Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৪০
গাজীপুরে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের ছড়াছড়ি
আফজাল, টঙ্গী
গাজীপুরে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের ছড়াছড়ি
টঙ্গীতে ঝুঁকিপূর্ণ চারতলা আবাসিক ভবন (বামে) অপর একটি পাঁচতলা ভবনে হেলে পড়েছে

গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের ছড়াছড়ি। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় শত শত ঝুঁকিপূর্ণ বহুতল ভবন নির্মাণ করে কেউ বাসাবাড়ি আবার কেউ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যবহার করছেন। এসব ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা না নেওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। তবে এর মধ্যে পুরনো ভবনের চেয়ে প্ল্যানবহির্ভূত ভবনের সংখ্যাই বেশি। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, ঝুঁকিপূর্ণ এসব ভবন ধসে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

ঝুঁকিপূর্ণ ভবন তালিকা সূত্রে জানা যায়, নগরীর টঙ্গী সৈলারগাতী ছয়তলা দারুল উলুম মাদ্রাসা, মেঘনা টেক্সটাইল মিলস শ্রমিক কলোনি, মরকুন শামসুদ্দিন মেমোরিয়াল স্কুল, দত্তপাড়া নাদিম ভিলা, দত্তপাড়া ফিন ফ্যাশন গার্মেন্টস, এরশাদনগর মজিদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, মধুমিতা রোডে রেনেসা প্রি-ক্যাডেট অ্যান্ড হাইস্কুল, মাছিমপুর শ্রম কল্যাণ অফিস, চেরাগআলী টঙ্গী পৌরসভা, গাছা, পুবাইল ও জয়দেবপুরসহ দুই শতাধিক ঝুঁকিপূর্ণ ভবন রয়েছে। চার বছর আগে গাজীপুরা পশ্চিম পাড়া এলাকার বাসিন্দা পারুল আক্তার ও তার ভাই তাদের পৈতৃক জমিতে সাবেক টঙ্গী পৌরসভার অনুমোদন না নিয়েই প্ল্যানবিহীন একটি চারতলা ভবন নির্মাণ করেন। গত ১৩ এপ্রিল মৃদু ভূমিকম্পে ওই ভবনটি অপর একটি পাঁচতলা ভবনের ওপর হেলে পড়ে। এ ঘটনায় সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ ভবনটি অবিলম্বে অপসারণ করার নোটিস দিলেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওই ভবনের বাসিন্দারা এখনো বসবাস করছেন। গাজীপুরা এলাকার বাসিন্দা মো. কামরুজ্জামান মোল্লা বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনটি যে কোনো সময় ধসে ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে পারে।

গাজীপুর সিটির সিনিয়র নগর পরিকল্পনাবিদ মো. মইনুল ইসলাম বলেন, তিন তলার অনুমোদন নিয়ে কেউ যদি চার-পাঁচতলা ভবন নির্মাণ করে তা অবশ্যই ঝুঁকিপূর্ণ। আমরা ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকা প্রস্তুত করছি। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজনকে নোটিস দেওয়া হয়েছে।

গাজীপুর সিটি মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ বলেন, গাজীপুরের প্রত্যেকটি জোনে আমরা ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকা করছি। ঝুঁকিপূর্ণ ভবন তালিকায় যেসব মালিক রয়েছেন তাদের নিজ নিজ ভবন বুয়েট কর্তৃক প্রকৌশলী দ্বারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সিটি করপোরেশনে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এটা না করলে ওই ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow