Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪৪
মোহামেডান-আরামবাগ ড্র
অনিকের গোলে মুক্তিযোদ্ধার জয়
শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট
অনিকের গোলে মুক্তিযোদ্ধার জয়

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ফুটবলে আলমগীর কবির অনিকের একমাত্র গোলে উত্তর বারিধারা ক্লাবকে হারিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্র। সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে গতকাল বিকালে অনুষ্ঠিত হওয়া ম্যাচে জয় পেয়ে পয়েন্ট তালিকার চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে মুক্তিযোদ্ধা।

অন্যদিকে হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাওয়া উত্তর বারিধারা ক্লাব পয়েন্ট তালিকার তলানিতেই অবস্থান করছে। বিকাল সাড়ে ৪টায় শুরু হওয়া ম্যাচের প্রথমার্ধ ছিল ছন্নছাড়া ফুটবলের প্রদর্শনী। হঠাৎ হঠাৎ দুর্বল আক্রমণ ছাড়া এ অর্ধে মধ্যমাঠেই খাবি খেয়েছে উভয় দল। ম্যাচের প্রথম ১০ মিনিট উভয় দল গোলের জন্য খেলেছে বলে দৃশ্যমান ছিল না। ১১ মিনিটের মাথায় আক্রমণে উঠে মুক্তিযোদ্ধা। কিন্তু ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলমের দুর্বল শট খুঁজে পায়নি প্রতিপক্ষের জাল। ১৯ মিনিটের মাথায় মুক্তিযোদ্ধার আহমেদ মুসা ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শট রুখে দেন বারিধারা গোলরক্ষক এরশাদ। ৩১ মিনিটে ভাগ্য সহায় না থাকায় গোল পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয় বারিধারা। ফরোয়ার্ড কলিন্স থিয়েগোর দারুণ শট মুক্তিযোদ্ধার গোলরক্ষককেও পরাস্ত করে। কিন্তু পোস্টে লেগে বল ফিরে আসায় গোলবঞ্চিত হয় বারিধারা। প্রথমার্ধের একেবারে শেষ মুহূর্তে প্রতিপক্ষের ডি-বক্সে উড়ে আসা বলে মুক্তিযোদ্ধার সিমন ইজিওডিকার শট পোস্টের উপর দিয়ে যায়।

 

বিরতির পর মুক্তিযোদ্ধার খেলায় গতি আসে। গোল মুখে একের পর এক আক্রমণ শানাতে থাকে দলটি। মাঝেমধ্যে বারিধারাও উঠে আসে আক্রমণে। ম্যাচের ৫২ মিনিটের মাথায় মোবারক হোসাইনের দারুণ এক ক্রস ক্ষিপ্রতার সঙ্গে ফিরিয়ে দেন বারিধারার গোলরক্ষক। ৫৪ মিনিটে ডি-বক্সে জটলার মধ্যে বল পেয়ে যান বারিধারার সেন্টু। তবে তার শট ফিরিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধার গোলরক্ষক নাঈম। ফিরতি বল পেয়ে শট নিতে পারেননি মাজহারুল ইসলাম।

ম্যাচের ৫৬ মিনিটে নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বসেন মুক্তিযোদ্ধার মিডফিল্ডার মোবারক। থ্রো মারা নিয়ে বারিধারার সেন্টুর সঙ্গে তর্কে লিপ্ত হয়ে তার মুখেই বল দিয়ে আঘাত করেন মোবারক। লাল কার্ড দেখাতে দেরি করেননি রেফারি। ম্যাচের ৬৩ মিনিটের মাথায় ওই সেন্টুকেই ডি-বক্সের ঠিক বাইরে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন মুক্তিযোদ্ধার সাইদুল হক। ম্যাচের ৬৭ মিনিটে আসে জয়সূচক গোলটি। মুক্তিযোদ্ধার কর্নার কিক ডি-বক্সে ক্লিয়ার করে বারিধারার ডিফেন্ডাররা। ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থাকা অনিকের পায়ে পড়ে বল। অনেকটা আয়েশী ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে থাকা উত্তর বারিধারার ডিফেন্সকে বোকা বানিয়ে আচমকা জোরাল শটে গোল করে বসেন অনিক। বোকার মতো চেয়ে দেখা ছাড়া বারিধারার গোলরক্ষক এরশাদের আর কিছু করার ছিল না। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা মোহামেডান ও আরামবাগ গোলশূন্য ড্র করে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে।

up-arrow