Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:০৭
নিলামে ওরা ৬ জন
ক্রীড়া প্রতিবেদক
নিলামে ওরা ৬ জন

ভারতীয় প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) সামনের আসরে সাকিব আল হাসান খেলবেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়েই। কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমানও হায়দরাবাদের হয়েই খেলবেন।

তবে এই দুই ক্রিকেটার ছাড়াও আইপিএলের নিলামে এবার সুযোগ পেয়েছেন বাংলাদেশের আরও ছয় ক্রিকেটার। তারা হচ্ছেন— তামিম ইকবাল, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির আহমেদ, তাসকিন আহমেদ, মেহেদী হাসান মিরাজ ও এনামুল হক বিজয়। প্রত্যেকেই বেইজ প্রাইজ নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ লাখ রুপি।

সামনের আইপিএল মাঠে গড়াবে ৩ এপ্রিল। তবে বেঙ্গালুরুতে নিলাম অনুষ্ঠিত হবে ২০ ফেব্রুয়ারি। এই নিলামের জন্য ৩৫১ ক্রিকেটারকে বাছাই করা হয়েছে।

এনামুল হক বিজয় অনেক দিন থেকেই জাতীয় দলের বাইরে। কিন্তু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) গত আসরে ভালো করায় নিলামে সুযোগ পেয়েছেন তিনি। ১৩ ম্যাচে বিপিএলে বিজয় করেছিলেন ২৫০ রান। গত বিপিএলে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন তামিম ইকবাল। তাছাড়া অনেক দিন থেকেই ধারাবাহিকভাবে রান পাচ্ছেন তিনি। সে কারণেই তামিমকে এবার নিলামে রাখা হয়েছে। যদিও এর আগেও পুনে ওয়ারিয়র্সের দলে ছিলেন তামিম। তবে খেলতে পারেননি। এবার তামিমের চাহিদা অনেক বেশি। বিপিএলে ১৩ ম্যাচে ৪৭৬ রান করায় তার দিকে দৃষ্টি দিয়েছে আইপিএলের দলগুলো।   সাব্বির রহমানকে বলা হয় টি-২০ স্পেশালিস্ট। স্বল্প দৈর্ঘ্যের ক্রিকেটে দারুণ দ্রুত রান তোলার ক্ষেত্রে সাব্বিরের জুড়ি নেই। গত আসরে করেছিলেন ৩৭৭ রান। সব মিলে টুর্নামেন্টে তৃতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন। সে কারণে তাকে নিলামে রাখা হয়েছে।

বিপিএলের গত আসরে দারুণ বোলিং করেছেন তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ। তাসকিন চিটাগং ভাইকিংসের ১১ ম্যাচে নিয়েছিলেন ১৫ উইকেট। আর মিরাজ ১৫ ম্যাচে নিয়েছিলেন ১২ উইকেট। তা ছাড়া ব্যাটিংয়ে ভালো মিরাজ। সে কারণেই আইপিএলের নিলামে সুযোগ পেয়েছেন।

আইপিএলের দলগুলো এই ৬ জনের মধ্য থেকে কাকে কাকে কিনবেন তা বোঝা যাবে ২০ ফেব্রুয়ারি নিলামের পর। তবে এটা নিশ্চিত যে এবারের আইপিএল বাংলাদেশের ক্রিকেটারের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা আইপিএলের এই আসরে পুরো সময় খেলতে পারবেন না। কেননা মার্চের প্রথম সপ্তাহে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের। সে কারণে ক্রিকেটারদের শ্রীলঙ্কায় থাকতে হবে এপ্রিলের মাঝামাঝি পর্যন্ত।

up-arrow