Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:০৮
ফিলিস্তিনে বাংলাদেশি যোদ্ধা
ফিলিস্তিনে বাংলাদেশি যোদ্ধা

 ফিলিস্তিন-ইসরায়েল যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন অন্তত পাঁচ শতাধিক বাঙালি যোদ্ধা। তাদের একজন সিলেটের জকিগঞ্জের ইসমাইল চৌধুরী আকরাম।

থাকেন লেবাননের রাজধানী বৈরুতে। ইরান দূতাবাসে ফিলিস্তিনি নেতা ইয়াসির আরাফাতের সঙ্গে কথা বলার পর তিনি পিএলও’র হয়ে যুদ্ধ করতে চলে যান। কফি বানিয়ে খেয়েছেন কিংবদন্তির এই নেতার সঙ্গে। বললেন, জীবন নিয়ে যে ফিরে আসতে পারব সেটা কল্পনাও করিনি। দেশে ফিরতে ইচ্ছা করলেও ফেরা হয় না তার। লেবাননের বৈরুত থেকে ফিরে লিখেছেন— শিমুল মাহমুদ

 

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল দীর্ঘস্থায়ী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়েছিল পার্শ্ববর্তী লেবানন, সিরিয়া পর্যন্ত। ফিলিস্তিনি মুসলমানদের স্বাধীন আবাসভূমি প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে পাশের দেশ লেবানন, সিরিয়ার সঙ্গে ইয়েমেন এমনকি দূরবর্তী বাংলাদেশের মানুষও মরণপণ লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। অন্তত পাঁচ শতাধিক বাঙালি যুবক ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিল ফিলিস্তিন ও লেবাননের মাটিতে। ইয়াসির আরাফাতের নেতৃত্বে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের (পিএলও) হয়ে যুদ্ধ করেন তারা।

অনেকেই অকাতরে জীবন দেন ইসরায়েলি মারণাস্ত্রের আঘাতে। তাদের সমাহিত করা হয়েছে সিরিয়া, ফিলিস্তিন ও লেবাননের মাটিতে। যুদ্ধক্ষেত্র থেকে যারা বেঁচে ফিরেছেন, তাদের অধিকাংশই পরে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ঠাঁই নিয়েছেন।

গত ২৭ জানুয়ারি বৈরুত রফিক হারিরি ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে পা রেখেই ভিআইপি লাউঞ্জে স্থানীয় সাংবাদিক বাবু সাহাকে পাওয়া গেল। তার কাছেই জানতে চাওয়া হলো, ফিলিস্তিনে বাঙালি যোদ্ধাদের কাউকে পাওয়া যাবে কিনা। তিনি আশ্বস্ত করলেন, বিকালে বাংলাদেশ দূতাবাসে কমিউনিটি সমাবেশ আছে। সেখানে দেখা হয়ে যেতে পারে। বাবু সাহার প্রচেষ্টায় তিন বাঙালি যোদ্ধার দেখা মেলে বৈরুত দূতাবাসে। আকরাম ছাড়াও অন্য দুজন হলেন, ফেনীর দাগনভূঁইয়ার মোহাম্মদ উল্লাহ দুলাল (৫৮) ও সিলেটের দুরা মিয়া (৫৭)। লেবাননে আরও বাঙালি যোদ্ধা আছেন বদিউল আলম তোতা, অহিদুল হক মুর্শেদ চৌধুরী।

ইসমাইল চৌধুরী আকরাম (৬২) বললেন, ১৯৭৭ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশ থেকে ইরানের বাংলাদেশ দূতাবাসে আশ্রয় নেই আমি। তখন রাষ্ট্রদূত মাসুম চৌধুরী আমাদের শেল্টার দিলেন। রাজনৈতিক কারণে তখন বাংলাদেশে থাকা ছিল ঝুঁকিপূর্ণ। আমরা ছিলাম ৭০ জন। এর কয়েকদিনের মধ্যে লেবাননের ক’জন মন্ত্রীসহ ইরান আসেন ইয়াসির আরাফাত। পরিচয়ের সময় আমাকে তিনি পছন্দ করলেন। বললেন, তোমরা যাইবা আমার সঙ্গে। আমি জিজ্ঞেস করলাম, কোথায়? তিনি বললেন, লেবাননে। সেখানে গিয়ে পিএলও-তে যোগ দিবা। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবা। আমি রাজি হয়ে গেলাম। বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে পরের বছরই যোগ দেন ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে। ইসমাইল চৌধুরী আকরাম বললেন, বাংলাদেশের পাঁচ শতাধিক যোদ্ধার মধ্যে শতাধিক মারা যান যুদ্ধে। পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণের অভাবেই তাদের মৃত্যু হয়। যুদ্ধে আত্মরক্ষার কৌশল জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভালো ট্রেনিং থাকলে আমাদের এত লোক মরত না। ইয়াসির আরাফাতের সঙ্গে কোনো স্মৃতি আছে কিনা জানতে চাইলে আকরাম বলেন, আমি নিজের হাতে কফি বানিয়ে উনাকে খাওয়াইছি। একবার একসঙ্গে বসে কফি খেয়েছি। উনি বাংলাদেশের মানুষকে অনেক ভালোবাসতেন। লেবাননে আকরামের কেউ নেই। বিয়ে করে সংসার শুরু করারও সময় পাননি। আকরাম বলেন, জীবন নিয়ে যে ফিরে আসতে পারব সেটা কল্পনাও করিনি। দেশে যেতে ইচ্ছা করলেও যাওয়া হয় না তার। সিলেটে ভাই ও বোন আছেন। মাঝে মধ্যে যোগাযোগ হয়। বর্তমানে কাজ করছেন লেবাননের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেহরক্ষী হিসেবে, আরও তিনজনের সঙ্গে।

আকরাম বলেন, বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে আমরা লেবাননে গিয়ে পিএলও-তে যোগ দিলাম ১৯৭৮ সালে। এরপর আমাকে নিয়ে গেল বালবাক এলাকায়। সেখানে গিয়ে দেখি আরও কিছু বাঙালি আছে। ঢাকার দোহার থানার। আমাকে নিয়ে গেল ক্যান্টনমেন্টের মতো একটি এলাকায়। অস্ত্র সরঞ্জামের বিরাট জায়গা। আমাকে বলল, আমরা তোমাকে ট্রেনিং দেব। আর বাঙালিদের তুমি ট্রেনিং দিবা। এখানে জমতে জমতে ১১৩ জনের মতো বাঙালি হলাম। আমরা ৮/৯ মাস থাকলাম এখানে। আমাকে প্রথমবারই বেতন দিল ১০৫০ লিরা। তখন এক ডলারের সমান ছিল ২ টাকা ৭৫ পয়সা। মানে প্রায় ৫০০ ডলারের মতো। আমার চেয়ে পুরনোরা পাইত ৬০০ থেকে ৭০০ লিরা। তারা উপরে রিপোর্ট করল, তার এত বেতন কেন? অফিসার বলল, সে (আর্মি) অফিসার। তারা আমাকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করত। কারণ, বয়স অল্প ছিল। আমি এসব নিয়ে মাইন্ড করতাম না। বললাম, আমাকে মানলে মানেন, না মানলে নাই। মানলে আপনার জান বাঁচব। না মানলে মারা পড়বেন। শেষে আমরা ১৬৩ জন বাঙালি হলাম। ১৯৮০ সাল। তখন আমাদের ১৭ জন, ২২ জনের দলে ভাগ করে বিমান বিধ্বংসী কামানসহ বড় বড় অস্ত্রের দায়িত্বে দিল। রোমাঞ্চকর ঘটনার স্মৃতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, আখের সাতিলা নামে একটি জায়গায় হাসপাতালে ইসরায়েলি কমান্ডোরা হামলা চালায়। ২২ জন ফিলিস্তিনিকে গলা কেটে হত্যা করে। আমরা বাঙালিরা সে যাত্রায় বেঁচে যাই। এখন সেখানে একটি ব্রিজ হয়েছে। তিনি বলেন, ১৯৮১ সালের শেষের দিকে আমাদের দক্ষিণ লেবাননে আরনামা জায়গায় নিয়ে যাওয়া হলো। তখন আরও ৬০ জন বাঙালি যোগ দিল। ১৯৮২ সালের শুরুতে আবু আরব নামের একজন অফিসার বললেন, যুদ্ধ সম্পর্কে কী জানো? টেক কেয়ার। মে বি ফাইট। তখন বুঝলাম যুদ্ধ করতে হবে। আমরা বাংকার বানালাম। ঠিকমতো ডিউটি পালন করছি। ফিলিস্তিনি অফিসাররা খুব কড়া। হরিণের মতো কান খাড়া করে চলছে। দোহারের সেলিম ভাই, গফুর ভাই। তখনই তাদের বয়স ৪৫/৫০। তারা বলল, ‘আকরাম, মনে হয় যুদ্ধ লাইগা যাইবো। ’ কী করা। বললাম, যুদ্ধ লাগলে যুদ্ধ করব। দেখি গাড়ির মধ্যে তেল ভরছে। অস্ত্রশস্ত্র দেখভাল করছে। ৪/৫ দিন পর ঘটল আসল ঘটনা। ১ ঘণ্টার মধ্যে ১০/১২টা হেলিকপ্টার নামছে। ওপর থেকে বোমা মারছে। আমরা বাঙালিরা গুলির পর গুলি করছি। গুলি শেষ, এখন কে ভইরা দিবো। কোনো ফিলিস্তিনি সেখানে ছিল না। কোনো সিরীয়, লিবিয়ান, ইয়েমেনি সেখানে ছিল না। বাঙালিরা ১৭৩ জন যুদ্ধ করেছি। দোহারের সেলিম ভাই ছিলেন, এখন দেশে চলে গেছেন। তিনি বললেন, সবাই আকরামের কথা ফলো করেন। সে আরবি ভালো জানে। ইংলিশ তো বলতে পারে। রাস্তাঘাট চেনে। এত বড় ঘটনায় আমাদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। আমরা বাঙালিরা একাই যুদ্ধ করলাম এখানে। এরপর আমরা হাঁটা দিলাম। কারও কাছে কোনো পাসপোর্ট নেই। পাসপোর্ট যে আনব সেই পরিস্থিতিও নেই। আমরা ১৭৩ জন ছিলাম। ১৩ দিন হেঁটে আমরা সিরিয়ার বর্ডারে পৌঁছি। রাস্তায় দেখলাম, অনেক বাঙালি মারা গেছেন। রাস্তায় বাটা জুতা, কেমি ঘড়ি পেয়েছি। দেখে বুঝেছি বাঙালি। ১৯৮১ সাল থেকে অনেক বাঙালি ঢুকেছে। কেউ বৈরুত দিয়ে ঢুকেছে। কেউ সিরিয়া দিয়ে। আমরা সিরিয়ার বর্ডার পেরিয়ে ভিতরে ঢুকে গেলাম। সিরিয়ান আর্মিরা আমাদের সব অস্ত্র নিয়ে গেল। আমরা বললাম, আমরা আরাফাতের লোক। তখন তারা পিএলও’র বড় অফিসারকে ওয়ারলেস করল। ফিলিস্তিন থেকে পিএলও’র লোক এসে আমাদের নিয়ে গেল। একটা ক্যান্টনমেন্টে রাখল। সিরিয়া বর্ডারের একটা এলাকায়। আমরা প্রায় ১৫০ জন বাঙালি হলাম। তখন তো ইসরায়েল দখল করে ফেলেছে পুরো লেবানন। শুধু বৈরুত ছাড়া। তখন খবর এলো, লেবাননের অবস্থা ভালো হয়ে গেছে। ইসরায়েল জায়গা ছেড়ে দিয়েছে। আমরা কয়েকটা ক্যাম্পে আড়াই শ বাঙালি ছিলাম। ওখানে আবু কায়েব নামে একটি ক্যাম্পে আমাদের জায়গা দিল। ওখানে গিয়ে দেখি ওরা একেবারে অরক্ষিত। ৪৫ জন বাঙালি আছে সেখানে। বললাম, আপনারা এভাবে থাকেন কেন। ইসরায়েলিরা হঠাৎ করে বোম্বিং করলে তো বাঁচতে পারবেন না। বাঁচতে চাইলে আত্মরক্ষা করেন, ক্যাম্প বানান। সেখানে একটা খাল ছিল। তার পাশে তারা আবার ক্যাম্প বানিয়ে পাতা দিয়ে ঢেকে রাখল। সেখানে বড় বড় অস্ত্রের গুদাম। রাশিয়া ও অন্যান্য দেশ থেকে অস্ত্র এনে এখানে মাটির নিচে রেখে দিত। এর তিন দিন পর হঠাৎ করে প্লেন থেকে বোম্বিং করল। সেখানে তারা সাতজন ভাগ করে রান্না করত। তিনজন বাঙালি ও চারজন ফিলিস্তিনি। শেলিং করার সঙ্গে সঙ্গেই এই সাতজন মারা গেল। আমরা তখন বাঙালিদের মাটি দিলাম সিরিয়ার ভিতরে। সাঈদা জয়নাব নামে একটা এলাকায় অনেক বাঙালি থাকত। ৩০/৩৫ জন বাঙালি মিলে সেখানে তাদের মাটি দিলাম। সেখানকার বাঙালিদের বলে আসলাম, আমাদের বাঙালি যুদ্ধ করতে গিয়ে মারা গেছে। আপনারা জিয়ারত কইরেন।

১৯৮৩ সালের দিকে পিএলও দুই ভাগ হয়ে গেল। আবু মুসা গ্রুপ নামে একটি দল হলো। তাদের সঙ্গেও আমাদের যুদ্ধ করতে হয়েছে। লেবাননে জাতিসংঘের বাহিনী মোতায়েনের পর ইসরায়েল লেবানন ছাড়তে শুরু করে। বাংলাদেশি যোদ্ধাদের অনেকেই শহীদ হন যুদ্ধে, অনেকেই ইসরায়েলের হাতে আটক হয়ে দীর্ঘদিন পর ছাড়া পান। তাদের মধ্যে হাতেগোনা কয়েকজন লেবাননেই বাকি জীবনটা কাটিয়ে দিচ্ছেন। এখনো খুঁজলে বৈরুতের কোনো গলিতে যুদ্ধের স্মৃতি ধারণ করা কোনো বাংলাদেশি বৃদ্ধকে পাওয়া যেতে পারে।

সহযোগিতায় : বাবু সাহা, লেবানন।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow