Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫৪
পাঁচেই থাকল বাংলাদেশ
ক্রীড়া প্রতিবেদক
পাঁচেই থাকল বাংলাদেশ

স্বপ্ন ছিল ওয়ার্ল্ড হকি লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডের ফাইনালে খেলে বাংলাদেশ পরবর্তী অর্থাৎ তৃতীয় রাউন্ডে উঠবে। না, স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেছে জিমিদের।

কোয়ার্টার ফাইনালে মিসরের কাছে হেরে শেষ চারেই খেলতে পারেনি। তবে যতটুকু সামর্থ্য সেটা পূরণ করতে পেরেছে বাংলাদেশ। গতকাল ঘানাকে হারিয়ে আসরে জিমিরা পঞ্চম স্থান দখল করেছেন। সত্যি বলতে কি যতই তৃতীয় রাউন্ডের যাওয়ার স্বপ্ন দেখুক না কেন, শক্তিশালী প্রতিপক্ষকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ সেমি বা ফাইনাল খেলবে তা বিস্ময়ই মনে হয়েছে। গ্রুপপর্ব ম্যাচে ওমানের কাছে হেরে কোয়ার্টার ফাইনালেই মিসরের মতো শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে মুখোমুখি হতে হয়। বাস্তব আর স্বপ্ন দেখা যে এক নয় সেদিন ম্যাচেই স্পষ্ট হয়ে ওঠে। শোচনীয় হার মেনেই মাঠ ছাড়তে হয় জিমিদের।

সেমিতে উঠতে না পারলেও স্থান নির্ধারিত ম্যাচে তো খেলতে হবে। বাংলাদেশকে তাই পঞ্চম স্থানে থাকতে প্রথম ম্যাচেই শ্রীলঙ্কাকে ৯-০ গোলে উড়িয়ে দেয়। গতকাল ঘানাকে হারানোয় নিশ্চিত হয়ে যায় পাঁচে থাকা। তবে অনেকটা ভাগ্যের জোরেই জয় পেয়েছে বললে ভুল হবে না। মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে নির্ধারিত সময় ৩-৩ ড্র ছিল। পরে শুট আউটে ৪-৩ গোলে জিতে যায় বাংলাদেশ। শুরুটা বাংলাদেশ ভালোই করেছিল। প্রথম ১৫ মিনিটেই দুই গোলে এগিয়ে যেতে পারত। কিন্তু কৌশিক ও সারোয়ারের ব্যর্থতার তা সম্ভব হয়নি।

১৬ মিনিটে বরং এগিয়ে যায় ঘানা। পেনাল্টি কর্নার থেকে জনিবতমিয়ো গোল করেন। ১৯ মিনিটে বাংলাদেশকে সমতায় ফেরান চয়ন। দুই মিনিটে আবার তার গোল। উৎসবে মেতে ওঠে পুরো গ্যালারি। বিরতির পর দুই দলই চাপিয়ে খেলতে থাকে। ৪৩ মিনিটে ম্যাকিউ দামালির হাফলাইন থেকে প্রচণ্ড হিটে ফ্রি কিক করে সমতা আসেন ঘানার আকাবা এলিকেস। ঘানা গোল শোধের পর উজ্জীবিত হয়ে খেলতে থাকে। ৪৯ মিনিটে নিশ্চিত গোল রক্ষা করেন বাংলাদেশের গোলরক্ষক জাহিদ। ৫২ মিনিটে তারা পেনাল্টি স্ট্রোকও আদায় করে নেয়। মাকিউ দামালি স্পট থেকে গোল করতে আর ভুল করেননি। ৩-২ গোলে পিছিয়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশের হারের শঙ্কা জেগে ওঠে। তবে ভাগ্য সহায় ছিল বাংলাদেশের। শেষ মিনিটে পেনাল্টি কর্নারে চয়নের হিট গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলেও সামনে দাঁড়ানো অধিনায়ক জিমি বল পুশ করে পাঠিয়ে দেন পোস্টের ভিতর। এই গোলে শুট আউটে গড়ায় ম্যাচ। যেখানে প্রথম পাঁচটির মধ্যে ব্যবধান ছিল ৩-৩। তাই সাডেন ডেথে যায় শুট আউট। কৃষ্ণ কুমার বল জালে পাঠালে বাংলাদেশের পঞ্চম স্থান নিশ্চিত হয়। এদিকে মিসর ৫-১ গোলে ওমানকে হারিয়ে তৃতীয় স্থান দখল করে। শ্রীলঙ্কা হয় সপ্তম।

up-arrow