Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:৫০

গাজীপুরে সড়ক সম্প্রসারণ নিয়ে আতঙ্ক

নিজস্ব প্রতিবেদক

গাজীপুরে সড়ক সম্প্রসারণ নিয়ে আতঙ্ক
রাস্তাটি সম্প্রসারণের জন্য জাইকার ১৯ কোটি টাকার চলমান উন্নয়ন কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে জনদুর্ভোগ বেড়ে গেছে

গাজীপুরে একটি রাস্তা সম্প্রসারণ নিয়ে ভূমি মালিকদের মধ্যে উদ্বেগ-আতঙ্ক বিরাজ করছে। ছয় ফুট রাস্তা কয়েক দফা বাড়িয়ে ২৬ ফুট করার পর এখন ৪০ ফুট প্রশস্থ করার নোটিশ দেওয়া হয়েছে। সিটি করপোরেশন নিজ নিজ খরচে ৪০ ফুটের ভিতরের জায়গা পরিষ্কার করতে মাইকিং করেছে। ক্ষুব্ধ ভূমি মালিকরা সিটি মেয়রের কাছে পুনরায় ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়ার আবেদন করেছে। এলাকাবাসীর আবেদনে বলা হয়, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের শরিফপুর টু ওঝারাপাড়া সড়কটি এলাকাবাসীর প্রয়োজনে প্রথমে নিজেদের ব্যক্তিগত সম্পত্তিতে ছয়ফুট প্রশস্থ করা হয়। পরে এলাকার প্রয়োজনে ১২ ফুট ও ১৬ ফুট প্রশস্থ করা হয়। ২০১৬ সালে এলাকাবাসী নিজেদের জমি ছেড়ে দিয়ে তৎকালীন ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা বর্তমানে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে ২৬ ফুট প্রশস্থ করা হয়। রাস্তাটির উভয় পাশে সরকারি কোনো জমি নেই। রাস্তাটি প্রশস্থ করার সময় স্থানীয়রা যার যার প্রতিষ্ঠিত শিল্প কারখানার বহুতল ভবন, মার্কেট, দোকানপাট ও বাড়িঘর নিজ খরচে ভেঙে সিটি করপোরেশনের উন্নয়ন কাজে সহায়তা করেছেন। যার ফলে রাস্তাটি চলাচলের জন্য অত্যন্ত উপযোগী হয়েছে। সম্প্রতি সিটি করপোরেশনের বরাত দিয়ে সড়কটি পুনরায় ৪০ ফুট প্রশস্থ করার লক্ষ্যে যার যার স্থাপনা নিজ খরচে বিনা শর্তে পরিষ্কার করার জন্য এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে। মাইকিংয়ের নির্দেশনা প্রচার হওয়ার পরই এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে ভীতি ও আতঙ্ক বিরাজ করছে। এলাকাবাসী বলেন, ২০১৬ সালে রাস্তা সম্প্রসারণের সময় তারা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সেই ক্ষতিও অনেকে কাটিয়ে উঠতে পারেননি। আবার ৪০ ফুট রাস্তা সম্প্রসারণ করা হলে দুই পাশের ৯০/৯৫ জন ভূমি মালিক ভীষণ ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। কারণ, রাস্তাটির দুই পাশের ৯০ শতাংশ মালিকই এক কাঠা, দেড় কাঠা, দুই কাঠা, সর্বোচ্চ তিন কাঠার সম্পত্তির মালিক। সম্প্রসারিত ২৬ ফুট রাস্তাটিই এলাকাবাসীর স্বাচ্ছন্দ্যের চলাচল নিশ্চিত করছে। এই অবস্থায় জমি মালিকদের ক্ষতিগ্রস্ত না করে রাস্তাটির ২০১৬ সালের সম্প্রসারণ বহাল রেখে অবশিষ্ট সংষ্কার কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার দাবি জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় দুই এমপি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ভূমি মালিকদের আবেদন সুবিবেচনার জোর সুপারিশ করেছেন।

এ ব্যাপারে সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এলাকার মানুষের যাতায়াতের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য রাস্তাটি সম্প্রসারণ করতে হচ্ছে। এটার জন্য আলাদা কোনো বরাদ্দ নেই। রাস্তা বড় করার কারণে যারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত তাদের আমরা সীমিত পরিমাণ অনুদান দেওয়ার চেষ্টা করছি। যতটুকু পারছি আলোচনার মাধ্যমেই করছি।


আপনার মন্তব্য