Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : রবিবার, ২৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৩৩
কোহলি এক আগ্রাসী যোদ্ধা
মেজবাহ্-উল-হক
কোহলি এক আগ্রাসী যোদ্ধা

সব শেষ আইপিএল চলাকালীন একটা ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায় গোটা দুনিয়ায়। ভিডিওতে দেখা যায়, অস্ট্রেলিয়ার তারকা অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসন গান গাচ্ছেন, তালে তালে নাচছেন বিরাট কোহলি ও ক্রিস গেইল। অন্য সতীর্থ এবং রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যঙ্গালুরুর অন্য সদস্যরা দারুণ উপভোগ করছেন। তারা আনন্দে কখনো চিৎকার করছেন, আবার কখনো তুমুল হাততালি দিচ্ছেন।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্সে কোহলি-গেইল সতীর্থ। কিন্তু নাচের সময় দেখা গেল তারা যেন একের অপরের ঘোর শত্রু! যদিও দুজনের মুখেই ছিল হাসি। কিন্তু কেউ কারও কাছে পরাজিত হতে চাচ্ছেন না। দুই জনেই সমান তালে নৃত্য চালিয়ে যাচ্ছেন।

ক্যারিবীয়রা যে নৃত্যে দারুণ পারদর্শী তা ক্রিকেট মাঠে সব সময়ই দেখা যায়! উইকেট শিকারের পর বোলারদের নাচ দেখার মতো। তবে ২০১২ সালে শ্রীলঙ্কার টি-২০ বিশ্বকাপ জয়ের পর ক্যারিবীয়দের যুগল নৃত্য ছিল দেখার মতো। কখনো উইন্ডিজের বিখ্যাত ক্যালিপসো প্রদর্শন করছেন, আবার কখনো গ্যাংনাম স্টাইল! গত বিশ্বকাপেও এর ব্যতিক্রম ছিল না। মাঠের মতো নাচেও গেইল যে দারুণ পারদর্শী তা কারও অজানা নয়। তাই পার্টিতে গেইলের কাছে কোহলি হেরে যাবেন সেটাই স্বাভাবিক! কিন্তু না, কোহলি হারেননি। সবাইকে অবাক করে দিয়ে গেইলকে হারিয়ে তার পর নৃত্য থামান ভারতীয় অধিনায়ক। সত্যিই কোহলি এক অন্য ধাঁচের মানুষ। পরাজয়ের সঙ্গে যেন তার আজন্ম শত্রুতা। সফতার সঙ্গেই তার যত বন্ধুত্ব।

ক্রিকেটে কোহলি এক আগ্রাসী-যোদ্ধা! ব্যাট যেন তার তলোয়ার। যতই দিন যাচ্ছে, আরও শাণিত হচ্ছে কোহলির ব্যাট। বাঘা বাঘা বোলারদের নাস্তানাবুদ করে ছাড়তে এতটুকুও দ্বিধান্বিত হচ্ছেন না! কী টি-২০, কী ওয়ানডে, কী টেস্ট —সব ফরম্যাটেই কোহলি অনন্য। অ্যান্টিগুয়ায় যে ডাবল সেঞ্চুরিটি করেছেন তা তো রেকর্ডে ভরপুর। অবশ্য শুধু রেকর্ডের জন্য নয়, ক্যারিবীয় পেসারদের তাদের ঘরের মাঠে যেভাবে ভুগিয়েছেন তা মনে রাখার মতো।

কোহলির প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি এটি। টেস্ট ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস তো বটেই! ভারতীয় অধিনায়কদের মধ্যে তিনিই প্রথম বিদেশের মাটিতে ডাবল সেঞ্চুরি করলেন। এর আগে সর্বোচ্চ স্কোর ছিল মোহাম্মদ আজহার উদ্দীনের। ১৯৮৯-৯০ মৌসুমে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১৯২ রানের ইনিংস খেলেছিলেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক। অ্যান্টিগুয়ার নর্থ সাউন্ডের স্যার ভিভ রিচার্ডস স্টেডিয়ামে প্রথম কোনো ব্যাটসম্যানের ডাবল সেঞ্চুরি এটি।

বিরাট কোহলি যেমন আগ্রাসী, তেমনি ধীর স্থির। যখন যেভাবে ব্যাটিং করতে হয়, সেভাবেই করেন তিনি। কন্ডিশন ও দলের প্রয়োজন বুঝে কখনো মারকুটে ব্যাটিং করেন, আবার কখনো উইকেট কামড়ে পড়ে থাকেন। তবে অ্যান্ডিগুয়ায় কোহলি সত্যি অন্য ধাঁচে ব্যাটিং করেছেন। ২৮৩ বলে করেছেন কাঁটায় কাঁটায় ২০০। ২৬টি দৃষ্টিনন্দন বাউন্ডারি। কোহলির ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ হয়ে ভারতের সাবেক ক্রিকেটার অশোক মালহোত্রা তার কলামে লিখেছেন, ‘টানা দুই দিন ধরে বিরাট কোহলির অবিশ্বাস্য ব্যাটিং দেখার পর একটা কথা বলতে চাই। আমি সুনীল গাভাস্কারের ব্যাটিং দেখেছি। চিপকে চোখের সামনে ডাবল সেঞ্চুরি করতে দেখেছি। শচিন টেন্ডুলকারের অসাধারণ সব ইনিংস দেখেছি। কিন্তু কোহলির মতো ব্যাটিং জীবনে দেখিনি। ’ মালহোত্রা আরও বলেন, ‘আমাকে ভুল বোঝার অবকাশ নেই। শচিন, গাভাস্কার গ্রেট। ব্যাটসম্যান হিসেবে কোহলির সঙ্গে আমি তাদের তুলনা জ্ঞানত করতে চাইছি না। কিন্তু বিশ্বাস করুন, এই বিষয়টি আপনা আপনিই চলে আসে। কিভাবে ব্যাখ্যা করব ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই বিরাটের এ রকম ব্যাটিংকে? কী ব্যাখা করব, রানের এমন ক্ষুধাকে? বিরাটের ক্ষুধা যেন শেষই হয় না!’ সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি করার পর ব্যাটিং কিংবদন্তি শচিন টেন্ডুলকার এক প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, ‘সমসাময়িক ক্রিকেটারদের মধ্যে তার রেকর্ড ভাঙার ক্ষমতা কোহলির রয়েছে। ’ ভারতীয় ক্রিকেট ঈশ্বর তো আর এমনি এমনি বলেননি! অবশ্য প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট হিসেবে নিলে কোহলিও ‘সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি’ করার খুব কাছাকাছি চলে এসেছেন। প্রথম শ্রেণি ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মিলে এখন কোহলির সেঞ্চুরি সংখ্যা ৮৮টি। আর মাত্র ১২টি সেঞ্চুরি হলেই হয়ে যাবে ‘সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি’। বর্তমানে ওয়ানডে ও টেস্ট মিলে কোহলির সেঞ্চুরি ৩৭টি (২৫+১২)।

up-arrow