Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৬:২১ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১০:০৫
আইপিএলে ৮ কোটি টাকায় প্রীতির পাঞ্জাবে 'রহস্যময়ী স্পিনার'
অনলাইন ডেস্ক
আইপিএলে ৮ কোটি টাকায় প্রীতির পাঞ্জাবে 'রহস্যময়ী স্পিনার'
প্রীতি জিনতা-বরুণ চক্রবর্তী

ভাল খেলতে পারেন না, আর সেই কারণে একসময় খেলা ছেড়ে দিয়েছিলেন। পাঁচ বছর স্থাপত্যবিদ্যা নিয়ে পড়াশোনা করে সেটাকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন। কিন্তু ক্রিকেটের প্রতি ভালবাসাটা যে থেকে গিয়েছিল। আর তাই কয়েকদিন চাকরি করার পর আবারও ক্রিকেটে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। 

২৫ বছর বয়সে সবাই যখন নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা করে, সেই বয়সেই অনিশ্চয়তার জীবন বেঁছে নিয়েছিলেন তামিলনাড়ুর রহস্য স্পিনার বরুণ চক্রবর্তী। শেষপর্যন্ত সেই ঝুঁকি নেওয়ার দাম পেলেন তিনি। অনেক তারকা ক্রিকেটারদের পিছনে ফেলে আইপিএল'র নিলামে যুগ্মভাবে সর্বোচ্চ দাম পেলেন বরুণ। সৌজন্যে তামিলনাড়ু প্রিমিয়ার লিগে অসাধারণ পারফরম্যান্স। অথচ গতবছরও কিন্তু এই বরুণ ছিলেন একজন চতুর্থ ডিভিশনের খেলোয়াড়। 

তবে চলতি বছরে তামিলনাড়ু প্রিমিয়ার লিগে চ্যাম্পিয়ন হওয়া সাইচিম মাদুরাই প্যান্থারসের হয়ে ৪.‌৭ ইকনমি রেটে ৯টি উইকেট পান বরুণ। আর তারপর থেকেই তার দিকে নজর পরে আইপিএল'র দলগুলির। তবে এভাবে খেলা ছাড়ার পর আবারও ফিরে আসার লড়াইটা সহজ ছিল না। 

বরুণ জানিয়েছেন, ‘‌ফের ক্রিকেটে ফেরার কথা ভাবার পরও নানা সমস্যা ছিল। তখন আমি পেস বোলিং করতাম। আমার সঙ্গে কারোর যোগাযোগ ছিল না। কোনও খেলোয়াড় কিংবা কোচকে চিনতাম না। আবদুল জব্বার ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে যোগাযোগ করতে তারা আমায় জানায় যে, সেখানে কেবল কুড়ি বছরের নীচে যাদের বয়স, তারাই খেলার সুযোগ পায়। 

আর আমার তো তখন ২৫ বছর বয়স। মুখে একগাল দাঁড়ি। আমি শুধু বলি, দিনে কেবল তি ঘণ্টা বল করব। এতেই আমি খুশি।’ এভাবে ধীরে ধীরে যোগাযোগ বাড়তে থাকে। ‌এরপর একটি চতুর্থ ডিভিশনের ক্লাবে খেলা শুরু করেন। যদিও তখনও তিনি মিডিয়াম পেস বোলিংই করতেন। কিন্তু এরপরই চোট পেয়ে ছ’‌মাসের জন্য মাঠের বাইরে চলে যান। 

আর এই চোটই যেন শাপে বর হল। এই সময় স্পিন বোলিংয়ের দিকে নজর দেন। মাঠে ফিরেও আর পেস নয়, স্পিন বোলিংই করতে থাকেন। অফস্পিন, লেগস্পিন, গুগলি মিলিয়ে মোট আট ধরনের বল করতে শুরু করেন বরুণ। টেনিস বলে ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা এই সময় তাকে অনেকটা সাহায্যও করে। আর তার এই বৈচিত্রময় বোলিংয়ের জন্য ব্যাটসম্যানরা তাকে খেলতেও অসুবিধায় পড়েন। 

জুবিলি সিসি'র হয়ে ২৬টি উইকেটও পান তিনি। এরপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি। গতবছর তিনি চেন্নাই সুপার কিংস এবং কলকাতা নাইট রাইডার্সের নেটে বোলিংও করেছেন। কেকেআর'র নেটে আবার সুনীল নারিনকেও অনেকটা কাছ থেকে দেখেছেন বরুণ। তার কাছ থেকে টিপসও নেন। পরে আবার নারিনের ব্যক্তিগত কোচ কার্ল ক্রোয়ের সঙ্গেও কথা বলেন। এই লড়াইয়ে কখনই দমে যাননি। 

আর এবার চেন্নাই প্রিমিয়ার লিগে খেলার পর আশায় ছিলেন পারফরম্যান্সের জোরে আইপিএল'র কোনও দলে ঠিক ডাক পাবেন। আর গতকাল মঙ্গলবার বরুণের সেই অপেক্ষার অবসান ঘটল। ২০ লক্ষের বেস প্রাইজ থেকে ৮ কোটি ৪০ লক্ষ টাকায় তাকে কিনে নিল প্রীতি জিন্তার পাঞ্জাব। এখন দেখার বিশ্বের সবচেয়ে দামী ক্রিকেট টুর্নামেন্টেও নিজের ‘‌রহস্য’‌ বজায় রাখতে পারেন কি না বরুণ।


বিডি-প্রতিদিন/ আব্দুল্লাহ সিফাত

আপনার মন্তব্য

up-arrow