Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৫ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৫ জুলাই, ২০১৬ ০০:৩৪
ফাইনাল খেলবে কারা?
রাশেদুর রহমান
ফাইনাল খেলবে কারা?

শেষ হয়ে গেছে উয়েফা ইউরো কাপের কোয়ার্টার ফাইনাল পর্ব। এবার সেমিফাইনাল।

এরপরই ফাইনাল। বুধবার লিঁওয়ের অলিম্পিক পার্কে প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে পর্তুগাল-ওয়েলস। শেষ আটে ওয়েলস হারিয়েছে বেলজিয়ামকে আর পর্তুগিজরা হারিয়েছে পোল্যান্ডকে। মার্সেইয়ের ভেলোড্রোম স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে স্বাগতিক ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি। কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানি হারিয়েছে ইতালিকে আর ফরাসিরা হারিয়েছে আইসল্যান্ডকে।

কে খেলবে ফাইনাল! কারা জিতবে এবারের উয়েফা ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ! পরিসংখ্যান বলছে, ফ্রান্স-জার্মানি মুখোমুখিতে এগিয়ে আছে ফরাসিরাই। ২৭ বারের সাক্ষাতে ফ্রান্স জিতেছে ১২ বার। ১০ বার জিতেছে জার্মানি। বাকি পাঁচবার ড্রতেই শেষ হয়েছে।

তবে জার্মানির যেমন বড় টুর্নামেন্টে ইতালি ভীতি আছে ঠিক তেমনি ফ্রান্সেরও বড় টুর্নামেন্টে রয়েছে জার্মানি ভীতি। ১৯৫৮ সালে সর্বশেষ ফরাসিরা জার্মানিকে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে হারিয়েছিল। সেবার ফ্রান্স জিতেছিল ৬-৩ গোলের বিশাল ব্যবধানে। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে জাস্ট ফন্টেইন একাই সেদিন করেছিলেন ৪ গোল! এরপর বিশ্বকাপে আর কখনোই জার্মানিকে হারাতে পারেনি ফ্রান্স। ১৯৮২ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ৩-৩ ড্রয়ের পর ফ্রান্স টাইব্রেকারে ৫-৪ ব্যবধানে হেরেছিল জার্মানির কাছে। ১৯৮৬ বিশ্বকাপের সেমিতেও দেখা হয় দুই দলের। এবার জার্মানি জিতে ২-০ গোলে। গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালেও দেখা হয় দুই দলের। ব্রাজিল বিশ্বকাপে ১-০ গোলে জিতে জার্মানি। এই পরিসংখ্যান ফ্রান্সের জন্য ভয়ের হলেও স্বাগতিকরা নতুন স্বপ্ন দেখছে। অতীতে যা হয়নি তা যে হওয়া সম্ভব এটা প্রমাণ করেছে জার্মানরা ইতালিকে কোয়ার্টার ফাইনালে হারিয়ে। ফ্রান্সও তো এটা প্রমাণ করতে পারে জার্মানিরই বিপক্ষে! আর রবিবারের লড়াইয়ের মাধ্যমে ফরাসিরা জার্মানিকে একটা সতর্কবার্তা দিয়েই রেখেছে। তবে দুই দলেই রয়েছে দারুণসব তারকা। জার্মানির যেমন গোলরক্ষক নিউয়ার ছাড়াও আছেন মেসুট অজিল, মুলার, গোমেজ, শোয়েনস্টাইগার আর হুমেলসরা ঠিক তেমনি ফ্রান্সেরও রয়েছেন পল পগবা, অ্যান্টোনিও গ্রিজম্যান, অলিভিয়ের গিরদ আর তরুণ তারকা দিমিত্রি পায়েত। মেসুট অজিল বর্তমান ইউরো ফুটবলের অন্যতম তারকা। একের পর এক ম্যাচ খেলে তিনি সেটা প্রমাণও করে চলেছেন। অন্যদিকে অলিভিয়ের গিরদ দুর্দান্ত হয়ে উঠছেন দিনে দিনেই। আর অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ তারকা অ্যান্টোনিও গ্রিজম্যানও অসাধারণ ফুটবল খেলছেন। সবমিলিয়ে এবার সেমিফাইনালেই দারুণ এক ম্যাচ দেখার সুযোগ পাচ্ছেন ভক্তরা। তবে জার্মানির অনেকেই ইনজুরিতে আক্রান্ত। মারিও গোমেজ খেলতে পারবেন না সেমিফাইনাল। আরও বেশ কয়েকজন আছেন ছোটখাটো ইনজুরিতে। তবে জার্মান কোচ জোয়াকিম লো দারুণ আশাবাদী। ইনজুরি আক্রান্ত দল নিয়েই তিনি আরও একবার ইউরো শিরোপা উপহার দিতে চান ভক্তদের। যদি তাই হয়, জার্মানি আবারও ইউরোর একক সেরা দল হতে যাচ্ছে। বর্তমানে তিনবার করে শিরোপা জিতে সমান্তরালে রয়েছে জার্মানি ও স্পেন।

অন্য সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে পর্তুগাল-ওয়েলস। দুই দল এর আগে তিনবার মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যে দুবার জিতেছে পর্তুগিজরা। একবার জিতেছে ওয়েলস। তবে অতীত পরিসংখ্যান ছাড়াও বড় বিষয় হয়ে উঠছে রোনালদো-বেলে লড়াই। রিয়াল মাদ্রিদে এ দুই তারকা দারুণ খেলছেন। একে-অপরের পরম বন্ধু ওরা সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। কিন্তু বুধবার দুজন খেলতে নামবেন পরস্পরের চরম শত্রু হিসেবে। ওয়েলস প্রথমবারের মতো ইউরো কাপ খেলতে এসেই আলো ছড়িয়ে দিয়েছে। একে একে সব বাধাই তারা পেরিয়ে এসেছে দাপটের সঙ্গে। অন্যদিকে পর্তুগিজরা চলেছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। গ্রুপ পর্বে কোনো ম্যাচই জিততে পারেনি। তিনটাতেই ড্র। এমনকি নকআউট পর্বেও নির্ধারিত সময়ে জিততে পারেনি কোনো ম্যাচ। কোয়ার্টার ফাইনাল জিতেছে টাইব্রেকারে। শেষ ষোলতেও জিতেছে অতিরিক্ত ৩০ মিনিট খেলে। পর্তুগালের চেয়ে এবার ওয়েলসকেই ফেবারিট মনে হয়। তবে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো আর গেরেথ বেলের লড়াইয়ে যে জিতবে দলও জিতবে তারই।

ফাইনালে দেখা হবে কার! জার্মানি আর ফ্রান্স ইউরো কাপের সাবেক চ্যাম্পিয়ন। জার্মানি জিতেছে তিন বার। ফ্রান্স জিতেছে দুবার। এ দুই দলের মধ্যে কারা ফাইনাল খেলবে বলা মুশকিল। দুই দলই দারুণ ফেবারিট। অন্যদিকে পর্তুগাল আর ওয়েলসের মধ্যে পর্তুগালকেই এগিয়ে রাখা যায়। তারা ২০০৪ সালেও ফাইনাল খেলেছে ইউরো কাপে। তাছাড়া গৌরবজনক এক অতীত রয়েছে তাদের। সেক্ষেত্রে ফাইনালে পর্তুগালই মুখোমুখি হতে পারে ফ্রান্স কিংবা জার্মানির। সেক্ষেত্রে এবারে ইউরো ভক্তরা এক নতুন চ্যাম্পিয়ন দেখার আশা করতেই পারেন। ফাইনালে পর্তুগাল কিংবা ওয়েলস যে দলই খেলুক এ আশা বেঁচে থাকবে। তবে জার্মানি আর ফ্রান্সের মতো দুরন্ত প্রতিপক্ষদের বিরুদ্ধে জেতা কী আর সহজ কথা! ঘুরে ফিরে সেই পুরনো চ্যাম্পিয়নেরই দেখা পেতে পারেন ভক্তরা।

up-arrow