতীয় বৃহত্তম আর্চ ড্যাম এটি।

পেজের দক্ষিণ-পশ্চিমে ৬.৪ মাইল গেলেই গ্লেন ক্যানিয়ন ন্যাশনাল রিক্রিয়েশন এরিয়া। গ্লেন ক্যানিয়ন ড্যাম আর লেক পাওয়েল থেকে ৮ কিলোমিটার নেমে হর্স শু বেন্ড। কলোরাডো নদী এখানে এমনভাবে এঁকেবেঁকে গেছে দেখে মনে হবে ঠিক যেন ঘোড়ার নাল। সেই থেকেই নাম হর্স শু বেন্ড। লেক পাওয়েল রিসোর্ট এরিয়া থেকে ২০ মিনিটের পথ। গাড়িতে না গিয়ে পার্কিং এরিয়া ধরে গেলে মিলবে আরেক সৌন্দর্য। রয়েছে দ্য ভিউ ইজ আইকনিক। ১০০০ ফুট নিচে নাভাজো স্যানস্টোন জিওলজিক ফরমেশন। রঙের বৈচিত্র্য দারুণ। লাল-কমলা পাথরে রোদ ঝিকিমিকি করে তোলে পুরো এলাকা। লেয়ারের পর লেয়ার এবং ঘোড়ার নালের মতো ঘিরে রাখা কলোরাডো নদী। আর একটু নিচে নামলেই গ্র্যাভেল, বালি, ঢালু পাথরের রাশি।

পাথরের গায়ে ধাক্কা লেগে ছলাৎ ছলাৎ আওয়াজও বলে দেবে নদীর ঢেউয়ের প্রখরতা। অনেক আগে কলোরাডো নদী দক্ষিণে সমুদ্রের দিকে বইত। ৫ মিলিয়ন বছর আগে কলোরাডো প্ল্যাটোর আপলিফটমেন্টে এখানেই আটকে যায়। সেখান থেকেই হর্স শু বেন্ড তৈরি। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে কলোরাডো নদী ২৭০০ মিটার উঁচুতে। নদীটি এতটাই খাড়াভাবে নেমে আসাতে এখানে ভূমিক্ষয়ের পরিমাণ অন্যান্য নদীর তুলনায় অনেক বেশি। গ্র্যান্ড ক্যানিয়নের কলোরাডো নদী নিয়ে বিশেষজ্ঞরা নানা মতামত দেন। কলোরাডো নদীর এই নেমে আসার ধারাটি নাকি এখনো সম্পূর্ণরূপেই বিদ্যমান। এভাবে চলতে থাকলে আগামী ২০ লাখ বছরে গ্র্যান্ড ক্যানিয়নের গভীরতা আরও অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে। কে বলতে পারে, ভবিষ্যতে হয়তো এখানে আর নতুন জিওলজিক ফর্মেশন দেখা যাবে না।

রয়েছে গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন ন্যাশনাল পার্ক। গাড়িতে করে ঘুরে দেখা যায়। তবে চপারে করেও ঘুরতে পারেন। আর এর সৌন্দর্য বিকালেই যেন কয়েকগুণ বাড়ে। এ এক অবিশ্বাস্য দৃশ্য। গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন এত বিশাল যে মাথা ঘুরে যেতে পারে। প্রকৃতির ক্যানভাসে গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন অসাধারণ অপরূপ। সন্ধ্যা হলে এখানকার রাস্তাঘাট বেশ খালি আর নির্জন হয়ে ওঠে। রাতে গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন এলাকাটিকে আরও সুন্দর দেখায়। তবে বিপজ্জনক বিধায় রাতে পর্যটকদের হোটেল থেকে বের হতে দেওয়া হয় না। পাথর আর পাহাড়ে ঘেরা অঞ্চল হলেও জায়গাটা একদম কাঠখোট্টা নয়। বরং এই বিশাল মরু অঞ্চলের মাঝেও এক ধরনের সৌন্দর্য খুঁজে পাওয়া যায়।

 

কীভাবে যাবেন

ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নিউইয়র্কের বিমান আছে। ওখান থেকে অ্যারিজোনার ফিনিক্স। তারপর কানেক্টিং ফ্লাইটে পেজ। ফ্ল্যাগস্টাফেও যেতে পারেন। বড় এয়ারপোর্ট বলে প্লেনের সংখ্যা বেশি। ফ্ল্যাগস্টাফ থেকে পেজ গাড়িতে।

 

কোথায় থাকবেন

গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন সমগ্র এলাকাজুড়ে অনেক সুন্দর সুন্দর হোটেল ও রিসোর্ট রয়েছে। ইচ্ছা হলেই রাতযাপন করতে পারবেন। ভাড়া ১৩৩ ডলার থেকে শুরু।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow