Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ জুন, ২০১৬ ২৩:০৯
‘প্রথম’ হওয়ার পথে ছুটছেন হিলারি
তানভীর আহমেদ
‘প্রথম’ হওয়ার পথে ছুটছেন হিলারি

২২৭ বছর পর

সময়টা হিলারির। নইলে এত জল্পনা-কল্পনা পেরিয়ে ইতিহাস গড়া তো চাট্টিখানি কথা নয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী প্রচারণায় কয়েক মাস আগে নিজেই আক্ষেপ করে বলেছিলেন, মার্কিনিদের নারী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করার মানসিকতা নেই। সেই আক্ষেপ ঘুচিয়ে দিতেই কি ভোটাররা হিলারির দিকে পাল্লা ভারী করে দিলেন? খবরটা নিশ্চিত। প্রয়োজনীয় সংখ্যক ডেলিগেট ভোট জয় করার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়ন পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছেন হিলারি ক্লিনটন। রয়টার্স, বিবিসিসহ আন্তর্জাতিক মিডিয়া সেটাই বলছে। ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়ন পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় দুই হাজার ৩৮৩টি ডেলিগেট ভোট জিতে নিয়েছেন হিলারি। এটি হলে তিনি হবেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান কোনো রাজনৈতিক দলের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। এ পর্যন্ত আসতে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রের ২২৭ বছর লাগল। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এ বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে।

 

নারীদের জন্য ঐতিহাসিক মুহূর্ত

হিলারির বাজিমাত

মার্কিন নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদে কারা লড়বেন চূড়ান্ত পর্যায়ে সে নিয়ে গত কয়েক মাস ধরেই আলোচনা তুঙ্গে। বিশ্ববাসীর আগ্রহের চূড়ান্ত সীমায় রয়েছে একটি প্রশ্ন, কে হচ্ছেন পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট? ঘুরেফিরে আসছিল হিলারি ক্লিনটন ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম। ডেমোক্র্যাটিক পার্টি থেকে হিলারির সঙ্গে ভালোই লড়াই জমিয়ে তুলেছিলেন আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্স। অবশ্য শুরু থেকেই ডেলিগেট ভোটের পাল্লা হিলারির দিকে ভারী ছিল। কিন্তু পথটা মোটেই মসৃণ হচ্ছিল না। বারবার বার্নি এসে চিন্তার ছাপ ফেলছিলেন হিলারির কপালে। একের পর এক অঙ্গরাজ্যে হিলারির সঙ্গে বার্নির যুদ্ধ দেখেছে মার্কিনিরা। অন্যদিকে রিপাবলিকানদের হয়ে ট্রাম্প তো রয়েছেনই। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের শক্তিশালী ইউনাইটেড অটো ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন হুট করেই সমর্থন করে বসে ডেমোক্র্যাটিক দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিলারি ক্লিনটনকে। এটা যেন দাবার চাল ঘুরিয়ে দিল। অর্থনীতি আমেরিকানদের গতিপ্রকৃতি বারবার বদলে দিয়েছে। এবার যেন বদলালো হিলারির ছুটে চলা পথ। গত মঙ্গলবার নিউইয়র্কের ব্রুকলিনে এক উৎসবমুখর অনুষ্ঠানে নিজেকে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনীত প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী বলে ঘোষণা করেন হিলারি ক্লিনটন। যুক্তরাষ্ট্রের ২২৭ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম তিনি নারী প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। উত্ফুল্ল সমর্থকদের উদ্দেশে হিলারি বলেন, ‘আপনাদের ধন্যবাদ, আমরা একটি মাইলস্টোনে পৌঁছেছি। নারীদের জন্য এ এক ঐতিহাসিক মুহূর্ত। আমাদের জাতির ইতিহাসে প্রথমবারের মতো একজন নারী একটি প্রধান দলের মনোনীত প্রার্থী হতে যাচ্ছে।’ নিউজার্সি অঙ্গরাজ্যের মনোনয়ন ভোটাভুটিতে প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্সকে পরাজিত করার কিছুক্ষণ পর ৬৮ বছর বয়সী হিলারি এসব কথা বলেন। সিএনএনে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, নিউজার্সির প্রাইমারির ৯৮ শতাংশ ভোট গণনার পর হিলারির পক্ষে ৬৩ শতাংশ ভোট এবং স্যান্ডার্সের পক্ষে ৩৭ শতাংশ ভোট পড়েছে। রাজ্যটিতে হিলারিকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। এর আগে সোমবার প্রভাবশালী একটি আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা জানিয়েছিল, ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়ন পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ২ হাজার ৩৮৩টি ডেলিগেট ভোট সংগ্রহ করে নিয়েছেন হিলারি। মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রে ছয়টি অঙ্গরাজ্যে ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রাইমারি  ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হয়। এসব অঙ্গরাজ্যের মধ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ক্যালিফোর্নিয়াও আছে। এখন হিসাবটা যেখানে গিয়ে দাঁড়িয়েছে তাতে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে জনবহুল অঙ্গরাজ্য ক্যালিফোর্নিয়ায় স্যান্ডার্স জয়ী হলেও হিলারিকে ধরতে পারবেন না। আগামী মঙ্গলবার ডিস্ট্রিক্ট অব কলম্বিয়ায় ডেমোক্র্যাটিক পার্টির শেষ প্রাইমারি ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হবে।

বাগ্যুদ্ধ বাড়ছেই

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দুই দলের সম্ভাব্য দুই প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। দুজনের মধ্যে এরই মধ্যে বাগ্যুদ্ধ বেড়েছে। শুধু নির্বাচনী আক্রমণ হলেও ভোটাররা কিন্তু উপাত্তগুলো ভালোই পর্যালোচনা করছেন। রিপাবলিকান থেকে ট্রাম্প বেছে নিয়েছেন হিলারির স্বামী ক্লিনটনের বিরুদ্ধে নারী লাঞ্ছনার ঘটনা। অন্যদিকে হিলারি বেছে নিয়েছেন ট্রাম্পের জুয়ার (ক্যাসিনো) ব্যবসার প্রসঙ্গ। হিলারির জিজ্ঞাসা, ‘জুয়ার ব্যবসাতে কীভাবে লোকসান হয়?’ জুয়ার ব্যবসায় যদি দেউলিয়া হন, তবে ট্রাম্প দেশের অর্থনীতি বাঁচাবেন কীভাবে। দেশকেও তিনি  দেউলিয়া বানিয়ে ছাড়বেন। নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠেয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টি থেকে হিলারি ও রিপাবলিকান পার্টি  থেকে ট্রাম্প প্রার্থী হচ্ছেন, এটি  নিশ্চিত। বাছাই প্রক্রিয়ায় ট্রাম্পের সব প্রতিদ্বন্দ্বী বসে গেছেন। অন্যদিকে হিলারির বিরুদ্ধে এখনো মাঠে আছেন বার্নি স্যান্ডার্স। তবে মনোনয়ন পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রতিনিধির সমর্থন পেয়ে গেছেন হিলারি।

শেষ মুহূর্তের জরিপ

সর্বশেষ এক জরিপে রিপাবলিকান দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পেছনে ফেলে ফের এগিয়ে গেছেন ডেমোক্র্যাটিক দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। জরিপে সম্ভাব্য ভোটারদের মধ্যে ৪৬ শতাংশ জানিয়েছেন তারা হিলারিকে সমর্থন করবেন, অন্যদিকে ৩৫ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন করবেন বলে জানিয়েছেন। দুজনের কাউকেই সমর্থন করবেন না বলে জানিয়েছেন ১৯ শতাংশ ভোটার। ৩০ মে থেকে ৩ জুন পর্যন্ত ১ হাজার ৪২১ জন ব্যক্তি জরিপে অংশ নেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow