Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২২ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : রবিবার, ১০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ জুলাই, ২০১৬ ০০:১০
এমিলি মামুনুলের বাজি ফ্রান্স
‘রোনালদোর ক্যারিশমায় চ্যাম্পিয়ন হতে পারে পর্তুগাল’
ক্রীড়া প্রতিবেদক
এমিলি মামুনুলের বাজি ফ্রান্স

জাহিদ হাসান এমিলি ও মামুনুল ইসলাম এই মুহূর্তে বাংলাদেশ ফুটবলের অন্যতম সেরা দুই তারকা। এমিলি স্ট্রাইকার এবং মামুনুল মিডফিল্ডার। আধুনিক ফুটবল সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা রাখেন দুজনে। রমজানের মধ্যেও দুজনে দেখেছেন কোপা আমেরিকা কাপের খেলাগুলো। তবে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের প্রতিটি ম্যাচই দেখেছেন দুজনে। আক্রমণাত্মক, গতিশীল ও পাসিং ফুটবল দেখে মুগ্ধ দুজনেই। ওয়েলস, আইসল্যান্ড প্রথমবার খেলতে আসলেও দুজনের মন কেড়েছে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে। এখন দুজনে অধীর অপেক্ষায় ফাইনাল দেখার। আজ মধ্যরাতে (রাত ১টা) ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিততে মুখোমুখি হবে স্বাগতিক ফ্রান্স ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। আজকের ফাইনালে এমিলি ও মামুনুলের সমর্থন নেই কোনো দলের প্রতি। সমর্থন না থাকলেও এমিলির বাজি ফ্রান্স এবং মামুনুলের বাজি রোনালদো। অবশ্য মামুনুল জানিয়েছেন, রোনালদোর ক্যারিশমাই পারবে পর্তুগালকে চ্যাম্পিয়ন করতে।

এমিলি শিরোপাজয়ী হিসেবে দেখতে চাচ্ছেন ফ্রান্সকে। ম্যাচের আগে সম্ভাব্য রেজাল্টই বলেছেন, ‘ফাইনাল সব সময়ই শক্ত নার্ভের খেলা। আমি মনে করি ফাইনালের লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি। ফ্রান্স জিতবে ২-১ গোলে। ’ মামুনুল কোনো দলের নাম বলেননি। শুধু জানিয়েছেন ব্যবধান হবে ন্যূনতম, ‘দুই দলই চাপে থেকে খেলবে। আমার মনে হয় ফাইনালের ফল হবে ১-০। টাইব্রেকারও হতে পারে। ’ ম্যাচের আগাম ফল দেওয়া এমিলি ফ্রান্সকে এগিয়ে রাখার পক্ষে ব্যাখ্যা দেন, ‘আসরের শুরু থেকে দারুণ খেলছে ফ্রান্স। দুর্দান্ত খেলেই ফাইনালে এসেছে। দলটির ম্যাচ উইনার বেশি। আমি মনে করি, পুরো টুর্নামেন্টে যে রকম ফুটবল খেলেছে দলটি, সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখলে পর্তুগালের পক্ষে ফ্রান্সকে আটকানো সম্ভব নয়। অবশ্য পর্তুগালকে দুর্বল দল বলব না। দলটি দারুণ ফুটবল খেলেই ফাইনালে এসেছে। তারপরও দলটি পুরোপুরি রোনালদো নির্ভর। ’ এমিলির ব্যাখ্যায় যেমন শতভাগ ফেবারিট ফ্রান্স, বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক মামুনুলও এগিয়ে রেখেছেন ফ্রান্সকে। কিন্তু দেশসেরা মিডফিল্ডারের মতে ম্যাচের ব্যবধান গড়ে দিতে পারেন রোনালদো, ‘ফ্রান্স ব্যালান্সড দল। টিমওয়ার্ক অসাধারণ। দলটির রক্ষণভাগ যেমন শক্তিশালী তেমনি শক্তিশালী আক্রমণভাগ। গ্রিজম্যান দারুণ ছন্দে। সে যদি কোনো কারণে ব্যর্থ হন, তাহলে পায়েত, জিরোওদ রয়েছেন। বিপরীতে পর্তুগাল পুরোপুরি রোনালদো নির্ভর। অবশ্য সানচেজ ও নানি ভালো খেলছেন। তারপরও দলটি রোনালদো নির্ভর এবং আমি মনে করি রোনালদো একাই পারেন ম্যাচের ব্যবধান গড়ে দিতে। পর্তুগালকে চ্যাম্পিয়ন হতে হলে রোনালদোর ক্যারিশমার অপেক্ষায় থাকতে হবে। ’

পর্তুগাল সর্বশেষ ২০০৪ সালে ফাইনাল খেলেছিল। ঘরের মাঠের ওই আসরে ছিলেন রোনালদোও। ফেবারিট হয়েও ফাইনালে গ্রিসের কাছে হেরে গিয়েছিল ১-০ গোলে। দুই বারের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স সর্বশেষ ফাইনাল খেলেছিল ২০০০ সালে। সেবার ফাইনালে ইতালিকে হারিয়েছিল ২-১ গোলে। ফ্রান্স আজ মাঠে নামছে তৃতীয় শিরোপার সন্ধানে। পর্তুগালের টার্গেট প্রথম শিরোপা। দুই দলের দুই টার্গেট। তারপরও এমিলি ও মামুনুলের মতো গোটা বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীরা অধীর অপেক্ষায় বসে থাকবেন টিভি সেটের সামনে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের দুর্দান্ত এক ফাইনাল দেখতে।

up-arrow