Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩০
অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৭
বই পড়ার আনন্দ
রণক ইকরাম
বই পড়ার আনন্দ

ফেসবুক, ইন্টারনেট আর ভাইবারের যুগে বই পড়ার আনন্দ কজন পেতে চায় তা একটি বড় প্রশ্ন। এই জেনারেশনের অনেকের কাছে আবার বই পড়াটা ‘ওল্ড ফ্যাশন’।

এর পরও বইয়ের আবেদন আগের মতোই। ফেব্রুয়ারিতে বাঙালির প্রাণের উৎসব অমর একুশে বইমেলা। এ মেলাকে  কেন্দ্র করেই আমাদের বই উৎসব...

 

গল্পটা খুব বেশি দিনের নয়। তিনি পৃথিবীর অন্যতম বহুভাষাবিদ জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ। ভাষায় তাকে একজন পণ্ডিত মানা হয়। তিনি প্রতিদিন কমপক্ষে ১৮ ঘণ্টা পড়াশোনা করতেন। আর এটা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল। তিনি বইয়ের ভিতর নিমগ্ন থাকতে পছন্দ করতেন। শহীদুল্লাহ একদিন পাঠাগারের এক কোনায় বসে বই পড়ছেন, পড়ছেন তো পড়ছেনই, বইয়ের মাঝে ডুবে একাকার হয়ে আছেন। কিন্তু লাইব্রেরিয়ান পাঠাগার বন্ধ করার সময় তাকে লক্ষ্য না করে বন্ধ করে চলে যান। শহীদুল্লাহ্ বিরামহীন পড়ছেন। কোন সময় পাঠাগার বন্ধ হলো তা টের পেলেন না। যত বড় বইই হোক, তিনি একবারে শেষ না করে কোনোভাবেই উঠতেন না। যা হোক, পরদিন রীতিমতো পাঠাগার খোলা হলো। খোলা মাত্র লাইব্রেরিয়ানের দৃষ্টি গিয়ে পড়ল তার ওপর। লাইব্রেরিয়ান তো তাকে দেখে রীতিমতো হতবাক। শহীদুল্লাহেক তিনি প্রশ্ন করলেন, আপনি পুরো রাত পাঠাগারে বন্দী ছিলেন? তখন শহীদুল্লাহ্র ধ্যান ভেঙে গেল। কিছু না বুঝে তিনি মুখ তুলে বললেন, ‘কই সে রকম কিছু না তো। আমি তো কেবল বই পড়ছিলাম!’ এবার বুঝুন বইয়ের কী নেশা। দিনের শেষে পুরো রাত পেরিয়ে গেল ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ্ টেরই পেলেন না! ইতিহাসে এমন বইপাগল মানুষের সংখ্যা কম নয়। কেবল ইতিহাস কেন, আমাদের চারপাশে এমন অসংখ্য বইপোকা আছেন যারা পড়তে ভালোবাসেন। বইয়ের স্থান নিয়ে কবি-দার্শনিক ওমর খৈয়াম দারুণ একটি কথা বলে গেছেন। তিনি বলেছেন ‘রুটি মদ ফুরিয়ে যাবে, প্রিয়ার কালো চোখ ঘোলাটে হয়ে আসবে, কিন্তু বইখানা অনন্ত যৌবনা— যদি তেমন বই হয়। ’ আসলেই তো বইয়ের শ্রেষ্ঠত্ব অনস্বীকার্য। ছোটবেলায় পাঠ্যবইয়ের ভিতর লুকিয়ে গল্পের বই পড়েননি এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম।

একটি ভালো বই মানুষকে অকৃত্রিম আনন্দ ও অসীম সুখ প্রদান করে। বই মানুষকে ভাবায়, কল্পনায় ডোবায় আবার বাস্তবতার উপলব্ধিও এনে দেয়। মানুষের উন্নততর বৃত্তিগুলো চায় সত্য, জ্ঞান ও আনন্দের আলো। তবে সব বই-ই যে ভালো এমন নয়। একটা চৈনিক প্রবাদ আছে। প্রবাদটা এ রকম, কিছু কিছু বই আছে যেগুলোর কেবল মলাটটাই সেরা অংশ। এ রকম বই পরিহার করাই ভালো। প্রকাশক আর ছাপাখানার কল্যাণে প্রতিদিন অজস্র বই ছাপা হচ্ছে। এর মধ্যে ভালোমন্দের সমাবেশ আছে। পাঠের আনন্দ পেতে হলে ভালোমানের বই বাছাই করতে হবে, না হলে পণ্ডশ্রম। বই নির্বাচনে অস্থির অবস্থা আয়ত্তে আনার জন্য অভিজ্ঞ পাঠক, গ্রন্থাগারিক ও শিক্ষকদের সুপরামর্শ গ্রহণ করা উচিত। বিজ্ঞাপনের চাতুরীপনা কিংবা গ্রন্থনামে প্রলুব্ধ হওয়া উচিত নয়। ভালো বই মানুষকে আনন্দ দান করে, সেজন্য ভালো বই নির্বাচনের ক্ষমতা অর্জন করতে হবে। হুমায়ূন আহমেদ বলেছেন, ‘এক জীবনে একজন মানুষ ১০ হাজারের বেশি বই পড়তে পারে না। তাই বই পড়ার ক্ষেত্রে সেরা বইটি বেছে নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই। ’

তবে সেরা বই বাছার নির্দিষ্ট কোনো মানদণ্ড নেই। মানুষের রুচিবোধ, ব্যক্তিত্ব আর মানসিক চাহিদার ওপর নির্ভর করে বইয়ের ভালোমন্দ নিরূপিত হয়। ঠিক তেমনি বইয়ের বিষয়েরও কিন্তু কোনো নির্দিষ্ট সীমারেখা নেই। বিচিত্র বিষয়ের বিচিত্র ধরনের বই প্রকাশিত হয়। উপমা-রসবোধ কিংবা বাস্তবতার উপলব্ধিতে ভরা সাহিত্যের বই, শিকড়সন্ধানী ইতিহাস বই, বিশ্বকে জানার জন্য ভ্রমণকাহিনী, দর্শন, ভূগোল, রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, প্রাচীন ঐতিহ্য, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, মনীষীদের জীবনী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, আইন এ রকম কত রকম বিষয় আছে! একেক ধরনের বই মানুষকে একেক ধরনের আনন্দ ও জ্ঞান দেয়। বিচিত্র ধরনের বই পাঠ করেই মানুষ আনন্দের অনুভূতি লাভ করে।

পল্লীকবি জসীমউদ্দীন বলেছেন, ‘বই জ্ঞানের প্রতীক, বই আনন্দের প্রতীক। ’ জ্ঞান আর আনন্দ ছাড়া মানুষের জীবন নিশ্চল হয়ে পড়ে। জীবনকে সুন্দরভাবে বিকশিত করতে হলে, সুবাসিত করতে হলে জ্ঞানার্জন করতে হবে। আর জ্ঞানার্জনের জন্য বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই। পৃথিবীর যাবতীয় জ্ঞানের কথা লুকিয়ে আছে বইয়ের মধ্যে। নিজেকে জানতে হলে, পৃথিবীকে জানতে হলে বই পড়তে হবে। তাই হয়তো আমেরিকান বিখ্যাত অভিনেতা উইল রজারস বলেছেন, ‘মানুষ আসলে দুটি উপায়ে শিক্ষা গ্রহণ করে। একটি হচ্ছে পড়ার মাধ্যমে আর আরেকটি হচ্ছে নিজের চেয়ে আধুনিক কোনো মানুষের সঙ্গে মেশার মাধ্যমে। ’ ইংরেজিতে একটি কথা আছে, যার বাংলা হচ্ছে, ‘বই মানব জীবনের উত্কৃষ্ট সঙ্গী। ’ আমরা বাস্তব জীবনে অনেক সময় বিপদাপন্ন হই। বিপদ আসে বাইরে থেকে, বিপদ আসে মনের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব থেকেও। আর সেই বিপদ মুহূর্তে অন্য মানুষের কাছে পরামর্শ নিতে গেলে অনেক সময় বিভ্রান্ত হয়ে থাকি। কিন্তু প্রকৃত বই বিপদের সময় যথার্থ বন্ধুর মতো আমাদের সঠিক পরামর্শ দান করে। কোনো কোনো বই পাঠককে হাসাতে পারে, আনন্দ দিতে পারে এবং কোনো কোনো বই জ্ঞান ও নতুন তথ্য দিতে পারে। তাই প্রত্যেককেই বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তোলা উচিত। বইয়ের সান্নিধ্যে আসা মানেই মহামনীষীদের সান্নিধ্য লাভ। দার্শনিক ও নাট্যকার বার্ট্রান্ড রাসেল আমাদের জীবনের রূঢ় বাস্তবতা ও জটিলতা থেকে মুক্তি পেতে বইয়ের মাঝে ডুব দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। বইয়ের নির্দেশনায় মানুষ খুঁজে পায় সংগতি, সামঞ্জস্য ও এগিয়ে যাওয়ার রাস্তা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow