Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০৬
বিশ্ব কাঁপানো ৯/১১ ট্র্যাজেডির ১৫ বছর
তানভীর আহমেদ
বিশ্ব কাঁপানো ৯/১১ ট্র্যাজেডির ১৫ বছর

নাইন-ইলেভেন ট্র্যাজেডির ১৫ বছর হলো। পৃথিবীর ইতিহাসের জঘন্যতম এই সন্ত্রাসী হামলায় বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্র আমেরিকাসহ গোটা বিশ্বই কেঁপে ওঠে।

সেই ভয়ঙ্কর দিনটি আধুনিক বিশ্বের মানুষের জন্য একই সঙ্গে কলঙ্কের এবং ভয়ের। ঘৃণ্য ও ঘটনাবহুল সেই দিনটি নিয়েই আমাদের আজকের রকমারি—

 

এখন গ্রাউন্ড জিরো

গ্রাউন্ড জিরো এখন মার্কিনিদের শোক জানানোর সবচেয়ে মুখর স্থান। এক সময় এখানেই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছিল ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের দুটি ভবন। সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়ে দুটি ভবন যখন ধসে পড়ে তখন অসংখ্য প্রাণের সেই মর্মান্তিক প্রয়াণ আজো কাঁদায় বিশ্ববাসীকে। যাত্রীবাহী বিমানের আঘাতে যেখানে টুইন টাওয়ার ভেঙে পড়েছিল সেটাই এখন ‘গ্রাউন্ড জিরো’। সেখানে নির্মিত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন স্মৃতিস্তম্ভ। চারদিকে করুণ নিস্তব্ধতা নিয়ে সেই গ্রাউন্ড জিরো বেয়ে এখন ঝরনার পানি যেন লাখো কোটি মানুষের অশ্রুই বয়ে নিয়ে যায়। ভিতরের দিকে নিহতদের স্মরণে বানানো হয়েছে ব্রোঞ্জের তৈরি একটি স্মৃতিফলক। সে দিন যারা নিহত হয়েছিলেন তাদের আত্মীয়স্বজনরা তৈরি করেছেন ‘ট্রিবিউট ডব্লিউটিসি ভিজিটর সেন্টার’। হামলার পর টুইন টাওয়ারের ধ্বংসাবশেষের নিচ থেকে পাওয়া নিহতদের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিস রাখা হয়েছে ওই ভিজিটর সেন্টারে। টুইন টাওয়ারের ভিত্তিটা যেখানে ছিল সেখানেই ঠিক ওই জায়গায় জলধারা তৈরি করা শেষ হয়েছে। জলধারার চারদিকে ৪০০টি  সবুজ ওক গাছ লাগানো হয়েছে। এখানে রয়েছে ‘ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার মেমোরিয়াল’। জলধারার পাড় বেয়ে প্রত্যেক নিহতের নাম খোদাই করা হয়েছে।

 

আকাশ ছুঁয়েছে ওয়ান ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার

ব্যবসা ও নিরাপত্তার কেন্দ্রবিন্দু ছিল ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার। সন্ত্রাসী হামলায় চোখের পলকে আকাশছোঁয়া সেই দুটি ভবন মাটিতে মিশে যায়। কিন্তু থেমে থাকেনি আকাশছোঁয়ার স্বপ্ন। সেই হামলার ক্ষত শুকিয়ে আবারও মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে ওয়ান ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার। এবার একটি ভবনই সেখানে দাঁড়িয়েছে ফের আকাশ ছুঁয়ে দিতে। বিশাল বাজেট হাতে নিয়ে এর নির্মাণ শুরু হয় ২০০৬ সালের ২৭ এপ্রিল। প্রায় ৩.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ হয় এই ভবনটি নির্মাণে। মধ্যে বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক মন্দায় কাজ অনেকটাই থমকে গিয়েছিল, তবে নির্দিষ্ট সময়েই এর নির্মাণ শেষ হয়। ফ্রিডম টাওয়ারের সেই গর্ব যেন বুকে রেখেই এটি নির্মিত হয়েছে। এই টাওয়ারটি আমেরিকার সর্বোচ্চ উঁচু ভবন। প্রায় ৫টি বেইজমেন্টসহ এর ফ্লোর সংখ্যা ১০৪টি। পুরোটা মেঝে থাকছে ৩৫,০১,২৭৪ বর্গফুটের। শুধু উঁচুই নয়, বিশালাকার এই ভবনটি ব্যবহার করা হয়েছে বিভিন্ন দেশি-বিদেশি কোম্পানির অফিস হিসেবে। তা ছাড়াও দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার নিয়ন্ত্রণেরও একটি অংশ এখান থেকেই হচ্ছে। এবার নিরাপত্তার জন্য রয়েছে আরও অনেক আধুনিক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। যে কোনো এরোপ্লেন এর দিকে ছুটে এলেই শক্তিশালী রাডারের নিখুঁত গণনায় সেটিকে ভূপাতিত করার অত্যাধুনিক ব্যবস্থা এতে রাখা হয়েছে। ভবনটির ভেতরের  ইন্টেরিয়র ডেকোরেশন বিশ্বসেরা বলেন অনেকে।

 

নিউইয়র্কের যে সকাল বদলে দিল গোটা পৃথিবীকে

পনেরো বছর আগের এই দিন। ১১ সেপ্টেম্বর। অন্যদিনের মতোই জেগে উঠেছিল নিউইয়র্ক সিটি। শুধু দিন শেষের গল্পটাই পাল্টে গিয়েছিল। সে দিনের সকালের সঙ্গে অন্য আট-দশটি সকালের কোনো পার্থক্য ছিল না। অথবা পৃথিবীতে কোনো দুর্যোগের আগাম সংকেত ছিল না। ফলে অন্য সব দিনের মতো সে দিনও সকাল সকালই কর্মব্যস্ত হয়ে উঠেছিল বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রাণকেন্দ্র নিউইয়র্ক সিটি। স্থানীয় সময় তখন ৮টা ৪৬ মিনিট। হঠাৎ করেই ঘটল সেই ভয়াল ঘটনা। মুহূর্তেই পাল্টে গেল দৃশ্যপট। যুক্তরাষ্ট্র থেকে সারা বিশ্ব অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে দেখল সন্ত্রাসের আগুনে কীভাবে জ্বলেপুড়ে শেষ হতে লাগল আমেরিকার ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার। ‘টুইন টাওয়ার’ হিসেবে পরিচিত বিশ্বের অন্যতম উঁচু দালানটিতে আঘাত হানে সন্ত্রাসীদের দখল করা দুটি যাত্রীবাহী বিমান। এ কোনো সাধারণ আঘাত নয়, রীতিমতো ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হলো। মুহূর্তের মধ্যেই নিউইয়র্কের নীলাকাশে ঝকঝকে রোদের বদলে সেটি ঢেকে গেল নিকষ কালো ধোঁয়ায়। মুহূর্তের মধ্যেই মুখ থুবড়ে পড়ল যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক গৌরবের প্রতীক নিউইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার। শুধু তাই নয়, যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক গৌরবের প্রতীক ওয়াশিংটনের পেন্টাগন ভবনেও হামলা চালায় আরেকটি বিমান। এ ছাড়া পেনসিলভানিয়ায় আরেকটি বিমান দিয়ে হামলার চেষ্টা ব্যর্থ হয়। কীভাবে ঘটেছিল এই নারকীয় তাণ্ডব? ১১ সেপ্টেম্বরের সেই ভয়াল সকালে আল-কায়েদার ১৯ জঙ্গি যুক্তরাষ্ট্রের যাত্রীবাহী চারটি বিমান হাইজ্যাক করে। এর মধ্যে দুটি বিমান দিয়ে তারা নিউইয়র্ক শহরের টুইন টাওয়ারে হামলা চালায়। এতে বিশ্ববাণিজ্য কেন্দ্রে আগুন ধরে যায়। দুই ঘণ্টার মধ্যে টুইন টাওয়ার ধসে পড়ে। সঙ্গে ধ্বংস ও ক্ষতিগ্রস্ত হয় এর পাশের কয়েকটি ভবনও। এ দুটি ফ্লাইটের ধ্বংসযজ্ঞ চলাকালীনই তৃতীয় ফ্লাইটটি দিয়ে জঙ্গিরা যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা সদর দফতর পেন্টাগনে আঘাত হানে। চতুর্থ ফ্লাইটটি নিয়ে হাইজ্যাকারেরা পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের শাংকসভেলি এলাকার আকাশে যায়। ওখান থেকে তারা সেটিকে নিউইয়র্কের দিকে নিতে চায়। তাদের লক্ষ্যবস্তু ছিল যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটাল হিল ভবন অথবা হোয়াইট হাউসে আঘাত হানা। এ সময় কিছু যাত্রী ও ফ্লাইটের ক্রু বিমানটির নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার জন্য হাইজ্যাকারদের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে লিপ্ত হয়। এতে ফ্লাইট আকাশে বিধ্বস্ত হয়ে শাংকসভেলি এলাকার মাটিতে পড়ে। আরেকটি বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞ থেকে বেঁচে যায় আমেরিকা। কিন্তু ওই ফ্লাইটের কেউ বাঁচেননি। এ ঘটনায় ১৯ হাইজ্যাকারের সবাই নিহত হয়। এ ছাড়া টুইন টাওয়ার ও এর আশপাশে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনে ২ হাজার ৭৪৯ জন প্রাণ হারান। নিহতদের বেশির ভাগই বেসামরিক ব্যক্তি, নারী ও শিশু। নিহতদের মধ্যে আরও রয়েছেন ৩৪৩ জন দমকল কর্মী ও ৬০ পুলিশ কর্মকর্তা। পেন্টাগনে আত্মঘাতী বিমান হামলায় তখন ১৮৪ জন নিহত হন। উল্লেখ্য, আল-কায়েদার তখনকার ওই হামলায় যারা প্রাণ হারান তারা শুধু যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক ছিলেন না। ওই হামলায় ৭০টি দেশের মার্কিন প্রবাসীরাও নিহত হন।

প্রসঙ্গত, ওই হামলায় তাত্ক্ষণিক মৃত্যুই শেষ কথা নয়, উদ্ধারকাজ চালাতে গিয়ে যারা আহত, অসুস্থ এবং বিষক্রিয়ার শিকার হয়েছিলেন তাদের মধ্যে ৮৩৬ জন পরে মৃত্যুবরণ করেন।

এই একটি ঘটনা পাল্টে দেয় গোটা যুক্তরাষ্ট্রের সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা। দীর্ঘদিন ধরে এ হামলার জের টানতে হয় যুক্তরাষ্ট্রকে। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে দেশটির ঋণের খাতায় যোগ হয়েছে প্রায় ৪০০ কোটি ডলার। যুদ্ধ ও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য এসব অর্থ ব্যয় করা হয়েছে। ওই হামলার পর থেকে কমপক্ষে ২ লাখ ৩৬ হাজার ৫০০ মানুষ নিহত হয়েছেন, যাদের অধিকাংশ বেসামরিক নাগরিক। রোড আইল্যান্ডের ব্রাউন ইউনিভার্সিটির ওয়াটসন ইনস্টিটিউট ফর ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের ‘কস্ট অব ওয়ার’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর চালানো হামলায় নিহত হন ২ হাজার ৯৯৫ জন। ওই হামলায় ক্ষতি হয় ৫ থেকে ১০ হাজার কোটি ডলারের। আর এ ঘটনার জেরে নাইন-ইলেভেনের পর থেকে ২ লাখ ৩৬ হাজার ৫০০ থেকে ২ লাখ ৬১ হাজার ৭০০ মানুষ নিহত হয়েছেন।

শুধু যুক্তরাষ্ট্রই নয়, নাইন-ইলেভেনের প্রভাব পড়েছিল সারা বিশ্বেও। নাইন-ইলেভেনের এই ন্যক্কারজনক ঘটনা সারা বিশ্বের টনক নাড়িয়ে দিয়েছিল। রাতারাতি পাল্টে দিয়েছিল বিশ্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

সন্ত্রাসবাদ ও ভয়াবহ আক্রমণের দুঃসহ স্মৃতি এখনো তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে বিশ্ববাসীকে। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতেই সামরিক অভিযান চালানো হয়েছে আফগানিস্তান ও ইরাকে। মার্কিন নেতৃত্বের সেই সামরিক অভিযানেও কম রক্ত ঝরেনি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চলছে এখনো। সমমনা দেশগুলোর সঙ্গে একাত্ম হয়ে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এখনো লড়ে যাচ্ছে আমেরিকা। আর সেই লড়াইয়ে সাফল্যের বড় উদাহরণ নাইন-ইলেভেন হামলার জন্য দায়ী সন্ত্রাসী সংগঠন আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যু।

পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদের একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করেন মার্কিন নেভি সিল কমান্ডোরা। তবে যুক্তরাষ্ট্রের সেই যুদ্ধ এখনো থামেনি। ওয়ান-ইলেভেন ট্র্যাজেডির ১৫ বছরপূর্তি হলেও সেই ক্ষত শুকায়নি মোটেও। গত ১৪ বছরে ওয়ান-ইলেভেনের বড় বিপর্যয় থেকে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে অনেকটাই ঘুরে দাঁড়িয়েছে আজকের আমেরিকা। ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের নারকীয় ধ্বংসযজ্ঞের ওপর আবার গৌরবের সঙ্গে দাঁড়িয়েছে ফ্রিডম টাওয়ার।

 

১১ রহস্য!

৯/১১ সময়টাকে করুণ পরিণতির চিহ্ন হিসেবে যাচাই করে থাকেন অনেকেই। বেশকিছু বিষয়ের পর্যালোচনায় দেখা যায়, বিভিন্ন ঘটনাবহুল কাকতালীয় মিল কখনো কখনো এতটাই যুক্তিপূর্ণ হয়ে দাঁড়ায় যে, চমকে যেতে হয়। যেমন, ইংরেজিতে নিউইয়র্ক সিটি শব্দটি লিখতে মোট ১১ অক্ষর প্রয়োজন হয়। ইংরেজিতে আফগানিস্তান শব্দটি লিখতেও একইভাবে ১১টি অক্ষর প্রয়োজন হয়। রামসিন ইউসেব নামের ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী; সে ১৯৯৩ সালে সর্বপ্রথম ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার টুইন টাওয়ার ধ্বংসের হুমকি দেয়, তার নাম ইংরেজিতে লিখতেও ১১টি অক্ষর প্রয়োজন। নিউইয়র্ক সিটি হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রদেশক্রমে তালিকার অন্তর্ভুক্ত ১১তম প্রদেশ, তখন আরেকটু অবাক হতেই হয়। টুইন টাওয়ারের উত্তর বিল্ডিংয়ে যে বিমানটি প্রথম আঘাত করে সেটির ফ্লাইট নম্বরও ছিল ১১। এ বিমানে মোট যাত্রীসংখ্যা ছিল ৯২ জন (৯+২=১১)। দক্ষিণ টাওয়ারে আঘাত করা দ্বিতীয় বিমানটির যাত্রীসংখ্যা ছিল ৬৫ জন (৬+৫=১১)। যে সন্ত্রাসী হামলার কথা বলা হচ্ছে সেটি সংঘটিত হয়েছিল ১১ সেপ্টেম্বর। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশে এ দিনটি ৯/১১ নামে পরিচিত। আবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জরুরি কলের নম্বরও ৯১১। এই সংখ্যাগুলোকে যোগ করলেও যোগফল হয় ১১ (৯+১+১=১১)। ১১ সেপ্টেম্বরের সমগ্র সন্ত্রাসী হামলায় ছিনতাইকৃত বিমানগুলোর মোট যাত্রীসংখ্যা ছিল ২৪৫ জন। সংখ্যাগুলো যোগ করলেও যোগফল ১১ হয় (২+৪+৫=১১)। পঞ্জিকা অনুযায়ী ৩৬৫ দিনে এক বছর। সেই হিসাবে ১১ সেপ্টেম্বর হচ্ছে ২৫৪তম দিবস। সংখ্যাগুলোকে একত্রে যোগ করলেও ফলাফল ১১ হয় (২+৫+৪=১১)। পরবর্তীতে স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে ধারাবাহিকভাবে যে সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয় তার তারিখ ছিল ০৩-১১-২০০৪। সংখ্যাগুলোর যোগফলও ১১, (৩+১+১+২+০+০+৪=১১)।

 

পার পায়নি আল-কায়েদা

আমেরিকার বুকের মধ্যখানে আঘাত করার মতোই ছিল ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের হামলা। রক্তক্ষরণের ফলে সেই ঘা বেড়ে উঠে শুরু হয় আমেরিকার সন্ত্রাস দমনের যুদ্ধ। ফের যুদ্ধবাজ দেশ হিসেবে কুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে আমেরিকার। মার্কিন সেনাদের দ্বারা যুদ্ধাক্রান্ত হয় আফগানিস্তান। প্রধান টার্গেট আল-কায়েদা। আল-কায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে জীবিত অথবা মৃত গ্রেফতার করে এই সন্ত্রাসী হামলা বিচারের জন্যই পরিচালিত হয় একের পর এক অভিযান। ইউরোপের নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের মতে, মার্কিন ভূখণ্ডে অভাবনীয় হামলা চালানোর জন্য দায়ী করা হয় আল-কায়েদাকেই। এদিকে যুদ্ধ শুরু হতেই মার্কিন সেনাদের আধুনিক যুদ্ধাস্ত্র বিশেষ করে ড্রোন হামলায় নাকাল হয়ে পড়ে আল-কায়েদা। তাদের পাল্টা জবাবও ছিল নৃশংস। তবে শীঘ্রই তারা দিশাহারা হয়ে পড়ে এবং এই  নেটওয়ার্কের অংশ বিশেষ কোনো নির্দেশের পরোয়া না করে নিজেরাই মারাত্মক হামলার ছক কষে। ইতিহাস বলে, ১৯৮০-এর দশকে আফগানিস্তানে সোভিয়েত হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সংগ্রামে যোগ দিয়েছিলেন ওসামা বিন লাদেনসহ একদল আরব যোদ্ধা। সেই সংগ্রামই পরে আল-কায়েদার জন্ম দেয়। শেষের দিকে আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্তে ড্রোন হামলায় কোণঠাসা হয়ে পড়ে আল-কায়েদার নেতৃত্ব। তারপর পাকিস্তানে গোপন অভিযান চালিয়ে বিন লাদেনকে হত্যা করে মার্কিন ‘নেভি সিল’ বাহিনীর কমান্ডোরা। আরেক দফা মার্কিন ড্রোন হামলায় প্রাণ হারান আল-কায়েদার দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ নেতা আতিয়া আবদ আল রহমান। বারাক ওবামা প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর আল-কায়েদার অর্ধেকের বেশি নেতাকে হত্যা করা হয়েছে। এ সাফল্য সত্ত্বেও তাদের দুশ্চিন্তা কাটছে না। যারা আল-কায়েদা নেটওয়ার্কের মধ্যে থেকে কাজ করছেন, তাদের চিহ্নিত করা অপেক্ষাকৃত সহজ কাজ। কিন্তু কোনো ব্যক্তি আল-কায়েদা থেকে প্রেরণা পেয়ে একাই কোনো ষড়যন্ত্র করলে বা হামলা চালাতে চাইলে তাকে বাধা দেওয়া খুবই কঠিন কাজ। সবার অলক্ষ্যে তিনি গাড়িবোঝাই বিস্ফোরক অথবা মেশিনগান নিয়ে অসংখ্য মানুষকে হত্যা করতে পারেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভবিষ্যতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওপর হামলাগুলো নাইন-ইলেভেনের মতো এত নাটকীয় হবে না। সিআইএ ও এনএসএ’র সাবেক প্রধান জেনারেল মাইকেল হেডেন মনে করেন, আমেরিকার ওপর ভবিষ্যৎ হামলাগুলো হবে কম জটিল। হামলাগুলোর পেছনে তেমন সাংগঠনিক ও জোরালো প্রস্তুতি থাকবে না। সব ষড়যন্ত্র সফল হবে না এবং সফল হলেও তেমন জোরালো  হবে না। কিন্তু হামলার সংখ্যা অনেক বেড়ে যাবে। আল-কায়েদাকে পুরোপুরি শেষ করে দেওয়া আদৌ সম্ভব নয় বলেই মনে করেন বিশ্লেষকরা। এই সম্ভাবনা মাথায় রেখেই এখনো সতর্ক মার্কিন নিরাপত্তা বিভাগ। তাদের পররাষ্ট্র নীতিতেও তাই সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমের কথা বারবার উঠে আসে। মার্কিন সরকার সচেতন থাকলেও আল-কায়েদার কার্যক্রম লাদেন হত্যার মধ্য দিয়ে শেষ হয়নি—এটাই রূঢ় বাস্তবতা।

 

ইরাক ও আফগানিস্তানে মার্কিনিদের  অভিযান

বিশ্ব রাজনীতিতে সরাসরি প্রভাব ফেলে আমেরিকার টুইন টাওয়ারে সন্ত্রাসী হামলা। জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদা আলোচনায় উঠে আসে। তাদের সর্বোচ্চ নেতা ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করে চূড়ান্ত জবাব দেয় আমেরিকা। তবে এখানেই থেমে থাকেনি জঙ্গি সংগঠনগুলো। মধ্যপ্রাচ্যে তারা সংগঠিত হয়ে দেশে দেশে সন্ত্রাসী হামলা চালাতে থাকে। এর জবাবে সন্ত্রাস মোকাবিলায় ইরাক ও আফগানিস্তানে মার্কিন সেনারা অভিযান শুরু করে। যুদ্ধাবস্থা তৈরি হয় সেখানে।

জঙ্গি হামলা নতুন মাত্রা লাভ করে। বিশ্ব রাজনীতিতে ‘সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান’ শিরোনাম সবচেয়ে আলোচিত হয়ে ওঠে। মারণাস্ত্রের ব্যবহারে আল কায়েদাকে পুরোপুরি দুর্বল করা সম্ভব হলেও মধ্যপ্রাচ্যে এবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে আইএস।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow