Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৮ মার্চ, ২০১৭ ২৩:০৭
মুশফিকের ১০০ শিকার
ক্রীড়া প্রতিবেদক
মুশফিকের ১০০ শিকার

১০০ টেস্ট বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য ‘সাফল্যের বর’ নিয়ে এসেছে। সেঞ্চুরি টেস্টে সেঞ্চুরি করেছেন সাকিব আল হাসান।

১৪০ বছরের টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে ২২৫৬টি টেস্ট ম্যাচে অষ্টম ক্রিকেটার হিসেবে তিন অংকের ম্যাজিক্যাল ইনিংস খেলেন সাকিব। একই টেস্টে বাংলাদেশের প্রথম ও একমাত্র উইকেটরক্ষক হিসেবে শততম (১০১) শিকারের রেকর্ডও গড়েছেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। যাতে ৮৯টি ক্যাচের পাশাপাশি স্ট্যাম্পিং ১২টি। টেস্ট ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি শিকার দক্ষিণ আফ্রিকার মার্ক বাউচারের, ৫৫৫টি। মুশফিকের অবস্থান ৪১ নম্বরে।   

২০০৫ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক। প্রথম দুই টেস্টে স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলেন। তখন উইকেটের পেছনে গ্লাভস হাতে দাঁড়াতেন খালেদ মাসুদ পাইলট। লর্ডসে অভিষেক।

ঘরের মাঠে প্রথম টেস্ট খেলেন নিজ শহর বগুড়ায় পরের বছর ২০০৬ সালে শ্রীলঙ্কায়। উইকেটরক্ষক হিসেবে তৃতীয় টেস্টে খেলেন মুশফিক। সেটা এই ঐতিহাসিক পি সারা ওভাল স্টেডিয়ামেই। ২০০৭ সালে জুলাইয়ে এই মাঠে উইকেটরক্ষক হিসেবে খেললেও ক্যাচ শিকার করতে পারেননি। প্রথম শিকার পঞ্চম টেস্টে। ২০০৮ সালে ডুনেডিনে তিনটি ক্যাচ নিয়েছিলেন। প্রথম ক্যাচ ছিল বাঁ হাতি পেসার সাজেদুল ইসলামের বলে ব্ল্যাক ক্যাপসদের সাবেক অধিনায়ক স্টিফেন ফ্লেমিংয়ের। ওই টেস্টে ড্যানিয়েল ভেট্টরি ও কাইলি মিলসের ক্যাচ নিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মর্তুজার বলে। ক্যারিয়ারের ১০০ নম্বর শিকার সাকিবের বলে নিরোশানি ডিকভেলার ক্যাচটি। এরপর থেকেই নিয়মিতই খেলছেন এবং টাইগারদের সবচেয়ে বড় ভরসার নাম এখন মুশফিক। অবশ্য এখন উইকেটরক্ষকের পজিশনটি তার জন্য মিউজিক্যাল চেয়ার! গলে প্রথম টেস্টে ফিল্ডিং করেছেন। লিটন দাস ইনজুরিতে পড়ায় পুনরায় গ্লাভস হাতে দাঁড়ান উইকেটের পেছনে। চারটি ক্যাচ নিয়েই বাংলাদেশের প্রথম উইকেটরক্ষক হিসেবে শততম শিকার করেন। গতকাল পি সারা ওভাল স্টেডিয়ামে টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে মুশফিকের শিকার ১০১টি(৮৯+১২)।

বাংলাদেশের ১০০ টেস্টে উইকেটের পেছনে দাঁড়ানো উইকেটরক্ষকের সংখ্যা একেবারেই কম নয়, ১০ জন। মুশফিক ছাড়া বাকিদের মধ্যে স্পেশালিস্ট উইকেটরক্ষক খালেদ মাসুদ পাইলট, মোহাম্মদ সেলিম, লিটন দাস ও নুরুল হাসান সোহান।   বাকি পাঁচ ক্রিকেটার ইমরুল কায়েস, মেহরাব হোসেন অপি, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, রাজিন সালেহ ও শাহরিয়ার হোসেন বিদ্যুতও দলের প্রয়োজনে গ্লাভস হাতে দাঁড়িয়েছেন উইকেটের পেছনে। উইকেটরক্ষক হিসেবে ৪৪ টেস্টে ৮৭টি শিকার করেছেন পাইলট। যাতে ক্যাচ ৭৮টি ও স্ট্যাম্পিং ৯টি।  

৫৫৫টি ক্যাচ ও স্ট্যাম্পিং নিয়ে সবার ওপরে মার্ক বাউচার। ৪১৬ শিকার অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডাম গিলক্রিস্টের। ৩৯৫টি নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ইয়ান হিলি। ১০০টি ডিসমিসাল নিয়ে মুশফিক রয়েছেন ৪১ নম্বরে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow