Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ৮ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৭ জুন, ২০১৬ ২৩:৩০
অলিম্পিকে আলীকে মিস করব
মোহাম্মদ আলীকে নিয়ে পেলের স্মৃতিচারণ
ক্রীড়া ডেস্ক
অলিম্পিকে আলীকে মিস করব

সামনাসামনি দেখা হয়েছে কম। তবে সুস্থ থাকা অবস্থায় মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে আমার প্রায়ই ফোনে কথা হতো।

সত্যি বলতে কি অধিকাংশ সময় তিনিই ফোন করে খোঁজখবর নিতেন। কিংবদন্তি বক্সারের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এ কথাই বললেন ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তি পেলে।   পেলে বলেন, আলীকে আমি গ্রেট বলে ডাকতাম। উনিই আমাকে গ্রেট বলতেন। সত্তর দশকের মাঝামাঝি সময়ে কসমস দলের এক অনুষ্ঠান ছিল নিউইয়র্ক সিটিতে। সেদিন ছিল প্রচণ্ড ঠাণ্ডা। পৃথিবীর সব বিখ্যাত ব্যক্তিকে ওই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। আলীও ছিলেন। সবাই স্যুট-টাই পরে এসেছেন। শুধুমাত্র আলীকে দেখলাম টি-শার্ট পরা। আমি আর বেকেন বাওয়ার একই সঙ্গে বসেছিলাম। কারও সঙ্গে কথা না বলে আলী আমার সামনে হাজির হলেন। হাসতে হাসতে বললেন, ফুটবলের অনুষ্ঠানে আমি বড্ড বেমানান। কথাটি শুনে বেকেন বাওয়ার আর ঠিক থাকতে পারলেন না। বলে উঠলেন, আপনি একজন গ্রেট। আপনাকে কাছে পেয়ে আমি ধন্য। সঙ্গে সঙ্গে আলী বলে উঠলেন— না না, গ্রেট তো পেলে। উনার মতো বড় মাপের ফুটবলার পৃথিবীতে আছে কি? আলীর সঙ্গে সামনাসামনি দেখা হয়েছে কমই। কিন্তু যতবার দেখা হয়েছে তার আন্তরিকতা দেখে মুগ্ধ হয়ে যেতাম। সবার সঙ্গে এত সহজভাবে মিশে যেতে পারতেন যে, দেখে মনেই হতো না একজন গ্রেটম্যানের সঙ্গে কথা বলছি। প্রায় আমাকে বলতেন, আপনি সত্যিই ভাগ্যবান। পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলার সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলোয়াড় আপনি। তার কথা শুনে হাসতাম, বললাম কোথায় আপনি, আর কোথায় আমি। সত্যি বলতে কি, বক্সিং খেলাকে শিল্পে পরিণত করেছেন আলীই। ফুটবলে সর্বকালের সর্বসেরা কে এ নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে। কিন্তু এটা কেউ অস্বীকার করতে পারবেন না আলীই সর্বকালের সর্বসেরা ক্রীড়াবিদ। ব্রাজিলে প্রথমবারের মতো অলিম্পিক গেমস অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বড় আশা ছিল আলীকে কাছে পাব। তিনি উপস্থিত থাকলে গেমসের আকর্ষণ আরও বেড়ে যেত। দুর্ভাগ্য আমার, দুর্ভাগ্য ব্রাজিলবাসীর। আলীকে পাচ্ছি না। তিনি সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেছেন। কখনো আর দেখা হবে না। তাতে কি, আলী চিরদিন বেঁচে থাকবেন তার ভক্তদের মাঝে। বিদেশি পত্রিকা থেকে নেওয়া

এই পাতার আরো খবর
up-arrow