Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৪
সড়কজুড়ে কাঁচাবাজার
জয়শ্রী ভাদুড়ী
সড়কজুড়ে কাঁচাবাজার
মিরপুরের আনসার ক্যাম্প এলাকায় রাস্তা দখল করে গড়ে তোলা কাঁচাবাজারে দিনভর চলছে বেচাকেনা ছবি : জয়ীতা রায়
bd-pratidin

রাস্তার প্রায় অর্ধেক অংশ জুড়ে মাছ, শাক-সবজি নিয়ে বসে আছেন ব্যবসায়ীরা। ফলের দোকান থেকে শুরু করে শাপলা, শালুক, মুড়ি, চিড়া কি নেই এই বাজারে। দুপুর গড়িয়ে বিকাল হলেও রাস্তা ছেড়ে ওঠার নাম নেই ব্যবসায়ীদের। রাজধানীর আনসার ক্যাম্প সংলগ্ন রাস্তা-ফুটপাথ দখল করে গড়ে ওঠা এই বাজার আনসার ক্যাম্প বাজার নামেই পরিচিত।

গতকাল এই এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মিরপুর-১ থেকে গাবতলী অভিমুখী গাড়িগুলো চলাচল করে এই রাস্তা দিয়ে। বাস, প্রাইভেটকার, সিএনজি, মোটরসাইকেলের পাশাপাশি এই রাস্তায় হরদম চলছে রিকশা। বাজারের ঠিক মাঝামাঝিতেই ইউটার্ন। দুইদিকে চলাচলকারী গাড়ির চাপ তো আছেই, এর মধ্যে ইউটার্নে ক্রস করছে অনেক গাড়ি। রাস্তার অর্ধেক অংশে দোকানপাট এবং ক্রেতাদের এলোমেলো ঘোরাঘুরির ফলে এই রোডে প্রায়ই বাঁধছে যানজট, ঘটছে দুর্ঘটনা।

রাজধানীতে এরকম অসংখ্য রাস্তা দখল করে গড়ে উঠেছে অবৈধ কাঁচাবাজার। এই রাস্তা ধরে এগিয়ে মিরপুর কমার্স কলেজ পার হয়ে চিড়িয়াখানা রোডের চিত্রও একই। বেলা ১২টা গড়িয়ে গেলেও রাস্তায় চলছে সবজি কেনাবেচা। মাছ কেটে রাস্তার ওপর ফেলা হচ্ছে আঁশটে, মুরগি জবাই করে রক্ত এবং অপ্রয়োজনীয় অংশ ফেলে নোংরা করে রাখা হচ্ছে রাস্তা। রাস্তার ওপরে সবজির দোকান দিয়ে বসায় বাধাগ্রস্ত হচ্ছে যানবাহন যাতায়াত। কিছুক্ষণ পরপরই তৈরি হচ্ছে যানজট।

মিরপুর-১ এর হাজী রোডে দেখা যায় সিটি করপোরেশনের নবনির্মিত ঝকঝকে ফুটপাথ দখল করে বেশ কিছু বস্তায় ঝুট কাপড়, পুরনো লোহার সামগ্রী রাখা হয়েছে। পাশেই নির্মাণ করা হয়েছে চায়ের দোকান। পথচারীদের চলাচলের জন্য ফুটপাথ তৈরি করা হলেও দখল করে দোকান তৈরি করায় রাস্তা দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে পথচারীদের।

মিরপুর-১ থেকে মাজার রোডে রাস্তার চিত্র সবচেয়ে ভয়াবহ। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঢাকায় আসা গাড়িগুলো চলাচল করে এই রাস্তা ধরে।

রাত ১২টার পর থেকে রাস্তা পরিণত হয় কাঁচাবাজারের আড়তে। রাস্তায় ট্রাক থামিয়ে মালামাল নামিয়ে শুরু হয় বেচাবিক্রি। সকাল সাতটা পর্যন্ত পাইকারি বিক্রি শেষ হলে ডালি সাজিয়ে খুচরা বিক্রির প্রস্তুতি শুরু করেন ব্যবসায়ীরা। রাস্তার ওপরে গড়ে তোলা অস্থায়ী বাজারের কারণে এই পথে চলাচল করাই কঠিন হয়ে পড়ে পথচারীদের। পাশের কলেজের শিক্ষার্থীদের সীমাহীন ভোগান্তি পোহাতে হয় এই বাজারের কারণে। সকাল ১০টা পর্যন্ত চলমান এই বাজারের কারণে দীর্ঘ সময় যানজট পোহাতে হয় পথচারীদের। মিরপুর ৮, ৯, ১০ নম্বর ওয়ার্ডের জনগণ চলাচল করেন এই রাস্তা ধরে। মাজার রোডে গড়ে ওঠা এই বাজার ঘিরে হাজারো অভিযোগ থাকলেও টনক নড়ে না কর্তৃপক্ষের।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা যায়, রাজধানীতে মোট বৈধ কাঁচাবাজারের সংখ্যা মাত্র ২৮টি। দেড় কোটি মানুষের এই শহরে কাঁচাবাজারের সংখ্যা অতি নগণ্য। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে রাস্তা-ফুটপাথ দখল করে গড়ে তোলা হচ্ছে কাঁচাবাজার। যানজট, যাত্রীভোগান্তি, দুর্ঘটনা প্রায়ই ঘটছে ব্যস্ত রাস্তায় গড়ে তোলা এসব কাঁচাবাজারে।

ফুলবাড়িয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় যেখানে সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে ফলের দোকান, চায়ের দোকান, ভাতের হোটেল, সবজির দোকান। রাস্তা-ফুটপাথ দখল করে চলছে ব্যবসা। জুরাইন রেলগেট এলাকায় দেখা যায়, রেললাইনের স্লিপারের গা লাগিয়ে সবজির ডালা রাখেন ব্যবসায়ীরা।  রেললাইনের ওপরে দাঁড়িয়ে চলছে কেনাবেচা। ট্রেন কাছাকাছি এসে দফায় দফায় হুইসেল বাজালেও ভ্রুক্ষেপ নেই ব্যবসায়ী এবং ক্রেতাদের। এই বাজার ট্রেনলাইন ছেড়ে চলে এসেছে সড়কের ওপরেও। ফলে সব সময়ই লেগে আছে যানজট, বাড়ছে দুর্ঘটনা।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-৪ (মিরপুর-১০) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা গুল্লাল সিংহ বলেন, আনসার ক্যাম্পের এই অবৈধ বাজার আমরা বেশ কয়েকবার উচ্ছেদ করেছি।

এসব বাজারে সাধারণত ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীরা বসেন। উচ্ছেদের এক সপ্তাহ পার না হতেই সবজির ডালা নিয়ে আবার বসে পড়েন এসব ব্যবসায়ী। মিরপুর এলাকায় ফুটপাথ এবং রাস্তা দখলমুক্ত রাখতে আমরা নিয়মিত উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করি।

up-arrow