Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪০
শিরোপার হাসি মারিয়াদের
বাংলাদেশ ২ : ০ ভিয়েতনাম
ক্রীড়া প্রতিবেদক
শিরোপার হাসি মারিয়াদের
এএফসি বাছাই পর্বে চ্যাম্পিয়নের পর জাতীয় পতাকা নিয়ে উল্লসিত অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবলাররা —বাফুফে

লাল-সবুজ পতাকায় নিজেকে মুড়ে নিলেন আঁখি খাতুন। তার আগে সম্মিলিতভাবে কমলাপুরের বীর শ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামের সবুজ জমিনে চুম্বন এঁকে দেন বিজয়ী মারিয়া মান্ডারা। এরপর পতাকা হাতে নাচতে থাকেন। দর্শক সারিতে শোর উঠে। বিজয়ের গৌরবে আরও একবার মেয়েরা উঁচু করল শির। এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বে গতকাল শক্তিশালী ভিয়েতনামের বিপক্ষে জয়ের কোনো বিকল্প ছিল না দলটার। কাঙ্ক্ষিত সেই জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। ভিয়েতনামকে ২-০ গোলে উড়িয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই বাছাই পর্বের দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করল বাংলাদেশ। বিকল্প ছিল। ড্র করলেও চূড়ান্ত পর্বে খেলার সুযোগ ছিল। এমনকি পরাজিত হলেও ভয় ছিল না তেমন একটা। কিন্তু জয়ের জন্য বদ্ধপরিকর ছিলেন মারিয়া মান্ডারা। সব ম্যাচ জিতেই দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে চাইছিলেন। সেই লক্ষ্য পূরণ করলেন তারা। অবশ্য হেরেও দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করেছে ভিয়েতনাম। বাছাই পর্বের প্রথম রাউন্ডে ছয়টি গ্রুপ থেকে ছয় গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন এবং সেরা দুই রানার্সআপ দল দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার সুযোগ পেয়েছে। ভিয়েতনাম ছাড়াও সেরা রানার্সআপ হিসেবে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করেছে ফিলিপাইন। দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও ফিলিপাইন ছাড়াও আছে অস্ট্রেলিয়া, চীন, ইরান, লাওস ও মিয়ানমার। এ গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে চীন, বি গ্রুপ থেকে লাওস, সি গ্রুপ থেকে ইরান, ডি গ্রুপ থেকে অস্ট্রেলিয়া, ই গ্রুপ থেকে মিয়ানমার এবং ফিলিপাইন দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করেছে। কিছুদিন আগে মারিয়াদের হারিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জেতা ভারতীয় মেয়েরা বি গ্রুপ থেকে বাদ পড়েছে।

গতকাল ম্যাচের শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলেছেন মারিয়া মান্ডা, অঁখি খাতুন, তহুরা আর সাজেদা খাতুনরা। বার বার ভিয়েতনামের গোলবারে আক্রমণ করেছেন। প্রতিপক্ষের ডিফেন্স লাইন ভেঙে প্রবেশ করেছেন ডি বক্সের সীমানায়। অবশ্য প্রথম গোলটা পেতে অপেক্ষা করতে হয়েছে প্রথমার্ধের শেষ মিনিট পর্যন্ত। ৪৫তম মিনিটে প্রথম গোল করেন তহুরা খাতুন। অনাই মগিনির ক্রসে ভিয়েতনামের গোলরক্ষক দাও থি বল নিয়ন্ত্রণে নিতে পারেননি। জটলা থেকে শট নেন শামসুন্নাহার। গোললাইনের কাছ থেকে তহুরা হেড করে বল জালে জড়ান। ম্যাচের শুরু থেকেই বল দখলের লড়াইয়ে যাননি মারিয়ারা। কাউন্টার আক্রমণেই সফল হওয়ার মন্ত্র শিখিয়েছিলেন গোলাম রব্বানী ছোটন। অবশ্য এর আগেই এগিয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। শামসুন্নাহারের পায়ের আলতো ছোঁয়ায় বল জালে জড়িয়েছিল। তবে অফসাইডের অজুহাতে গোলটা বাতিল করা হয়। প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় বাংলাদেশের মেয়েরা। দ্বিতীয়ার্ধেও কাউন্টার আক্রমণকেই পুঁজি করে খেলতে থাকে দলটা। ৫৯তম মিনিটে তহুরা খাতুনের গোল আবারও অফসাইডের অজুহাতে বাতিল করেন রেফারি। অবশ্য ৬৩তম মিনিটে দলকে ২-০ গোলে এগিয়ে দেন আঁখি খাতুন। অধিনায়ক মারিয়া মান্ডার কর্নার কিক থেকে বল পেয়ে হেড করেন শামসুন্নাহার। তার হেড ক্রসবারে লেগে ফিরে এলে আঁখি খাতুন বল পেয়ে যান। তবে তার প্রথম শট ফিরিয়ে দেন ভিয়েতনামের গোলরক্ষক। দ্বিতীয় শটে গোল করেন আঁখি খাতুন। এই গোলের মধ্য দিয়েই বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত হয়ে যায়। এরপর আরও একটা গোল করেন তহুরা ৮৫তম মিনিটে। তবে এবারেও অফসাইডের অজুহাতে গোল বাতিল করেন রেফারি। নাহলে বাংলাদেশ বেশ বড় ব্যবধানেই জিততে পারতো। বাছাই পর্বের প্রথম রাউন্ডে এফ গ্রুপ থেকে টানা চার ম্যাচ জিতে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করল বাংলাদেশ। এই চার ম্যাচে নিজেদের গোলবার সম্পূর্ণ অক্ষত রেখে প্রতিপক্ষের জালে ২৭ গোল দিলেন মারিয়ারা। চার ম্যাচ খেলে ১২ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। সমান ম্যাচে ৯ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে ভিয়েতনাম। গতকাল দুই দল ড্র করলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতো ভিয়েতনাম। বাংলাদেশ আগের তিন ম্যাচে হলুদ কার্ড দেখেছে তিনবার। অন্যদিকে ভিয়েতনাম কোন কার্ডই দেখেনি। পয়েন্ট এবং গোল ব্যবধান সমান থাকতো ম্যাচটা ড্র হলে। সেক্ষেত্রে ডিসিপ্লিনারি রেকর্ড দেখেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন নির্ধারণ করা হতো। এই হিসেবের মধ্যে গেলই না বাংলাদেশের মেয়েরা। সরাসরি জয় তুলেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলেন মারিয়া মান্ডারা। এবার দ্বিতীয় রাউন্ডে চ্যাম্পিয়ন হয়ে চূড়ান্তপর্ব খেলার হাতছানি। গতবারও বাংলাদেশ চূড়ান্ত পর্বে খেলেছিল। কোনো জয় পায়নি অবশ্য। তবে এবার চূড়ান্ত পর্বে গেলে নতুন স্বপ্ন নিয়েই খেলবে বাংলাদেশের মেয়েরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

এই পাতার আরো খবর
up-arrow