Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১৭
গলফে সাখাওয়াতের চমক
ক্রীড়া প্রতিবেদক
গলফে সাখাওয়াতের চমক
bd-pratidin

দেশের ক্রীড়ামোদীদের দৃষ্টি নিবদ্ধ ছিল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের দিকে। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবলে নেপালের মুখোমুখি বাংলাদেশ। কিন্তু এই ফুটবল উন্মাদনার দিনে গলফে অসাধারণ এক কীর্তি গড়লেন গলফার সাখাওয়াত হোসেন সোহেল। মালয়েশিয়া অনুষ্ঠিত এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ট্যুরের (এডিটি) শিরোপা জিতেছেন বাংলাদেশের এই তারকা গলফার।

পিজিএম মিরি চ্যাম্পিয়নশিপে প্লে-অফে সাখাওয়াত হারিয়েছেন থাইল্যান্ডের তরুণ গলফার নিতিথর্ন থিপোং-কে।

চার রাউন্ডের খেলায় প্রথম রাউন্ডে আলোচনাতেই ছিলেন না সাখাওয়াত। প্রথম দুই দিনে পারের চেয়ে ১ শট বেশি খেলেও ‘কাট’ নিশ্চিত করেন তিনি। তবে তৃতীয় রাউন্ড থেকেই ক্যারিশমা দেখাতে শুরু করেন। ওই রাউন্ডে পারের চেয়ে তিন শট কম খেলেছেন। গতকাল শেষ দিনে পারের চেয়ে ৫ শট কম খেলেছেন। চার রাউন্ড মিলে পারের চেয়ে মোট ৭ শট কম খেলেছে থাইল্যান্ডের গলফার থিপোংয়ের সঙ্গে যৌথভাবে শীর্ষে ওঠেন। শেষে চ্যাম্পিয়ন নির্ধারণের জন্য কোর্সের ১৮নং হোলে প্লে-অফে জিতে যান সাখাওয়াত। সিদ্দিকুর রহমানের পর প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে এশিয়ান ডেভেলপমেন্টের শিরোপা জিতলেন এই তারকা গলফার।

এই মালয়েশিয়াতেই চলতি বছরের জুলাইয়ে প্লে-অফে হেরে গিয়েছিলেন সাখাওয়াত। সেই মালয়েশিয়াতেই এবার স্বপ্ন পূরণ হলো তার। শিরোপা জয়ের পর সাখাওয়াত বলেন, ‘আমার খুবই ভালো লাগছে। সত্যিকার অর্থে আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না আমি কতটা বেশি খুশি হয়েছি। আমার ক্যারিয়ারে প্রথম এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ট্যুরের শিরোপা বলে অনুভূতিটাই অন্যরকম।’

মাস দুয়েক আগে খুব কাছে গিয়ে শিরোপা জিততে না পারার হতাশাই নাকি এবার সাখাওয়াতকে উজ্জীবিত করেছে। গতকাল যখন প্লে-অফে অংশ নেন, তখন খুবই শান্ত ছিলেন তিনি। সাখাওয়াত খুব ভালো করেই জানেন, প্লে-অফে মাথা ঠাণ্ডা রাখতে হয়। একটু এদিক সেদিক হলেই শিরোপা হাতছাড়া হয়ে যাবে। গত জুলাইয়েই তা হারে হারে টের পেয়েছেন। সাখাওয়াত বলেন, ‘কয়েক মাস আগে আমি যখন প্লে-অফে হেরে গিয়েছিলাম সে অনুভূতি ছিল অন্যরকম। খুবই কষ্ট পেয়েছিলাম। সেই অভিজ্ঞতাই এই আসরে আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে। আজ (গতকাল) আমি খুবই নির্ভার ছিলাম। আমি কেবল ভেবেছি কিভাবে আমি জিততে পারবো। জয়ের কথা চিন্তা করে আমি উত্তেজিত না রেখে মাথা ঠাণ্ডা রেখেছিলাম।’ এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ট্যুরের ‘মেরিট অব অর্ডার’-এ ২০তম থেকে এক লাফে ৬-এ উঠে এসেছেন সাখাওয়াত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow