Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৯ জুন, ২০১৬ ২৩:৩০
ক্লাবের বকেয়া মেটাল বিসিবি
ক্রীড়া প্রতিবেদক
ক্লাবের বকেয়া মেটাল বিসিবি

চুক্তির প্রথম কিস্তির ৩০ শতাংশ অর্থ ক্রিকেটাররা পেয়ে যান প্রিমিয়ার ক্রিকেট মাঠে গড়ানোর আগেই। কিন্তু সময় পার হলেও দ্বিতীয় কিস্তির ৩০ শতাংশ পাওনা অর্থ পাননি। কিস্তির টাকা না পেয়ে সোহরাওয়ার্দী শুভসহ ভিক্টোরিয়া ক্লাবের ক্রিকেটাররা দাবি জানিয়েছিলেন বাকি অর্থ পরিশোধের। ক্রিকেটারদের এমন আচরণ মেনে নিতে পারেননি ভিক্টোরিয়ার কর্মকর্তারা। ক্ষুব্ধ কর্মকর্তারা উল্টো ক্রিকেটারদের বিপক্ষে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ আনেন। ক্লাবের এমন অভিযোগে বিস্মিত ক্রিকেটারসহ ক্রিকেটপ্রেমীরা। প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ শেষ হয়েছে ২২ জুন। চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আবাহনী। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী ভিক্টোরিয়াই শুধু অর্থ পরিশোধে গড়িমসি করেনি, ক্রিকেট কোচিং স্কুল (সিসিএস) ও কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমি, ব্রাদার্স ইউনিয়ন, মোহামেডানও ক্রিকেটারদের দ্বিতীয় কিস্তির টাকা পরিশোধ করেনি। শুধু দ্বিতীয় কিস্তি নয়, প্রথম কিস্তির মাত্র ৮ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করেছিল সিসিএস। এমন নাজুক পরিস্থিতির সামাল দিতে এগিয়ে আসে বিসিবি এবং ক্লাব দুটির ক্রিকেটারদের দ্বিতীয় ও প্রথম কিস্তির পাওনা অর্থ পরিশোধের চেক দিয়েছে গতকাল। সিসিএসের ক্রিকেটারদের ৫২ শতাংশ ও কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির ৩০ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করেছেন বিসিবি।

ক্রিকেটারদের অর্থ পরিশোধে যাতে কোনো সমস্যা না হয়, সেজন্য ক্লাবগুলোর সুবিধা বিবেচনা করে তিন কিস্তিতে অর্থ পরিশোধের নিয়ম বেঁধে দেয় বিসিবি। লিগ শুরুর আগে ৩০ শতাংশ, লিগের প্রথম পর্ব শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ৩০ শতাংশ এবং বাকি ৪০ শতাংশ লিগ শেষের ৬ সপ্তাহের মধ্যে পরিশোধ করার কথা। চুক্তির শর্ত মেনে এর মধ্যেই ৬০ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করেছে আবাহনী, প্রাইম দোলেশ্বর, প্রাইম ব্যাংক, লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ, গাজী ক্রিকেটার্স, কলাবাগান ক্রীড়া চক্র, শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। বাকি ৪০ শতাংশ অর্থ আগামী ৫ সপ্তাহের মধ্যে পরিশোধের পরিকল্পনাও নিয়েছে দলগুলো। অবশ্য দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ পরিশোধ না করার অভিযোগ রয়েছে মোহামেডান এবং ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষেও। রেলিগেটেড হয়েছে সিসিএস। চুক্তি অনুযায়ী দলটি লিগ শুরুর আগে মাত্র ৮ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করেছিল ক্রিকেটারদের। গতকাল ৫২ শতাংশ অর্থ সমপরিমাণ চেক দিয়েছে বিসিবি। দলটির অধিনায়ক রাজিন সালেহ চেক পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন, ‘আমরা এখন অনেক নির্ভার। বিসিবি আজ (গতকাল) সিসিএসের ক্রিকেটারদের ৫২ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করেছে। সব মিলিয়ে আমরা এখন ৬০ শতাংশ অর্থ পেয়েছি। আমরা সিসিএসের কর্মকর্তাদের বলেছি আর ১০ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করলে আমরা সব দাবি ছেড়ে দিব। ’ অর্থ পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির অধিনায়ক মাহমুদুল হাসান লিমনও।

১৯ জুন ক্লাবগুলোকে পাওনা অর্থ পরিশোধের জন্য ৭২ ঘণ্টা আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। কিন্তু ক্লাবগুলো তোয়াক্কা করেনি বিসিবি সভাপতির অল্টিমেটামকে। ফলে বাধ্য হয়েই বিসিবি সিসিএস ও কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির ক্রিকেটারদের প্রথম ও দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ পরিশোধ করেছে। এখন দেখা যাক ভিক্টোরিয়া, ব্রাদার্স কিংবা মোহামেডানসহ অপরাপর ক্লাবগুলো কয় দিনের মধ্যে ক্রিকেটারদের অর্থ পরিশোধ করে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow