Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪১
সেই ভুটানকে ঘিরে যত ভয়!
ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রতিপক্ষ যখন ভুটান। তখন অপেক্ষা ছিল একটাই কত গোলে জিতবে বাংলাদেশ। ভুটান জিতবে এই ভয় কারও ছিল না। এখন সেই দৃশ্য বদলাতে শুরু করেছে। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে ভুটানও এখন বাংলাদেশকে হারায়। তাও আবার ৩-১ গোলে। তাইতো আজ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে গ্রুপের প্রথম ম্যাচে ভুটান প্রতিপক্ষ হলেও বাংলাদেশ কী করবে এ নিয়ে টেনশনে থাকতে হচ্ছে। যে ভুটান গোলের বন্যায় ভেসে যেত তারাই কিনা ২০১৫ সালে বড় অঘটনের জন্ম দেয়। এশিয়া কাপ প্রাক-বাছাইয়ে অ্যাওয়ে ম্যাচে ঢাকায় বাংলাদেশের বিপক্ষে ড্র করেছিল। অনেকে ভেবেছিলেন ঢাকায় জিততে না পারলেও থিম্পুতে বাংলাদেশ ঠিকই ভুটানকে বিধ্বস্ত করবে। তা আর হলো কই, উল্টো জামালদের নিয়ে ছেলেখেলা খেলে জয় পেয়ে ফুটবল ইতিহাসে বাংলাদেশকে বড় লজ্জায়  ফেলে দিয়েছিল। গত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপেও গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিলেও বাংলাদেশ সান্ত্বনার এক জয় পায় ভুটানের বিপক্ষে। সেই দেশই  কিনা এশিয়া কাপ প্রাক-বাছাই পর্বে জয় পেয়ে বুঝিয়ে দিল ফুটবলে তারা নড়েচড়ে বসছে।

পাকিস্তান আমলে ঢাকার আগাখান গোল্ডকাপ ক্লাবভিত্তিক হলেও ভুটানের জাতীয় দলই নিয়মিত অংশ নিতো। জাতীয় দল হলেও কখনো তারা মোহামেডান, ওয়ান্ডারার্স কিংবা ইপিআইডিসির বিপক্ষে গোলের বন্যায় ভেসে যেত। ষাট দশকে মোহামেডানের কাছে ১০ গোলে হারার রেকর্ড রয়েছে ভুটানের। ১৯৮০ সালে ঢাকা লিগে মোহামেডানের পক্ষে দুটি ম্যাচ খেলেন ভুটানের তারকা ফুটবলার বাসনাত। মোহামেডানে খেলার জন্য তৎকালীন ভুটানের রাজা বাসনাতকে সংবর্ধনা দিয়েছিলেন। এসব বর্তমান প্রজন্মের ক্রীড়ামোদীদের কাছে রূপকথার কাহিনীই মনে হবে। কেননা তারাতো এখন দেখছেন ভুটানের কাছে বাংলাদেশ হারছে। আসলে ২০১৫ সালে এক হারই সবার ভিতরে ভয় ঢুকে গেছে। শক্তির বিচারে সাফে ঘরের মাঠে বাংলাদেশ ফেবারিট। তারপরও ভুটানকে এখন হিসেবের মধ্যে আনতে হচ্ছে।           কেননা মেয়েদের কাছে জয়টা মামুলি হলেও পুরুষ জাতীয় দল বলেই যত সংশয়। সেই ভয়কে জয় করে বাংলাদেশের যাত্রাটা শুভ হয় কিনা সেটাই এখন অপেক্ষা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow