Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০১৮ ১৮:২৩ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ অক্টোবর, ২০১৮ ১৯:৩৪
জিম্বাবুয়েকে ২৭২ রানের টার্গেট দিল টাইগাররা
অনলাইন ডেস্ক
জিম্বাবুয়েকে ২৭২ রানের টার্গেট দিল টাইগাররা
মুশফিকের সঙ্গে ৪৯ রানের জুটি গড়েন ইমরুল। ছবি: সংগৃহীত

ইমরুল কায়েস সেঞ্চুরি ও মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের হাফ সেঞ্চুরির ওপর ভর করে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৭১ রান করেছে বাংলাদেশ। ফলে জয়ের জন্য জিম্বাবুয়েকে করতে হবে ২৭২ রান।

দলকে মহাবিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করেছেন ইমরুল। তার আর অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনের সপ্তম উইকেট জুটিই বাংলাদেশকে নিরাপদ বন্দরে পৌঁছে দেয়। এখন বোলাররা কি করেন সেটিই দেখার পালা।

তিন উইকেটে ১৩৬ রান। এরপর ৬ রান যোগ করতেই পড়ে যায় তিনটি ‍উইকেট। ১৩৯ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে যখন ঘোর অমানিশায় টাইগাররা তখন হাল ধরেন ইমরুল ও সাইফউদ্দিন। তাদের দায়িত্বপূর্ণ ব্যাটিংয়ে সপ্তম উইকেট জুটিতে শতাধিক রান আসে। এর রানের উপর ভর করে বাংলাদেশ স্কোর ২৫০ ছাড়ায়।

আন্ডারডগ জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ১৩৯ রানে ছয় উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ যখন চোখে শর্শে ফুল দেখছিল তখন ইমরুল একজন সঙ্গী খুঁজছিলেন। পেয়েও গেলেন একজন নির্ভরযোগ্য সঙ্গী। তিনি সাইফউদ্দিন। দলকে টেনে নিয়ে যান প্রায় দুইশ'র কোটায়।

মিরপুরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে দ্রুত দুই উইকেট হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ে বাংলাদেশ‌। দলীয় ১৬ রানের মাথায় বিদায় নেন ওপেনার লিটন দাস। এরপর এক রান যোগ করতেই পড়ে আরো ১ উইকেট। এই যখন অবস্থা তখন শক্ত হাতে হাল ধরেন দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও ইমরুল কায়েস।

তাদের ব্যাটে প্রাথমিক বিপরর‌্যয় কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করে টাইগাররা। কিছুটা সফলও হন তারা। দলীয় ১৭ রানে দুই উইকেট পড়ে যাওয়ার পর দলের স্কোর টেনে ৬৬ পর্যন্ত নিযে যান অভিজ্ঞ দুই ব্যাটসম্যান। দলকে বড় স্কোরের স্বপ্নও দেখাচ্ছিলেন। হাত খুলে খেলছিলেন ইমরুল কায়েস। আর দেশেশুনে ব্যাট করছিলেন মুশফিক।

কিন্তু ১৪ ওভারের শেষ বলে মাভুতার বলে ক্যাচ দেন মুশফিক। আম্পায়ার প্রথমে আউট দেন নি। কিন্তু জিম্বাবুয়ে দলের অধিনায়ক রিভিউ চেয়ে বসেন। পরে আম্পায়ার আঙ্গুল তুলে সারেন্ডার করেন।

মুশফিক আউট হওয়ার পর মাঠে নামে মিঠুন। মিঠুনের সঙ্গে জুটি বাধেন ইমরুল। মিঠুনের পর যারা মাঠে নামের তারা কেউই দাঁড়াতে পারেন নি।

বাংলাদেশ দলের পক্ষে ইমরুলের ১৪৪ ছাড়াও ভালো করেছেন সাইফউদ্দিন। হাফসেঞ্চুরি বঞ্চিত করেছেন ৬৭ বল খেলে। মিঠুন করেছেন ৩৭ আর মুশফিক ১৫ রান। আর কেউই দুই অংশ ছুঁতে পারেননি।

বিডি-প্রতিদিন/২১ অক্টোবর, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow