Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ জুলাই, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ জুলাই, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ২৫ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ জুন, ২০১৬ ০০:১০
মেসিকে রুখবে কে?
রাশেদুর রহমান
মেসিকে রুখবে কে?

মেসির পদ যুগল চুম্বন করার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে নাছোড়বান্দা এক ভক্ত নিরাপত্তা বলয়ের সব বাধা টপকে ছুটে এলেন হাসটনের সবুজ চত্বরে। আর্জেন্টাইন জাদুকর পদ যুগলে লুটিয়ে পড়া ভক্তকে তুলে নিলেন আপন বুকে। ভক্তের বুকে এঁকে দিলেন ‘অটোগ্রাফ’। সেই অজানা ভক্ত দুই হাতজোড় করে লিওনেল মেসির কাছে হয়তো কোপা আমেরিকার ট্রফিটাই চাইছিলেন! আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনাও লিওনেল মেসিদের কাছে একই আবদার করলেন একটু জোর গলায়। বললেন, কোপা আমেরিকা না জিতে এবার আর দেশে এসো না তোমরা। ২৩ বছরের আক্ষেপ ঘুচানোর উপযুক্ত সময়ই বটে আলবেসিলেস্তদের সামনে।

আর্জেন্টিনা দলে বছরের ব্যবধানে নতুন মুখের আনাগোনা নেই। চিলিরও প্রায় একই অবস্থা। দুই কোপা আমেরিকার মাঝে ব্যবধানও তো এক বছরের বেশি নয়! দলের মুখগুলো এক হলেও এবারের আবহটাই যেন পুরোপুরি ভিন্ন। সবকিছুই কেমন যেন বদলে দিয়েছেন লিওনেল মেসি। অথচ কোপা আমেরিকা শুরুর আগে ইনজুরি আক্রান্ত মেসিকে নিয়ে কোচ জেরার্ডো মার্টিনোরই সংশয় ছিল। সেই মেসি দলে ফিরলেন। চার গোল নিজে করেছেন। আরও চারটা গোল করিয়েছেন সতীর্থদের দিয়ে। এই পরিসংখ্যান অবশ্য মেসির সত্যিকারের রূপ প্রকাশ করে না। ফুটবলের ব্যাকরণে যে নতুন নতুন অধ্যায় রচনা করে চলেছেন মেসি, তার ব্যাখ্যা ছাড়া এবারের কোপা আমেরিকায় তার পারফরম্যান্সের মূল্যায়ন অসম্ভব। সেমিফাইনালেই তো মেসি এমন কিছু কাজ করলেন যা ব্যাখ্যার অতীত। ফ্রি কিক থেকে ম্যাচের ৩২ মিনিটে যে গোলটা করলেন তা এতদিনকার ফুটবল ব্যাকরণে অসম্ভবই ছিল। তা ছাড়া হিগুয়েন আর লেভেজ্জিকে দিয়ে দুটি গোল করানোর দৃশ্যও ছিল অভূতপূর্ব। একটাতে হিগুয়েন কেবল পা ছোঁয়ানোর কাজটুকু করেছেন। অন্যটাতে লেভেজ্জি কেবল একটুখানি মাথা ঝাঁকিয়েছেন। এতেই গোল! এমন ‘পারফেক্ট’ পাস কার দ্বারা সম্ভব! এতদিনকার মেসি যেন বদলে গেছেন অনেকটা। ড্রিবলিং আর কারুকার্যময় ফুটবলের সঙ্গে এবার যোগ হলো ভিন্ন মাত্রা। এই মেসিকে রুখবে কে!

ম্যারাডোনা বলেছেন, মেসির নাকি নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতাই নেই। অথচ এই খুদে জাদুকরই বদলে দিচ্ছেন ম্যাচের প্রতিটা মুহূর্ত। তার পদস্পর্শে সোনা ফলছে প্রতিটা ম্যাচেই। ‘মেসি-টাচ’ ছাড়া এবারের কোপায় কয়টা গোল হয়েছে! কোচ জেরার্ডো মার্টিনোও দারুণ কৌশল এঁটেছেন। ‘ফলস নম্বর নাইন’ বলতে ঠিক যা বোঝায় মেসি এখন তাই। উইংয়ে খেললেও তিনি নেমে যাচ্ছেন স্ট্রাইকারের নিচের দিকে। হিগুয়েন আর লেভেজ্জিরা মেসির জন্য ফাঁকা স্থান তৈরি করছেন প্রতিপক্ষের মার্কারদের নিজেদের দিকে টেনে নিয়ে। আর মেসি মোক্ষম সুযোগ তৈরি করছেন হিগুয়েনদের জন্য। এবারের লিওনেল মেসি বুঝি আর্জেন্টাইনদের ২৩ বছরের আক্ষেপ ঘুচাতেই কোপা আমেরিকা খেলতে গেছেন। আর এবারেও আর্জেন্টিনা ব্যর্থ হলে সম্ভবত আরও একবার কোপা আমেরিকায় সেরা ফুটবলারের পুরস্কার অদেয় থাকবে!

up-arrow