Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : ২ মার্চ, ২০১৭ ১৬:৪১ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২ মার্চ, ২০১৭ ১৬:৪২
আজ চুড়ান্ত যুদ্ধে নামছে পোচন-টিসি
মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম:
আজ চুড়ান্ত যুদ্ধে নামছে পোচন-টিসি
ফাইল ছবি

শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের পর্দা নামছে আজ। মালদ্বীপের টিসি স্পোটর্স ও দক্ষিণ কোরিয়ার পোচন সিটিজেন এফসি’র ফাইনালের মধ্য দিয়ে দেশের ফুটবলের আলোড়ন সৃষ্টি করা এ টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় আসরের সমাপ্তি ঘটছে।

আজ সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে দু'দল।

প্রথম আসরে স্বাগতিক চট্টগ্রাম আবাহনী চ্যাম্পিয়ন হলেও এবার সেমি ফাইনাল থেকে বিতর্কিত রেফারিংয়ের কারণে বিদায় নিতে হয়েছে চ্যাম্পিয়ন। এমনকি গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় বিপিএল চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী এবং দেশের ঐতিহ্যবাহি দল ঢাকা মোহামেডান। ফাইনালে দেশীয় কোন দল না থাকায় ফাইনালে দর্শক খরার কথা বলছেন ক্রীড়া সংগঠকরা। তবে দেশীয় কোন দল না থাকাকেই সাফল্য হিসেবে দেখছেন আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব শামসুল হক চৌধুরী এমপি। তিনি বলেন, ‘আমরা সুন্দর একটি টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে চেয়েছি। দেশীয় দল ফাইনাল খেলবে এমন চিন্তা না করে আন্তর্জাতিক মানের একটি টুর্নামেন্ট উপহার দিতে চেয়েছি। এতে আমরা সফল হয়েছি। আশা করছি দেশী ক্লাব আছে কি না, নেই তা চিন্তা না করে ফাইনালে দর্শকরা উপস্থিত হবে। ’

টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই অপ্রতিরোধ্য ফুটবল উপহার দিয়ে আসছিল মালদ্বীপের টিসি স্পোটর্স। তারা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সেমি ফাইনালে ওঠে।  গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ১-০ গোলে শক্তিশালী ঢাকা আবাহনী লিমিটেডকে হারায়। দ্বিতীয় ম্যাচে ২-১ গোলে কিরগিজস্তানের এফসি আলগাকে হারালেও গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ফাইনালের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়ার পোচন সিটিজেন এফসি'র সাথে ড্র করে। সেমি ফাইনালে আরেক শক্তিশালী দল মানাং মার্সিয়াংদিকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমি ফাইনাল নিশ্চিত করে। ইব্রাহিম মাহমুদী, স্টুয়ার্ডসহ মেধাবী ফুটবলারদের নিয়ে গড়া স্কোয়াডটিকে নিজেদের দিনে যে কাউকে হারিয়ে দিতে পারে। তাই শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের চ্যাম্পিয়ন দল হিসেবে টিসি’র নাম উচ্চারিত হচ্ছে সব চেয়ে বেশি।  দক্ষিণ কোরিয়ার বিভাগীয় পর্যায়ের তৃতীয় স্তরের দল হলেও বেশ ভাল দল গঠন করেছে পোচন সিটিজেন এফসি। তাদের দলে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার অলিম্পিক দলের তিন খেলোয়াড়। শুরু থেকেই শৈল্পিক ফুটবল খেলে দর্শকদের মন জয় করেছে দলটি। এক জয় ও দু ড্র নিয়ে এ গ্রুপের দ্বিতীয় দল হিসেবে সেমি ফাইনাল নিশ্চিত করে পোচন। সেমিফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনীর বিরুদ্ধে গোল হজম করে পিছিয়ে পড়লেও ম্যাচে ফিরে এসেছে অসাধারণ ভাবে। যদিও ফাইনালে যাওয়ার ক্ষেত্রে রেফারির ভুমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। তারপর কিম জেই ইয়ং’র শিষ্যরা চ্যাম্পিয়ন চট্টগ্রাম আবাহনীকে ১-২ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে। আজ ফাইনালে টিসি’র চেয়ে কোন অংশ পিছিয়ে থাকছে না পোচন। অপ্রতিরোধ্য টিসি স্পোটর্সকে হারিয়ে দিয়ে তারাও হাসতে পারে শেষ হাসি।

চুড়ান্ত যুদ্ধ নামার আগে আজ ঘাম ঝড়িয়ে অনুশীলন করেছে দু'দল। অনুশীলনের ফাঁকে ফাঁকে নিজেদের দুর্বল দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করেছে খেলোয়াড়রা। শুক্রবারের ফাইনালের আগে গণমাধ্যমের সাথে কথা বলেছেন দু'দলের অধিনায়ক ও কোচরা।  
মালদ্বীপের টিসি স্পোটর্সের কোচ নিজাম মোহাম্মদ বলেন, বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দলকে হারিয়েছি। খেলোয়াড়রা মুখিয়ে আছে চ্যাম্পিয়ন হবার জন্য। প্রতিপক্ষ পোচনের প্রশংসা করে তিনি বলেন, পোচন সিটিজেন প্রতিপক্ষ হিসাবে শক্ত প্রতিপক্ষ। তারা গোছালো একটি দল। তারা কিভাবে খেলে এটা মাথায় রেখে আমরা পরিকল্পনা সাজিয়েছি। দক্ষিণ কোরিয়ার পোচন সিটিজেন ফুটবল ক্লাব কোচ কিম জেই ইয়ং বলেন, ফাইনালে জয়ী হয়ে ট্রফি দেশে নিয়ে যেতে চাই। প্রতিপক্ষের বিষয়ে বলেন, তাদের গ্রুপ পর্বে মোকাবেলা করেছি। আমরা তাদের দুর্বলতা এখন বলতে চাই না। গত খেলার লাল কার্ড কেন হয়েছে তিনি সেটা এখনো মানতে নারাজ। তবে তার দলে অনেক ভালো খেলোয়াড় রয়েছে এজন্য তিনি চিন্তিত নন।

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার

আপনার মন্তব্য

up-arrow