Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৩ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫৮
ভেলোরি টেলর ও অ্যাঞ্জেলা গোমেজ
মানবসেবায় দুই নারী

বিশ্বসাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ঔপন্যাসিক লিও তলস্তয় বলেছেন, ‘জীবনের প্রকৃত মানে হলো মানবসেবা। ’ শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি, শিক্ষা, দর্শন— সর্বত্রই মানবসেবার জয়গান।

যারা মানুষের কল্যাণে জীবন উৎসর্গ করেছেন তারাই ঠাঁই পেয়েছেন ইতিহাসে। শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত তেমনই দুজন ভেলোরি টেলর ও অ্যাঞ্জেলা গোমেজ। জন্মস্থান ব্রিটেন ছেড়ে পক্ষাঘাতগ্রস্তদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসনে বাংলাদেশেই জীবন কাটালেন ভেলোরি টেলর। অ্যাঞ্জেলা গোমেজ বাঁচতে শেখালেন বঞ্চিত, দরিদ্র নারীদের। তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে রাখছেন অসামান্য অবদান। লিখেছেন— তানভীর আহমেদ

 

পক্ষাঘাতগ্রস্তদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসনে তাত্পর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন ভেলোরি টেলর

ভেলোরি টেলর পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র ‘সেন্টার ফর দ্য রিহ্যাবিলিটেশন অব দ্য প্যারালাইজড’ (সিআরপি)-এর পরিকল্পক ও প্রতিষ্ঠাতা। স্বেচ্ছাসেবা এবং নিজ প্রচেষ্টায় একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে তিনি অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। শারীরিক ও মানসিক পক্ষাঘাতগ্রস্ত মানুষকে সামাজিক ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তা প্রদান, চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার মধ্য দিয়ে তাদের নিজস্ব অভিজ্ঞতা বাড়িয়ে তোলার ক্ষেত্রে সিআরপির ভূমিকা প্রশংসনীয়। পক্ষাঘাতগ্রস্তদের সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরে এ নিয়ে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। ভেলোরি টেলর ১৯৬৯ সালে ভলেন্টারি সার্ভিস ওভারসিস (ভিএসও) দলের সঙ্গে ফিজিওথেরাপিস্ট হিসেবে চট্টগ্রামের চন্দ্রঘোনা হাসপাতালে যোগ দেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ফিরে যান নিজ দেশ ব্রিটেনে। ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি ফিরে আসেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর পঙ্গু ও শারীরিকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত, অক্ষম রোগীদের পাশে এসে দাঁড়ান তিনি। ভেলোরি তখন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে কাজ করতেন। পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসনকেন্দ্র স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন তিনি। কিন্তু এ জন্য পর্যাপ্ত তহবিল ছিল না। তহবিল সংগ্রহের জন্য  তিনি ১৯৭৩ সালে ইংল্যান্ডে ফিরে যান। সেখানে প্রায় ২ বছর তহবিল সংগ্রহ শেষে  ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। সাভারে প্রায় ১২ একর জমির ওপর ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠা করেন সিআরপি। সেই থেকে পক্ষাঘাতগ্রস্তদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসনে অবিরাম কাজ করে চলেছে সিআরপি। ভেলোরি টেলরের স্বপ্ন, পক্ষাঘাতগ্রস্তদের বাঁচার নতুন দিগন্তের সন্ধান দিয়েছে। তার অক্লান্ত পরিশ্রম, নিষ্ঠা ও দূরদর্শী দিকনির্দেশনায় সিআরপি পক্ষাঘাতগ্রস্তদের জন্য নবজীবনের সৌরভ বয়ে এনেছে। এখন সিআরপির রয়েছে বিশাল দেশি-বিদেশি কর্মীবাহিনী, তাদের মেধা, শ্রম ও আন্তরিকতার ফলে প্রতিদিন সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরছেন মানুষ।

ভেলোরি টেলরের জন্ম, শৈশব ও কৈশোর কেটেছে যুক্তরাজ্যের কেন্ট শহরে। কিন্তু তিনি জীবন উৎসর্গ করেছেন বাংলাদেশে আর্ত-মানবতার সেবায়। বাংলাদেশেই কাটালেন বর্ণিল জীবন।

অনুপ্রেরণীয় এই মহীয়সী দেশে-বিদেশে বহু সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন। দুস্থ, দুর্গত মানুষের সেবার স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৯৫ সালে ব্রিটিশ সরকার তাকে অর্ডার অব দ্য ব্রিটিশ অ্যাম্পায়ার পদকে ভূষিত করে। এ ছাড়া ১৯৯৬ সালে তিনি আর্থার আয়ার স্বর্ণপদক পেয়েছেন। স্বাস্থ্যসেবায় অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৯৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করেন।

ভেলোরি টেলর এ দেশের মানুষের সঙ্গে ভাগ করে নিয়েছেন তার জীবনের সব আনন্দ-বেদনা। মানবসেবায় তার নিঃস্বার্থ পথচলা আমাদেরও এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা জোগায়।

 

বঞ্চিত নারীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন অ্যাঞ্জেলা গোমেজ

অ্যাঞ্জেলা গোমেজ। বঞ্চিত ও নির্যাতিত নারীদের নতুনভাবে বাঁচতে শিখিয়েছেন তিনি। তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে রাখছেন অগ্রণী ভূমিকা। তার প্রতিষ্ঠান ‘বাঁচতে শেখা’ তিন দশকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় ১ কোটি নারী ও শিশুকে দিয়েছে নতুন জীবন। অ্যাঞ্জেলা গোমেজ ব্যক্তিজীবনে নানা চড়াই-উতরাই পার করেছেন। বহু বাধা এসেছে তবু দমে যাননি। ১৯৭৪ সালে বিএ পাস করেন তিনি। তখন পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষকতাও করতেন। ছুটির দিনগুলোতে সহকর্মীদের নিয়ে ঘুরে বেড়াতেন যশোর ও ঝিনাইদহের গ্রামগুলোতে। সেখানে দুঃখী ও নির্যাতিত নারীদের জীবনযাপন দেখে অ্যাঞ্জেলা গোমেজ তাদের ভাগ্যবদলের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। ১৯৭৬-৭৭ সালে সাতক্ষীরা, রাজশাহী ও বরিশালে গিয়ে হস্তশিল্পের ওপর নিজে প্রশিক্ষণ নেন। এরপর যশোর ও ঝিনাইদহের গ্রামে গ্রামে গিয়ে নারীদের দলবদ্ধ করে সেগুলো শেখাতে শুরু করেন। অবহেলিত, নির্যাতিত নারীরা স্বাবলম্বী হতে শুরু করে। তার হাতেই ১৯৮১ সালে যাত্রা শুরু হয় ‘বাঁচতে শেখা’র। অ্যাঞ্জেলা গোমেজ তার সংগঠন ‘বাঁচতে শেখা’র মাধ্যমে গ্রামের অসহায় নির্যাতিত গরিব মহিলাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেন। শিক্ষা প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি বয়স্ক মহিলাও সুবিধাবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের দিয়ে থাকে। মা ও শিশুস্বাস্থ্য পরিচর্যা প্রকল্পের আওতায় মহিলাদের গর্ভধারণ, সন্তান প্রসব, প্রসূতি সেবা ছাড়াও জরুরি চিকিৎসাসেবা দেয়। শিশুদের ছয়টি মারাত্মক রোগের টিকাও প্রদান করা হয় এ প্রকল্পে। এ ছাড়া মহিলাদের ভোট শিক্ষা প্রকল্প, প্রতিবন্ধীদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা, হস্তশিল্প, কৃষিক্ষেত্র, হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশু পালন, মৌচাষ, রেশম চাষ, মৎস্য চাষ, ঘূর্ণায়মান ঋণের ক্ষেত্রেও ‘বাঁচতে শেখা’ প্রশংসনীয় সাফল্য দেখিয়েছে। নারী-পুরুষের সমান অধিকার, লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণে অ্যাঞ্জেলা গোমেজ ও তার ‘বাঁচতে শেখা’র অবদান দেশে-বিদেশে, সর্বত্র প্রশংসিত হয়েছে।

১৯৫২ সালে গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ থানার মাল্লা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন অ্যাঞ্জেলা গোমেজ। নির্যাতিত-নিপীড়িত নারীর অধিকার রক্ষায় নিজের জীবনের সবকিছুই উৎসর্গ করেছেন তিনি। স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৯৯ সালে ‘এশিয়ার  নোবেল পুরস্কার’ নামে অভিহিত ফিলিপাইনের ম্যাগসেসে পুরস্কার লাভ করেন তিনি। ২০১৪ সালে ভারতের কিট বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ডি-লিট উপাধিতে ভূষিত করে। এ ছাড়া ১৯৮৮ ও ২০০১-এ পেয়েছেন শ্রেষ্ঠ সমাজকর্মী পুরস্কার, ১৯৯৯ সালে বেগম রোকেয়া পদক, ১৯৯৭ সালে পাক্ষিক অনন্যা পুরস্কার, হস্তশিল্পে জাতীয়ভাবে ১৯৮২, ১৯৮৫, ১৯৮৬ ও ১৯৮৮ সালে স্বর্ণপদকসহ আরও অনেক পুরস্কার ও সম্মাননা লাভ করেছেন। অ্যাঞ্জেলা গোমেজ ম্যাগসেসে পুরস্কার থেকে প্রাপ্ত পুরো অর্থ জমিয়ে রেখেছেন একটি গ্রামীণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য। এখানে সুবিধাবঞ্চিতরা বিনা খরচে পড়তে পারবে— এটি তার স্বপ্ন। নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে বাঁচতে শেখার যে স্বপ্ন আমাদের তিনি দেখিয়েছেন সেটি অমূল্য।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow