Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫৫
ইমার্জিং কাপের প্রস্তুতি
ক্রীড়া প্রতিবেদক
ইমার্জিং কাপের প্রস্তুতি
জ্বলে উঠতে চান রনি তালুকদার

টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হতো বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে সার্ক ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপ। বাংলাদেশের জাতীয় দল ছাড়া বাকি তিন দেশের ‘এ’ দলগুলো অংশ নিত টুর্নামেন্টে।

জমজমাট টুর্নামেন্টে খেলতেন দেশগুলোর তারকা ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশ টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়ার পর টুর্নামেন্টটি বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে এখনো গেঁথে আছে সেই টুর্নামেন্টের কথা। দীর্ঘদিন পর ফের এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি) আয়োজন করতে যাচ্ছে ইমার্জিং এশিয়া কাপ। চারটি টেস্ট খেলুড়ে দেশসহ আফগানিস্তান, হংকং, নেপাল ও মালয়েশিয়া অংশ নিচ্ছে টুর্নামেন্টে। বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার অনূর্ধ্ব-২৩ দল খেলবে এবং প্রতিটি দলে চারজন করে জাতীয় দলের ক্রিকেটার খেলতে পারবেন। আইসিসি সহযোগী দেশগুলোর জাতীয় দল অংশ নেবে। টুর্নামেন্ট শুরু ২৭ মার্চ এবং ফাইনাল ৩ এপ্রিল। খেলাগুলো হবে কক্সবাজার ও চট্টগ্রামে। টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে অনুশীলনে নেমে পড়েছে বাংলাদেশ। ১৬ ও ১৮ মার্চ দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে ১৫ সদস্যের স্কোয়াড অনুশীলন করতে যাবে কক্সবাজার যাবে। দলটির হেড কোচ মিজানুর রহমান বাবুল। ব্যাটিং কোচ নুরুল আবেদীন নোবেল ও ফিল্ডিং কোচ সাইফুল ইসলাম। টুর্নামেন্টটিকে সিরিয়াসলিই নিয়েছে বাংলাদেশ। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার টার্গেটে দলটিতে ভেড়ানো হয়েছে নাসির হোসেন, নুরুল হাসান সোহান, মোহাম্মদ মিথুন, আবু হায়দার রনি, তানভীর হায়দার ও আবুল হাসান রাজুদের। এদের মধ্য থেকেই নেওয়া হবে চার ক্রিকেটার এবং সম্ভবত দলের অধিনায়ক করা হবে নাসির হোসেনকে। ২৭ মার্চ টুর্নামেন্ট শুরুর আগে কক্সবাজারে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ ২৭ মার্চ এবং প্রতিপক্ষ হংকং। নেপালের বিপক্ষে ম্যাচ ২৮ মার্চ এবং ৩০ মার্চ খেলবে পাকিস্তানের বিপক্ষে। অন্য গ্রুপের চার দল ভারত, শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান ও মালয়েশিয়া। দুই গ্রুপের সেরা চার দল সেমিফাইনাল খেলবে। সেমিফাইনাল ও ফাইনাল হবে চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে। টুর্নামেন্টটিকে সিরিয়াসলি নিয়েছেন বাঁ হাতি পেসার আবু হায়দার রনি, ‘আমরা যারা উঠতি ক্রিকেটার রয়েছি, তাদের জন্য ইমার্জিং কাপ খুবই ভালো একটি প্লাটফর্ম। যারা জাতীয় দলে খেলতে ঢুকতে চাইছি, তাদের জন্য এখানে পারফর্ম করা খুবই জরুরি। ’ টুর্নামেন্টটি প্রতি বছর হবে কি না, এখনো নিশ্চিত নয়। তবে এই ধরনের টুর্নামেন্ট অবশ্য দলগুলোর ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সের উন্নতিতে সহায়তা হবে কোনো সন্দেহ নেই।        

এই পাতার আরো খবর
up-arrow