Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:২০
আইপিএলে সেই কাটার ফিজ
মেজবাহ্-উল-হক
আইপিএলে সেই কাটার ফিজ

‘দ্য ফিজ’—পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের নামটি দিয়েছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। অসি ক্রিকেটার তখন ছিলেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের অধিনায়ক।  ২০১৬ সালের আইপিএলে মুস্তাফিজ এমন ভয়ঙ্কর বোলিং করেছেন যে হায়দরাবাদকে অভিষেকেই চ্যাম্পিয়ন করে দিয়েছেন!

—কী দুর্বোধ্য তার কাটার, স্লোয়ার, ইর্কার! অভিষেকের পর দ্রুতই মুস্তাফিজ হয়ে যান ব্যাটসম্যানদের আতঙ্ক!

অবশ্য মুস্তাফিজ যে আইপিএল দিয়ে লাইমলাইটে চলে এসেছেন তা কিন্তু নয়। ২০১৫ সালে ঢাকায় ভারতের বিরুদ্ধে ওয়ানডে অভিষেকে প্রথম তিন ম্যাচে ১৩ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়েন। সেই সফরে মুস্তাফিজের কাটারে দিশেহারা হয়ে পড়েছিল ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। সাতক্ষীরার এই তরুণ তুর্কির কাঁধে ভর করেই ভারতের বিরুদ্ধে ওয়ানডেতে প্রথম সিরিজ জয়ের স্বাদ পেয়েছিল বাংলাদেশ। ওই সিরিজের পর মুস্তাফিজ ক্রিকেট বোদ্ধাদের কাছ থেকে পেয়ে যান আরেক ‘কাটার মাস্টার’ নাম!

ভারতের বিরুদ্ধে সেই সিরিজটা ছিল বাংলাদেশের মাটিতে। তাই মুস্তাফিজকে বিশ্ব মিডিয়া হয়তো সেভাবে আমলে নেয়নি। ‘ঘরের মাঠে বাঘ’—এতো অনেকেই হতে পারেন! কিন্তু ওই বছর আইপিএলেই মুস্তাফিজ নিজেকে আলাদা করে চেনান। তার ছোঁয়ায় হায়দরাবাদ চ্যাম্পিয়ন হয়, মুস্তাফিজ পেয়ে যান ওই আসরে সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার।

তারপর থেকেই বিশ্বের বিভিন্ন সেলিব্রেটি লিগে মুস্তাফিজকে নিয়ে টানাটানি শুরু হয়ে যায়। পাকিস্তান সুপার লিগ, ইংল্যান্ডের টি-২০ ব্লাস্ট —কাটার মাস্টারকে চাই-ই চাই! বেচারা মুস্তাফিজ তো আর রোবট নন! তিনি তো রক্তে মাংসে গড়া মানুষ। তাই বেশি চাপ সহ্য করতে না পেরে ইনজুরিতে পড়ে যান।

হায়দরাবাদ নিজেদের স্বার্থে অন্ধ হয়ে গিয়ে মুস্তাফিজের ওপর বেশি চাপ প্রয়োগ করেছিল। তাই ভারত থেকে ফিরেই ইনজুরিতে পড়েছিলেন। তারপর বিশ্রাম নিয়ে আবার সাসেক্সের হয়ে খেলতে ইংল্যান্ডে চলে যান। প্রথম ম্যাচে চিরচেনা সেই ভয়ঙ্কর মুস্তাফিজ। ম্যাচ সেরাও। কিন্তু তারপরই পড়ে যান ইনজুরিতে। যে ইনজুরির কারণে ইংল্যান্ডেই মুস্তাফিজকে অস্ত্রোপচার করতে হয়েছিল। তারপর দীর্ঘ ৬ মাস মাঠের বাইরে।

অবশেষে মুস্তাফিজ ইনজুরিতে থেকে ফেরেন বটে, কিন্তু ছন্দে আর ফিরতে পারছিলেন না। আইপিএলের গত আসরে একটি মাত্র ম্যাচ খেলেছিলেন হায়দরাবাদের হয়ে। কিন্তু পারফর্ম করতে পারেননি। তাই এই আসরে কাটার মাস্টারকে আর দলেই রাখেনি দলটি।

কিন্তু কী মজার বিষয়, এই আসরে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের জার্সিতে খেলতে নেমে সেই সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধেই নিজেকে যেন পুরনো চেহেরায় ফিরে পেলেন কাটার মাস্টার। যদিও এই ম্যাচে মুস্তাফিজের দল হেরেছে, কিন্তু মুম্বাইয়ের দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছেন তিনি। ৪ ওভার বোলিং করে দিয়েছেন মাত্র ২৪ রান। উইকেট নিয়েছেন ৩টি। ৪-০-২৪-৩ কী অসাধারণ বোলিং ফিগার!

বিশেষ করে, নিজের শেষ ওভারটির জন্য বেশি প্রশংসা পাচ্ছেন মুস্তাফিজ। মাত্র ১ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। এতেও ঠিক ওভারটির গুরুত্ব বোঝানো সম্ভব হলো না। কেন না শেষ ১২ বলে জয়ের সানরাইজার্স হায়দরাবাদের দরকার ছিল ১২ রান। স্টেডিয়াম থেকে মুম্বাইয়ের দর্শকরাও তখন গ্যালারি ছাড়তে শুরু করেছেন।

মুস্তাফিজ ওভারের প্রথম বলে এক রান দিলেন। দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে ডট। চতুর্থ বলে উইকেট। পঞ্চম বলে ডট। শেষ বলে আবার উইকেট।

এক ওভারেই ম্যাচ মুম্বাইয়ের দিকে ঝুঁকে গেল। কেন না ইনিংসের শেষ ওভারে হায়দরাবাদের দরকার ১১ রান। বাইশগজে তাদের শেষ জুটি। লেজের ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে খুব বেশি কিছু আশা করা কঠিন। মুম্বাই শিবিরে তখন জয় উদযাপনের প্রস্তুতি চলছে যেন! কিন্তু শেষ ওভারে পারলেন না বোলার বেন কাটিং। রোমাঞ্চকর ম্যাচটি জিতে যায় হায়দরাবাদ।

দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিরুদ্ধেও দারুণ বোলিং করেছেন মুস্তাফিজ।  ৪ ওভারে ২৫ রানে এক উইকেট। কিন্তু দলকে জেতাতে পারেননি। প্রথম তিন ওভারে মাত্র ১৪ রান দিলেও শেষ ওভারে দিয়েছেন ১১ রান। প্রথম দুই বলে ১০ রান দেওয়ার পর টানা তিন বল ডট। শেষ বলটি ডট দিলেই সুপার ওভার হতো। কিন্তু পারেননি মুস্তাফিজ, এক রান দিয়েছেন।

টানা তিন ম্যাচে শেষ বলে মুম্বাই হারলেও মুম্বাইবাসী মুস্তাফিজের নিয়ে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন। সাবেক ক্রিকেটাররা কাটার মাস্টারের প্রশংসা করছেন। সবার আলোচনা একটাই- এ যেন সেই মুস্তাফিজ, মাঝের এক আসর আগে যিনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন। না, না মুস্তাফিজ নয়, এ তো ‘দ্য ফিজ’!

ক্রিকেট দলীয় খেলা বলেই কিনা মুস্তাফিজ একা আগুনে পারফর্ম করার পরও তার দল হারছে। তবে আজ ঘরের মাঠ ওয়াংখেড়েতে মুস্তাফিজের মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের প্রতিপক্ষ বিরাট কোহলির বেঙ্গালুরু রয়েল চ্যালেঞ্জার্স। হয়তো আজই জয় খরা কেটে যেতে পারে মুম্বাইয়ের। আর দলের জয়ের সঙ্গে মুস্তাফিজ যদি সেরা হতে পারেন তাহলে তো সোনায় সোহাগা!

এই পাতার আরো খবর
up-arrow