Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৬ আগস্ট, ২০১৮ ১৭:০৩ অনলাইন ভার্সন
অনুশীলনে ভুল করলেই ৫০০ টাকা জরিমানা!
অনলাইন ডেস্ক
অনুশীলনে ভুল করলেই ৫০০ টাকা জরিমানা!

ট্রেনিং সেশনে সামান্য ভুল। আর হবে না, স্যার বলে পাশ কাটিয়ে গেলেন কোনও খেলোয়াড়। পরে দেখা গেল হয়তো এক বা দুদিন বাদে সেই একই ভুল সেই খেলোয়াড় আবার করলেন। অর্থাৎ, ভুল থেকে তিনি আদতে শিক্ষা নিলেন না। এমনকী, ভুলের কথাটা বেমালুম ভুলেই গেলেন। 

হরেন্দ্র সিংয়ের বুঝতে অসুবিধা হয়নি, এটা আসলে একটা প্রবণতা। ভুল সবাই করে। কিন্তু ভুল থেকে শিক্ষা নেয় কতজন! 

হরেন্দ্র সিং সেখান থেকেই ভাবতে শুরু করলেন। অনেক ভেবে তিনি বুঝতে পারলেন, ভুলের জন্য যদি মাশুল দিতে হয় তাহলে সেই ভুল কোথাও একটা যেন শিক্ষার ছাপ রেখে যায়। 

ভারতীয় হকি দলে এখন মিলিটারি শাসন চলছে। চার বছর আগে ইনচিওনে এই ভারতীয় হকি দলই খেতাব জিতেছিল। চার বছর পর আবার এশিয়া কাপ। পুরনো টুর্নামেন্টে আবার নতুন চ্যালেঞ্জ। 

ভারতীয় ক্রিকেট দলের মতো হকি দলের কাছ থেকেও এদেশের ক্রীড়া প্রেমীদের প্রত্যাশা অনেকটা থাকে। কারণ, দেশ-বিদেশে বরাবর বড় বড় টুর্নামেন্টে ভারতীয় হকি দল নিজেদের জাত প্রমাণ করে এসেছে। এমন একটা দলের সম্মান ও ভবিষ্যৎ যেন অটুট থাকে তাই কোচ হরেন্দ্র সিং এখন থেকেই সতর্ক হতে শুরু করেছেন। 

এশিয়া কাপে নামার আগে তাই তিনি সবার আগে দলের চরিত্র গঠনের কাজে নেমেছেন। ভুল জার্সি পরে নামলে, প্র্যাকটিসে দেরি করে এলে, ট্রেনিং সেশনে কোনও ভুল করলে দলের প্রত্যেককে ৫০০ টাকা করে জরিমানা দিতে হবে। 

শুধু খেলোয়াড়দের নয়। যে কোনও রকম ভুল করলে একই নিয়ম চালু থাকবে সাপোর্ট স্টাফদের জন্যও। 

হরেন্দ্র সিং বলেন, ট্রেনিং যদি ৮টায় শুরু হয় আর আমি ৮টা বেজে ২ মিনিটে মাঠে আসি, তা হলে আমাকেও ৫০০ টাকা জরিমানা দিতে হবে। দলের বাকি ১০ জন একরকম নিয়মে চলছে আর আমি অন্য রকম নিয়মে, তাহলে বুঝে নিতে হবে যে আমি ভুল দিকে চালিত হচ্ছি। নিজেকে তখনই সতর্ক করা উচিত। শুধু তাই নয়, আমি ওদের জরিমানা ছাড়াও আরেক রকম শাস্তির ব্যবস্থা করেছি। ওদের মধ্যে যে ভুল করবে তাকে সর্বক্ষণ একটা টুপি পরে থাকতে হবে। 

রুস্টার হ্যাট। টুপিটা দেখে হাসি পাবে। কিন্তু পরোক্ষভাবে ওরা নিজেদের ভুলের উপরই হাসবে। সেই হাসির মধ্যে দিয়ে নিজেদের অজান্তেই প্রত্যেকে পরেরবার ভুল না করার অঙ্গীকার করবে।

ভারতীয় হকি দলের ক্যাপ্টেন পিআর শ্রীজেশ বলছেন, হরেন্দ্র সিং হলেন টিপিকাল ভারতীয় কোচ। উনি জানেন কেমনভাবে খেলোয়াড়দের নিয়ন্ত্রণে রাখতে হয়। অনেক সময় আমরা একজন ভুল করে মাঠ ছাড়ি। আর সেই শূন্যস্থান পূরণ করতে গোটা দলকে নেমে পড়তে হয়। সেই শূন্যস্থান পূরণ করার কাজটা কিন্তু সহজ হয় না। আমরা সবাই এই সহজ সত্যিটা শিখে নিতে চাই। তাই এরকম একটা নিয়মের দরকার ছিল।

বিডি প্রতিদিন/১৬ আগস্ট ২০১৮/আরাফাত

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow