Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪৮
ক্রিকেটাররা কেন অপকর্মের নায়ক
ক্রীড়া প্রতিবেদক
ক্রিকেটাররা কেন অপকর্মের নায়ক
bd-pratidin

জর্জ বেস্ট- খেয়ালি এক ফুটবলার। অসাধারণ প্রতিভাবান এই ফুটবলার বিশ্বকাপ খেলেননি। পেলে, ম্যারাডোনার সমকাতারের ভাবা হয় না তাই এই আইরিশ ফুটবলারকে। ফুটবলার বেস্ট যতটা আলোকিত, তার চেয়েও বেশি সমালোচিত বেহিসেবি জীবনের জন্য। ম্যাচের আগে বান্ধবীদের নিয়ে যে লীলাখেলা করতেন, সেটা আবার ঘটা করে দেখাতেন ক্লাব সঙ্গীদের। বেস্টের মতো হয়তো বেহিসেবি নন সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, তাসকিন, রুবেল, আল-আমিন, আরাফাত সানি, মোহাম্মদ শহীদরা। কিন্তু যেভাবে তাদের অন্ধকার জীবন প্রকাশিত হচ্ছে দিন দিন, তাতে এমনটা বলাই যায় জর্জ বেস্টের চেয়ে পিছিয়ে নেই তারা।

শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বে জনপ্রিয়দের তালিকায় সবার উপরে ক্রীড়াবিদরা। জনপ্রিয়তায় সাকিব, মাশরাফিরা যে কারো চেয়ে এগিয়ে যোজন যোজন। এমন আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তাকে পুঁজি করে একের পর এক অপকর্ম করে চলেছেন সাব্বিররা। অপকর্ম করছেন অন্যরাও। কিন্তু আমজনতার স্বপ্নের নায়ক বলেই এন্তার অভিযোগ ক্রিকেটারদের নিয়ে। সাব্বির, নাসিরদের বিরুদ্ধে শুধু দর্শক পেটানোর অভিযোগ নয়, নারী সংস্পর্শ, বউ পেটানো, এমনকি গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগও রয়েছে। ক্রিকেটারদের বিচার সালিশি করতে করতে ক্লান্ত হয়ে যাওয়ার পথে বিসিবি।

ম্যাচ পাতানো, শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল, সাকিব আল হাসানরা। শোধরানোর সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু সেই পথে না হেঁটে দ্বিতীয়বার অপকর্ম করে আবারও নিষিদ্ধ হলেন সাব্বির। ১১ টেস্ট, ৫৪ ওয়ানডে ও ৪১টি-ম্যাচ খেলে প্রতিভার প্রমাণ রেখেছেন রাজশাহীর এই তরুণ ক্রিকেটার। প্রতিভাবান হলেও বেহিসেবি জীবনযাপনের জন্য আলোচনার খোড়াক জুগিয়ে গেছেন সবসময়। জানুয়ারিতে জাতীয় লিগ চলাকালীন দর্শক পিটিয়ে নিষিদ্ধ হন প্রথমবার। ২০ লাখ টাকা আর্থিক জরিমানার পাশাপাশি তখন ৬ মাস নিষিদ্ধ হন সব ধরনের ঘরোয়া ক্রিকেটে। এবার নিষিদ্ধ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে বাজে পারফরম্যান্সের জন্য তাকে ভর্ত্সনা করেন দর্শকরা। ক্ষিপ্ত সাব্বির ফেইসবুকে নিজের ভ্যারিফায়েড পেজ থেকে দুই দর্শককে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে সমালোচিত হন। বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটির তদন্তের মুখে স্বীকার করেন কৃতকর্ম। শুধু দর্শক পেটানো কিংবা ভয় দেখানোই নয়, নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। ২০১৬ সালে বিপিএল চলাকালীন রাতে হোটেল রুমে মেয়ে অতিথি এনে চুক্তির ৩০ শতাংশ বা ১৩ লাখ টাকা জরিমানা গুনেন। শুধু তাই নয়, পরিচিত এক মডেলের সঙ্গে তার আপত্তিকর সম্পর্কের কথা শোনা যায়। টিমমেট মেহেদী হাসান মিরাজের গায়ে হাত তোলার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। শুধু সাব্বির কেন, গত ৩/৪ বছরে রুবেল, আল-আমিন, আরাফাত, শাহাদাত, নাসির, শহীদদের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ ছিল না।

মডেল ও অভিনেত্রী নাজনীন আক্তার হ্যাপীর অভিযোগে জেলও খাটতে হয়েছিল রুবেলের। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রুবেলের বিরুদ্ধে শারীরিক সম্পর্ক করার অভিযোগ এনেছিলেন হ্যাপী। এই অভিযোগ থেকে রুবেল মুক্তি পান বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পরপর। আরেক পেসার আল-আমিনকে শৃঙ্খলা ভঙের জন্য বিশ্বকাপ ক্রিকেটের মাঝামাঝি সময়ে অস্ট্রেলিয়া থেকে ফেরত পাঠানো হয় দেশে। ২০১৬ সালে বিপিএল চলাকালীন হোটেল কক্ষে নারী অতিথি এনে মূল পারিশ্রমিকের ৫০ শতাংশ জরিমানা গুনতে হয় তাকে। গৃহকর্মী নির্যাতনের মামলায় পেসার শাহাদাত হোসেন রাজিব সস্ত্রীক পালিয়ে বেড়ান। শহীদের বিপক্ষে তার স্ত্রী মারধরের লিখিত অভিযোগ করেন বিসিবিতে। অভিযুক্ত শহীদ সম্প্রতি বিয়ে করেছেন আরেকটি। বাঁ হাতি স্পিনার আরাফাত সানির বিপক্ষে তার স্ত্রীর পরিচয় দেওয়া নাসরিন সুলতানা তথ্য প্রযুক্তি আইনে অভিযোগ করেন। এই মামলায় বেশ কয়েকদিন জেলাখানায় থাকতে হয়েছিল আরাফাতকে। নাসিরের বিপক্ষে একাধিক সিম ব্যবহার করে মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ আলোচনায় এসেছে বারবার। সর্বশেষ এক মডেলের সঙ্গে তার ফোনালাপ বিব্রত করেছে বিসিবিকে।

ক্রিকেটারদের এহেন আপত্তিকর অপকর্মে বিরক্ত বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিন-চারদিন আগে পরিচালকদের সঙ্গে আলোচনা করে অভিযুক্ত ক্রিকেটারদের কঠিন শাস্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তারপরও ক্রিকেটাররা কি এসব অপকর্ম থেকে সরিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের? সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও বেশি করে জড়াচ্ছেন অপকর্মে। আশ্চর্য হলেও সত্যি দলের সিনিয়র ক্রিকেটার মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহর বিপক্ষে নারীঘটিত কিংবা অন্য কোনো অভিযোগ নেই। সতীর্থ হয়ে খেলছেন একসঙ্গে। অথচ তাদের কাছ থেকে সাব্বির, নাসিররা শিখছেন না কিছুই।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow