Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪৩
তাসকিনদের প্রশংসায় ওয়ালশ
ক্রীড়া প্রতিবেদক
তাসকিনদের প্রশংসায় ওয়ালশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের শেষ বংশধর বলাই যায় কোর্টনি ওয়ালশকে! তার ক্যারিয়ার শেষ হতেই কারিবীয় ক্রিকেটের ঠাঁই হয় অস্তাচলে। সেখান থেকে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। যদিও কালেভদ্রে হঠাৎ হঠাৎ জ্বলে উঠছে। কিন্তু সেসব ক্রিকেট বিশ্বকে ভয় ধরিয়ে দেওয়ার মতো নয়। ওয়ালশ এখন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বোলিং কোচ। তিনি রবিবার ড্রেসিং রুমে বসে দেখেছেন আফগানিস্তানের বিপক্ষে নাভিশ্বাস ওঠা জয়। আর জয়ের নায়ক যে তারই শিষ্যরা, সেটাও দেখলেন। তাই কাল অনুশীলনে প্রিয় শিষ্য মাশরাফি বিন মর্তুজা, তাসকিন আহমেদ ও রুবেল হোসেনের প্রশংসা করেছেন।

ম্যাচের জয়-পরাজয় নির্ধারিত হয়েছে শেষ তিন ওভারে। ৪৭ ওভার পর্যন্ত ম্যাচ এক প্রকার হেলেই ছিল আফগানিস্তানের কোর্টে। ড্রেসিং রুমে বসে আগাম জয়ের উৎসবও করছিল আইসিসি সহযোগী দেশটি। কিন্তু পেন্ডুলামের মতো দুলতে থাকা ম্যাচটি যে শেষ পর্যন্ত দুর্দান্ত খেলে বাংলাদেশ জিতে যাবে, মাঠে উপস্থিত হাজার বিশেক দর্শকসহ কেউই ভাবেননি। সেই কাজটিই করেছেন তাসকিন, রুবেলরা। শেষ ৩ ওভারে জয়ের জন্য আফগানিস্তানের দরকার ২১ রান। হাতে ৫ উইকেট। এমন সমীকরণে ম্যাচ জিতবে—ভাবাই স্বাভাবিক। ৪৮ নম্বর ওভারে তাসকিনকে বোলিংয়ে আনার আগে কানে কানে যেন কী বলেন অধিনায়ক মাশরাফি। ৬ ওভারের স্পেলে ৪৯ রান দেওয়া তাসকিন ৪৮ নম্বর ওভারে ৬ রানের খরচে তুলে নেন ২ উইকেট। ওই ওভারেই ম্যাচ ঘুরে যায়। ফলে শেষ দুই ওভারে টার্গেট দাঁড়ায় ২১ রান। বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের নায়ক রুবেল ৮ রানের খরচে নেন এক উইকেট। ফলে শেষ ওভারে আফগানিস্তানের দরকার ১৩ রান। হাতে ২ উইকেট। ম্যাচ তখনো দুই পক্ষে হেলে আছে। পেন্ডুলামের মতো দুলতে থাকা ম্যাচটিতে ২ রান দিয়ে দ্বিতীয় বলে তুলে নেন উইকেট। শেষ ৪ বলে ২ রানের খরচে নেন আর এক উইকেট। তাসকিনের অবাক করা বোলিংয়ে ৭ রানের রোমাঞ্চকর জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। শেষ বেলায় দুই ওভারের ম্যাজিকে বাংলাদেশকে অবিশ্বাস্য জয় তুলে ম্যাচের প্রকৃত নায়ক তাসকিনই। যদিও ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন সাকিব। ৪৯ নম্বর ওভারটা ভালো করলেও একটু বেশিই খরুচে বোলিং করেছেন রুবেল। ৯ ওভারে রান দিয়েছেন ৬২। অধিনায়ক মাশরাফি ১০ ওভারে রান দিয়েছেন ৪২।

পেসারদের এমন নজরকাড়া বোলিংয়ে সন্তুষ্ট হওয়াই স্বাভাবিক। হয়েছেনও ক্যারিবীয় লিজেন্ডারি পেসনার ওয়ালশ। গতকাল অনুশীলনের ফাঁকে মাশরাফি, রুবেল, তাসকিনদের প্রশংসা করে টাইগারদের বোলিং কোচ বলেন, ‘রুবেল ও তাসকিন শেষ দুই ওভারে খুব ভালো বোলিং করেছেন। সাকিবের ওভারটি ম্যাচ ঘুরিয়ে দিয়েছে। এতে করে শেষ দুই ওভারের আত্মবিশ্বাসী বোলিং করেছেন দুজনে। এটাই দলগত নৈপুণ্য।’ প্রশংসা করেছেন অধিনায়ক মাশরাফিরও, ‘অধিনায়ক খুব ভালো বোলিং করেছেন। নেতৃত্বও ভালো দিয়েছেন।’ প্রথম অ্যাসাইনমেন্টেই দলের ঘাম ঝরানো জয়ে শিষ্যদের অবদান থাকায় একটু বেশিই উত্ফুল্ল মনে হলো ওয়ালশকে।  

up-arrow