Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ জুলাই, ২০১৬ ০০:০৫
শেখ রাসেলের অভিযোগ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) জমকালো উদ্বোধন হয়েছে চট্টগ্রাম এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে। আতশবাজির রোশনাই ছড়িয়ে ফুটবলপ্রেমীদের উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছে মাঠমুখী হতে।

আগামীকাল মাঠে গড়াচ্ছে ১২ দলের বিপিএল। দলগুলো এখন চট্টগ্রামে। উদ্বোধনী দিনে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের মুখোমুখি হবে আরামবাগ ক্রীড়া চক্র। সন্ধ্যায় নামবে শিরোপাপ্রত্যাশী শেখ রাসেল। দলটির প্রতিপক্ষ উত্তরা বারিধারা। এসব ঠিক আছে। এখন শুধু মাঠে গড়ানোর প্রস্তুতি। মাঠে গড়ানোর আগে চাঁদের গায়ে কলঙ্ক থাকার মতো বিপিএলের গায়েও ‘কলঙ্কের দাগ’ লাগার অপেক্ষা। শেখ জামালের দুই ফুটবলার মো. লিঙ্কন ও মো. দিদারের বিরুদ্ধে টাকা পরিশোধ না করার অভিযোগ এনেছেন শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের ডিরেক্টর অব স্পোর্টস সালেহ জামান সেলিম। সেলিমের অভিযোগ, গতকাল বিকাল ৪টার মধ্যে লিঙ্কনের ১৯ লাখ ও দিদারের ৮ লাখ টাকা পরিশোধ করার কথা ছিল শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের। সময় পার হলেও অর্থ পরিশোধ করেনি। এ প্রসঙ্গে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ জানিয়েছেন, লিগ শুরু হতে আরও দুই দিন বাকি, তাই এক দিন যেন সময় দেওয়া হয়।

চলতি মৌসুমে শেখ রাসেলে খেলার জন্য লিঙ্কন ও দিদার অগ্রিম টাকা নিয়েছিলেন। নিয়ম অনুযায়ী বাফুফে প্রদত্ত ফর্মে ফুটবলার যে দলের পক্ষে সিগনেচার করবেন, সে দলের পক্ষেই তিনি খেলবেন। লিঙ্কন ও দিদার দুজন শেখ রাসেলের কাছ থেকে অর্থ নিলেও ফর্মে শেখ জামালের পক্ষে সিগনেচার করেন। শেখ জমালের পক্ষে সিগনেচার করার পর শেখ রাসেল লিখিতভাবে অভিযোগ করে বাফুফের কাছে। অভিযোগ প্রসঙ্গে শেখ রাসেলের ডিরেক্টর অব স্পোর্টস সেলিম বলেন, ‘আমাদের কাছ থেকে লিঙ্কন ও দিদার দুজনই অগ্রিম অর্থ নেন। কিন্তু সিগনেচার করেন শেখ জামালের পক্ষে। আমরা আগাম অর্থ নেওয়ার প্রমাণসহ বাফুফের কাছে জমা দিই। বাফুফে তা পাঠিয়ে দেয় স্ট্যাটাস কমিটিতে। তারা মিটিং করে শেখ জামালকে অর্থ পরিশোধ করার কথা জানিয়ে দেয়। আজ (গতকাল) বিকাল ৪টায় অর্থ পরিশোধ করার শেষ সময় ছিল। কিন্তু সময় পার হলেও অর্থ পরিশোধ করেনি। এখন যদি শেখ জামালের পক্ষে দুই ফুটবলার খেলতে নামেন, তাহলে এটা হবে অনৈতিক। ’

শেখ রাসেলের অভিযোগ বাফুফে পাঠিয়ে দেয় তিন সদস্যের স্ট্যাটাস কমিটিতে। কমিটির চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন। বাকি দুই সদস্য আবদুর রহিম ও কর্নেল ওবায়েদ (অব.)। কমিটি দুবার মিটিং করে লিগ শুরুর আগে অর্থ পরিশোধের কথা বলে। শেখ জামালও দুই ফুটবলারের অর্থ পরিশোধের চেক দেয়। কিন্তু শেখ রাসেলের ডিরেক্টর অব স্পোর্টস জানিয়েছেন, চেক দুই বাউন্স করে। এরপর তিনি লিখিত অভিযোগ করেন বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী ও সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগের কাছে। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে একটি লিখিত চিঠি দেন শেখ জামালকে। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, যদি ২২ জুলাইর মধ্যে ফুটবলার দুজন অর্থ পরিশোধ না করেন, তাহলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ প্রসঙ্গে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘অর্থ পরিশোধের জন্য আমরা কোনো টাইম টেবিল দিইনি। শুধু বলেছি মাঠে খেলা শুরুর আগে যেন অর্থ পরিশোধ করা হয়। খেলা মাঠে গড়াতে এখনো সময় বাকি দুই দিন (এক দিন বাকি)। আমাদের একটি দিন সময় দিক। আশা করি সব ঠিক হয়ে যাবে। ’

up-arrow