Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪৫
ঘরের মাঠেও সতর্ক
বাংলাদেশ-ভুটান মুখোমুখি
ক্রীড়া প্রতিবেদক
বাংলাদেশ-ভুটান মুখোমুখি
বাংলাদেশ অধিনায়ক আশরাফুল ইসলাম রানা ও কোচ সেইন্ট ফিট —বাংলাদেশ প্রতিদিন

১৯৮০ সালে ঢাকা প্রথম বিভাগ লিগে ভুটানের ফুটবলার খড়ঙ্গ বাসনাত মোহামেডানের পক্ষে খেলেন। সুপার লিগে আবাহনীর বিপক্ষে একটি ম্যাচেই অংশ নিয়েছিলেন। কিন্তু বাসনাতের ঢাকা লিগে খেলা নিয়ে হৈ-চৈ পড়ে যায়। ভুটানে থিম্পুর বিভিন্ন পত্রিকায় এই খবর গুরুত্ব সহকারে ছাপা হয়। শুধু তাই নয় দেশে ফেরার পর বাসনাতকে সংবর্ধনা জানান ভুটানের রাজা। কারণ তখনকার সময় ভুটানের কোনো ফুটবলার ঢাকা লিগে তাও আবার মোহামেডানের মতো বিখ্যাত দলে খেলবে ভাবাই যেত না। বাসনাত এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন তার ক্যারিয়ারে বড় প্রাপ্তি বাংলাদেশের লিগে খেলা।

৩৬ বছরে আগের ঘটনা ফুটবলে বাংলাদেশকে ভুটান কতটা গুরুত্বসহকারে দেখত। না দেখেও উপায় ছিল না ফুটবলে তারা পাত্তাই পেত না। বার বার গোলের বন্যায় ভেসে যেত। কালের বিবর্তনে এতদিনে বাংলাদেশের ফুটবল অনেক দূরে এগিয়ে যাওয়ার কথা। ভুটান-টুটানকে নিয়ে চিন্তাই করার কথা নয়। বাস্তবতা হয়েছে উল্টো তিন যুগে ফুটবল ভুটান যতটা এগিয়েছে ততটা পিছিয়েছে বাংলাদেশ।

এক সময় বেশি গোল না দেওয়ার অনুরোধ রাখত ভুটান। এখন তাদের হারাতে পারব কি না তা কোনো নিশ্চয়তা নেই। এক সময় ভুটানের বিপক্ষে কম ব্যবধান জেতাটাই ছিল অবিশ্বাস্য। এখন হারাটাও স্বাভাবিক ঘটনা বলে ধরে নেওয়া হয়। যদিও এখন পর্যন্ত ভুটানের কাছে হারের রেকর্ড নেই বাংলাদেশের। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে চরম ব্যর্থতার পরও গ্রুপ পর্বে একমাত্র জয়টি এসেছিল ভুটানের বিপক্ষে।

আজ এশিয়ান কাপ প্লে-অফ বাছাই পর্বে বাংলাদেশ লড়বে ভুটানের বিপক্ষে। সন্ধ্যা ৭টায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে। বাছাই পর্বে সুযোগ পেতে হলে ঘরের মাঠে জয়টা খুবই জরুরি। ১০ অক্টোবর থিম্পুতে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলবে। আজ যদি ২ বা ৩ গোলের ব্যবধানে জিততে পারে তাহলে অ্যাওয়ে ম্যাচে বাড়তি সুবিধা পাবে।

আজকের ম্যাচকে তাই আলাদাভাবে গুরুত্ব দিচ্ছেন নতুন কোচ সেইন্টফিট। তিনি বলেন, ‘ভুটানের ফুটবলের সম্বন্ধে আমার ধারণা নেই। তবে মালদ্বীপের বিপক্ষে ছেলেরা যে পারফরম্যান্স প্রদর্শন করেছে তাতে আমি হতাশ। এই দলকে গোছাতে বেশ সময় লাগবে। হুট করে পরিবর্তন আনা সম্ভব নয়। ঘরের মাঠে ভুটানের বিপক্ষে ম্যাচে সুযোগটা কাজে লাগাতে হবে। অ্যাওয়ে ম্যাচে ভুটান বাড়তি সুবিধা নিয়ে মাঠে নামবে। তাই আমার লক্ষ্য থাকবে হোম ম্যাচে জয়টা যেন এমনভাবে আসে অ্যাওয়ে ম্যাচে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যায়।

ভুটানের বিপক্ষে নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ ফেবারিট। মালদ্বীপের বিপক্ষে লজ্জাকর হার মানলেও আজকের ম্যাচে জেতার সম্ভাবনাই বেশি। এরপরও নিজেদের মাঠে জয় নিয়ে শঙ্কিত ফুটবলপ্রেমীরা। ভয় পাওয়ার একটাই কারণ, ধারাবাহিক ব্যর্থতা, কোনোভাবেই ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না। সত্যি বলতে কি জয় যেন স্বপ্নে পরিণত হয়েছে। এ অবস্থায় ভুটানও ভয়ের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাছাড়া কিছুদিন আগে থিম্পুতে এফসি কাপ প্লে-অফ বাছাই ম্যাচে ভুটানের টাই টনসের কাছে হেরে এসেছে পেশাদার লিগের রানার্স আপ দল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। সুতরাং ভুটানকে কোনোভাবেই হালকা চোখে দেখা যাবে না। পুরুষদের দুঃসময়ে ফুটবলকে জাগিয়ে রেখেছে মেয়েরাই। এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ বাছাই পর্বে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে প্রথমবারের মতো চূড়ান্ত পর্বে উঠেছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষদের গোলের বন্যায় ভাসিয়েছে কিশোরীরা। তাদের পারফরম্যান্সে দেশবাসী মুগ্ধ। এ অবস্থায় নিজেদের মাঠে হারা মানে পুরুষ জাতীয় দলের লজ্জার শেষ থাকবে না। তবে বড় জয় পেলে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরে আসবে। যে ভুটান পাত্তাই পেত না এখন কিনা তাদের নিয়েই এত ভয়। কি করুণ অবস্থা দেশের ফুটবলের।

up-arrow