Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৫১
মঈন আলীর রিভিউ ভাগ্য
মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম
মঈন আলীর রিভিউ ভাগ্য

ক্রিকেটে প্রবাদ আছে- ক্রিকেটে দক্ষতা ছাড়াও প্রয়োজন ভাগ্যও। আর ভাগ্যের সহায়তা যদি বার বার পার পাওয়া যায় তা হলে বলতে হয় সোনায় সোহাগা।

চট্টগ্রামে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে এমন ভাগ্যের সহায়তা পেয়েছেন ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার মঈন আলী। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন মঈন আলী ব্যাটিং করার সময় পক্ষে-বিপক্ষে পাঁচ রিভিউ আবেদন করা হলেও প্রত্যেকবার ভাগ্য অনুকূলে যায় মঈন আলীর। যার মধ্যে আম্পায়ার তিন তিন বার এলবিডব্লিউ দেওয়ার পরও ভাগ্যের সহায়তায় রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান মঈন।

ইংল্যান্ডের ইনিংসের ২৪ তম ওভারে তাইজুলের বলে জোরালো আবেদন করে বাংলাদেশ। কিন্তু আম্পায়ার সেই আবেদন নাকচ করে দেন। পরে রিভিউ নেন মুশফিক। কিন্তু লাইনের বাইরে থাকায় সেই রিভিউ খারিজ করে দেন টিভি আম্পায়ার।   ২৭তম ওভারে সাকিবের ওভারে একটি জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা। মঈন রিভিউ নেওয়ার পর দেখা যায় বল প্যাডে লাগার আগে আলতো ছুঁয়ে যায় ব্যাট। ফলে বাতিল হয় আম্পায়ারের দেওয়া আউট। পরের দুটি দ্বিতীয় সেশনের প্রথম ওভারে সাকিবের পরের ওভারে তিন বলের মধ্যে দুবার আম্পায়ার আউট  দেন মঈনকে। দুটোতে রিভিউ নেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। প্রথমবার  বেঁচে যান বল লেগ স্ট্যাম্প মিস করায়। পরেরবার ইমপ্যাক্ট অফ স্ট্যাম্পের বাইরে হওয়ায়। পরের ঘটনা ৪৮তম ওভারে। মিরাজের বলে এলবিডব্লিউ জোরালো আবেদন। আম্পায়ার সাড়া দেননি। রিভিউ নেন বাংলাদেশ। কিন্তু ভাগ্যজোরে বেঁচে যান মঈন।

রিভিউ আবেদনের মাধ্যমে বেঁচে যাওয়ার পর চওড়া হয়ে যায় মঈন আলীর ব্যাট। তিনি এক প্রান্ত আগলে ধরে রাখেন। আদায় করে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের ৮ম অর্ধশতক। শেষ পর্যন্ত তাকে সাজঘরে ফেরান অভিষেক হওয়া মেহেদী হাসান মিরাজ। সাজঘরে ফেরার আগে ভাগ্য সহায়তা নিয়েই মঈন করেন ৬৮ রান। ৮ চার এবং ১ ছক্কা দিয়ে সাজানো ছিল মঈন আলীর ইনিংসটি।

টেস্টে একটি দল ৮০ ওভারে সাধারণত যতবার ইচ্ছা রিভিউ আবেদন করতে পারে। তবে যদি এক দল এর মধ্যে দুটি ব্যর্থ রিভিউ আবেদন করে তাহলে তারা আর রিভিউ আবেদন করতে পারবে না। যদি রিভিউ আবেদন সফল হলে যত ইচ্ছা রিভিউ       আবেদন করতে পারবে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংস : ২৫৮/৭, ৯২ ওভার (মঈন আলী ৬৮, রুট ৪০)। মেহেদি ৫/৬৪, সাকিব ২/৪৬। (প্রথম দিন শেষে)

up-arrow