Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই, ২০১৭

প্রকাশ : সোমবার, ১৮ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৭ জুলাই, ২০১৬ ২৩:০৯
শিরোপাতেই চোখ শেখ রাসেলের
পেশাদার লিগের প্রস্তুতি
ক্রীড়া প্রতিবেদক
শিরোপাতেই চোখ শেখ রাসেলের
চার অধিনায়ক বাঁ থেকে সোহেল রানা, আরিফুল ইসলাম, শওকত রাসেল ও আতিকুর রহমান মিশু —বাংলাদেশ প্রতিদিন

শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের লক্ষ্য ছিল চলতি মৌসুমে সবকটি ট্রফি জেতা। দেশের তারকা ফুটবলারদের নিয়ে দল গড়েও প্রথম দুই ট্রফিই হাতছাড়া হয়ে গেছে। স্বাধীনতা কাপে সেমিফাইনাল আর ফেডারেশন কাপ থেকেও শেষ চারে বিদায় নেয় দেশের আলোচিত দল শেখ রাসেল। ২৪ জুলাই পর্দা উঠছে পেশাদার লিগের। দুই ট্রফিতে অংশ নিয়ে দলগুলো বুঝে নিয়েছে কার কোথায় ত্রুটি। সব কিছু ঠিক করে লিগে মাঠে নামার অপেক্ষায় রয়েছে ক্লাবগুলো।

পেশাদার লিগে অংশ নিচ্ছে ১২টি দল। দলগুলোর প্রস্তুতি কেমন হলো কোচ ও অধিনায়করা তা তুলে ধরছেন সাংবাদিকের সামনে। গতকাল চার ক্লাবের কর্মকর্তারা মুখোমুখি হয় মিডিয়ার সামনে। শেখ রাসেলের কোচ মারুফুল হক বলেন, অঙ্গীকার করব না আমাদের লক্ষ্য ছিল সবকটি টুর্নামেন্টে শিরোপা। কিন্তু আমরা সমর্থকদের ট্রফি উপহার দিতে পারিনি। এখন আমাদের মূল লক্ষ্য পেশাদার লিগের শিরোপা। ছেলেরা কঠোর পরিশ্রম করছে। আশা করি লিগ চ্যাম্পিয়ন হতে পারব। কোনো দলকে ছোট করে দেখছি না। তারপরও ঢাকা আবাহনী, চট্টগ্রাম আবাহনী ও শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব যথেষ্ট শক্তিশালী। শেখ রাসেল যে ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে তাতে লিগ জেতা অসম্ভবের কিছু হবে না।

দুই টুর্নামেন্টে সেন্ট্রাল ডিফেন্সে প্রতিষ্ঠিত কেউ ছিল না। মারুফ বলেন, বেশ কজন ইনজুরিতে ছিলেন। এখন তারা রিকোভার করেছে। আশা করি লিগে তারা জ্বলে উঠবে। দুই টুর্নামেন্টে বিদেশিদের মধ্যে তেমন সমন্বয় ছিল না। লিগে তা কেটে যাবে। ফিকরু স্বাধীনতা কাপে ব্যথা পায়। প্রোপার রিকোভারির আগে ফেডারেশন কাপে তাকে খেলাতে হয়েছে। তাই সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেনি। এখন সুস্থ, লিগে অবশ্যই ভালো খেলবে। এমিলিকে শুরু থেকে না পেলেও রনিকে পাওয়া যাবে বলে মারুফ আশা করেন।

শেখ রাসেলের অধিনায়ক আতিকুর রহমান মিশু বলেন, দুর্ভাগ্যক্রমে আমরা দুই ট্রফি জিততে পারেনি। যা গেছে তা অতীত, এখন আমাদের ভাবনায় শুধুই লিগ। লক্ষ্য একটাই শিরোপা, এর জন্য মনোযোগ সহকারে খেলতে হবে। কোনো অবস্থায় এবার লিগ হাত ছাড়া করা যাবে না। ঢাকার বাইরে খেলতে যাওয়াটা আমাদের জন্য একটা রোমাঞ্চকর ব্যাপার। ঢাকার বাইরে বিভিন্ন ভেন্যুতে খেলাটাকে আমি ইতিবাচক সিদ্ধান্ত মনে করি।   পেশাদার লিগে সর্বোচ্চ চারবার শিরোপা জিতেছে ঢাকা আবাহনী। এবারও লক্ষ্য ট্রফি। কোচ জর্জ কোটান বলেন, আবাহনী ব্যালেন্সড দল। দুই ট্রফিতে ফাইনাল খেলেছে। একটা চ্যাম্পিয়ন আরেকটা রানার্সআপ হয়েছে। ছেলেরা গোছানো ফুটবল খেলতে পারলে লিগ জেতা সম্ভব। তবে লিগের আগে ২/১টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারলে ভুলত্রুটিটা ভালোভাবে শোধরানো যেত। রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডসের কোচ কামাল বাবু বলেন, তার দলের প্রস্তুতি ভালো। কেউ কাউকে ছেড়ে কথা বলবে না। রেফারি হতে হবে নিরপেক্ষ। উত্তর বারিধারার কোচ রাসেল আহমেদ পাপ্পু বলেন, টার্গেট আমাদের লিগে ৬ বা ৭ নম্বরে থাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow