Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৩২
সেরা শহরের সেরা মেয়র
তানভীর আহমেদ
সেরা শহরের সেরা মেয়র
bd-pratidin

পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর শহর গড়েছেন যে মেয়র

 

দানিউব নদীর তীরে অপূর্ব এক শহর। নাম ভিয়েনা। অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় মানুষের সংখ্যা ১৮ লাখ। পৃথিবীর সবচেয়ে বাসযোগ্য শহর এটি। রূপকথার গল্পেই কেবল এত সুন্দর, সাজানো ও শান্তিপ্রিয় শহরের বর্ণনা থাকে। ইউরোপের এই শহরটি মাত্র ১০ বছরে এত দারুণ রূপে সেজেছে। নাগরিক নিরাপত্তার মডেল শহর মানা হয় ভিয়েনাকে। বছর দুয়েক হলো ভিয়েনাকে স্মার্ট শহর বলে গর্ব করে ইউরোপ। কীভাবে সাজল এই শহর? পেছনে ছিলেন একজন কারিগর। তার নাম মাইকেল হাউপল। ভিয়েনার মেয়র ছিলেন টানা ২০ বছর। এই ২০ বছরে ছবির মতো করে সাজিয়েছেন পুরো শহরটিকে। ড্রেনেজ ব্যবস্থা, রাস্তা উন্নয়ন থেকে শুরু করে, রেস্টুরেন্ট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, স্কুল, পুলিশ সার্ভিস, পার্ক— সব কিছুকেই সাজিয়েছেন পরিকল্পনামাফিক। একচুল নড়চড় হয়নি। যে কারণে দিনে দিনে ভিয়েনা হয়ে উঠতে থাকে ছবির মতো সুন্দর। রূপকথার রাজ্যকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার শর্ত দিয়েই মেয়র পদে বসেছিলেন হাউপল। তিনি তার কথা রেখেছেন। এ বছর ২৪ মে তিনি মেয়র পদ থেকে অবসর নেন। শহরের মানুষ তার উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে মুগ্ধ। ২০ বছর ধরে কীভাবে সাদামাটা একটা শহরকে পৃথিবীর সবচেয়ে বাসযোগ্য শহর করে গড়ে তুলেছেন সে গল্প সবার জন্য অনন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে।

 

জনপ্রিয়তায় হলেন মেয়র থেকে প্রধানমন্ত্রী

আলবেনিয়ার ৪৭তম প্রধানমন্ত্রী এডি রামা। অনেকেই হয়তো জানেন না, আলবেনিয়ার তিরানা শহরের মেয়র ছিলেন তিনি। ১১ বছর একটানা মেয়র থাকা এডি রামা তিরানাকে গড়ে তুলেছিলেন মডেল শহর করে। শহরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা এতটাই উন্নত হয় যে, পুলিশের কাছে অভিযোগ আসা বন্ধ হয়ে যায় এক পর্যায়ে। ২০০০ সালে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েই তিনি অবৈধ স্থাপনা ভাঙার কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়ে বসেন। নানা চাপ থাকা সত্ত্বেও তিনি লানা নদীর তীরের সব অবৈধ স্থাপনা ভেঙে গুঁড়িয়ে ফেলেন। পুরো শহরকে নতুন করে গড়ে তোলার চ্যালেঞ্জ নেন তিনি। সোভিয়েত সময়ে গড়ে তোলা নকশা বেছে নিয়ে পুরো তিরানা শহর সাজাতে শুরু করেন তিনি। রাস্তার দুপাশে রঙিন, নতুন দালান নির্মাণ, পার্ক ও বসার জায়গা বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়ে তিনি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দৃষ্টি কাড়েন। পর্যটকরা তার জাদুর ছোঁয়ায় বদলে দেওয়া এক শহর থেকে সারা বছরই ভিড় করতে থাকে। ‘তিরানা সিটি মাস্টার প্ল্যান’ ধীরে ধীরে পূরণ করেন তিনি। ২০০৪ সালে তিনি বিশ্বের সেরা মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হন। মেয়র হিসেবে তার জনপ্রিয়তা ছিল আকাশছোঁয়া। সেই জনপ্রিয়তার ছোঁয়াতেই পরবর্তীতে তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন।

 

তিন বছরের ম্যাজিক দেখান হেলেন

২০০৬  থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত কেপটাউনের মেয়র ছিলেন হেলেন জিলে। মাত্র তিন বছরে একটি শহরের চেহারা পাল্টে দেওয়া যায় তার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউন বিশ্বের তৃতীয় জনবহুল শহর। ২৯ লাখ মানুষের বসবাস এই শহরবাসী পানি সংকটে ভুগছে। পৃথিবীর প্রথম পানিশূন্য হওয়ার পথে কেপটাউনকে বাঁচিয়ে রাখতে হেলেন দুর্দান্তসব আইডিয়া কাজে লাগান। পুরো প্রশাসন ঢেলে সাজিয়ে তিনি শুরুর দিকে সমালোচিত হলেও পরে প্রমাণ করেন তিনি ঠিক ছিলেন। চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সরকারি নির্দেশনা এড়িয়ে প্রাইভেট হাসপাতালগুলোকে সজাগ করে তুলেন। এতে লাখ লাখ মানুষের কাছে তিনি রাতারাতি ম্যাজিশিয়ান হিসেবে পরিচিতি পান। যদিও শরণার্থী ইস্যুতে তিনি ছিলেন প্রবলভাবে সমালোচিত। শহরের অপরাধ কমাতে তিনি ছিলেন তৎপর। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা দেওয়ার ইশারার পর তিনি সংঘবদ্ধ অপরাধীদের কাছে ভিলেন হয়ে উঠলেও নগরবাসী তাকে নিয়ে ছিল উচ্ছ্বসিত। শহরের ছিনতাই ও ডাকাতি কমিয়ে আনায় কেপটাউনকে নতুন করে চিনতে শুরু করে ব্যবসায়ীরা। বিশ্বজুড়ে ৮২০টি শহরের মেয়রের সঙ্গে লড়াই করে তিনি ২০০৮ সালে বিশ্বের সেরা মেয়র নির্বাচিত হন।

 

শহর উন্নয়নের মডেল তিনি

৪৬ বছর বয়সী মেয়র নাহিদ ন্যানসি। দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলে সবচেয়ে বড় শহরের মুসলিম মেয়র হিসেবে তিনি ইতিহাস গড়েন। কানাডার ক্যালগেরি শহরের ৩৬তম মেয়র তিনি। ২০১৪ সালে তিনি বিশ্বের সেরা মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হন। ক্যালগেরি শহরের উন্নয়নে তার পরিকল্পনা নিয়ে অনেকেই বিস্ময় দেখিয়েছেন। গ্রাম ও নগরের মেলবন্ধন গড়েছেন তিনি।

মূল শহরের পূর্ব দিকে থাকা গ্রামাঞ্চলে পৌঁছে সেখান থেকে শহর যোগ করেন তিনি। শহরের সব সুবিধা সেখানে পৌঁছে দেওয়ার মূল শহরের সঙ্গে বেড়ে ওঠে গ্রামটি।

এ ছাড়া স্কুল ছড়িয়ে দেন গোটা শহরে। মহল্লায় মহল্লায় ছোট ছোট কমিউনিটি বানিয়ে তাদের সঞ্চয় ও এলাকার উন্নয়নের সুযোগ তৈরি করে দেন। এতে প্রতিটি এলাকার উন্নয়ন ঘটে। তার গ্রাম উন্নয়ন পরিকল্পনা দারুণ কার্যকরী হয়ে ওঠে। এছাড়া তিনি শহরের বাড়তি ব্যয় সঙ্কোচন করে নগর উন্নয়নে একের পর এক প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করেন।

 

সবচেয়ে সফল এথেন্সের মেয়র

২০০৫ সালে বিশ্বের সেরা মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন ডোরা বাকোয়েনিস। সাড়ে তিন হাজার বছরের পুরনো শহর গ্রিসের এথেন্সের মেয়র ছিলেন তিনি। এথেন্সের ইতিহাসে প্রথম নারী নির্বাচিত হয়ে তিনি অভূতপূর্ব কাজ করে দেখান। ২০০২ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি এথেন্সের মেয়র থাকাকালীন অলিম্পিক গেমস আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। এথেন্স অলিম্পিক গেমস সফলভাবে শেষ করার পেছনে তার জাদুকরী ভূমিকা উল্লেখ করা হয়। তার সময়েই এথেন্স মেট্রো সার্ভিস বিশ্বের সেরা হয়ে ওঠে। রাস্তায় গাড়ি নিয়ন্ত্রণে তিনি যে ম্যাজিক দেখিয়েছেন তা বিশ্বে বিরল। প্রায় নয় লাখ মানুষের বসবাসের ব্যবস্থা করেন তিনি। তার আগে কেউ কখনো এত অল্প সময়ে এত মানুষকে শহরে থাকার ব্যবস্থা করে দেখাতে পারেনি। এথেন্সের মেয়র পদে থাকাকালীনই তিনি গ্রিসের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠেন। কাজ দিয়েই তিনি প্রমাণ করেন, তিনি সেরা মেয়র।

 

মেশেলেনের মেয়র তিনি

বেলজিয়ামের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বার্ট সোমার্সকে সবাই চেনেন মেশেলেনর সেরা মেয়র হিসেবে। ২০০১ সালে মেশেলেনের মেয়র পদে দায়িত্ব নেন তিনি। ২০১৭ সালে তিনি ‘বিশ্বের সেরা মেয়র-২০১৬’ হিসেবে নির্বাচিত হন। ৮৬ হাজার মানুষের ছোট শহর মেশেলেনের কথা বিশ্ববাসী জানতই না। কয়েক বছরের পরিকল্পনা হাতে নিয়ে তিনি নতুন শহর গড়ার ঘোষণা দেন। চার বছরের ব্যবধানে মেশেলেনকে বেলজিয়ামের সবচেয়ে সুন্দর, নিরাপদ ও পর্যটকবান্ধব শহর করে তুলেন তিনি। শরণার্থীর চাপ থাকায় মেশেলেনে প্রায় ১২৮টি দেশের মানুষ রয়েছে। তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে মেশেলেনের সবাই শহর উন্নয়ন কাণ্ডে যোগ দেয়। এই বৈচিত্র্যপূর্ণ শহরকে সামলানোর কঠিন চ্যালেঞ্জেও তিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন ভিন্ন উচ্চতায়। শহরের নিরাপত্তা বাড়াতে তিনি পুলিশ বাহিনীকে এত সিসিটিভি ক্যামেরা দেন যে এখন বেলজিয়ামের সবচেয়ে নিরাপদ শহর এটি।

 

সবচেয়ে বড় দু্ই শহরের মেয়র তারা

নিউইয়র্ক সামলানোর চ্যালেঞ্জ তার

সভ্যতার কেন্দ্রে থাকা শহর নিউইয়র্ক। যুক্তরাষ্ট্রের এই শহরে ৮৬ লাখ মানুষের বসবাস। বিশ্বের সবচেয়ে জমকালো শহরগুলোর একটি এটি। বলা হয়, প্রতিদিন উন্নয়নের পথে এক পা করে আগানো শহর এটি। নিউইয়র্ক, পর্যটক ও শহরবাসীর পদচারণায় ২৪ ঘণ্টাই মুখর থাকে। না ঘুমানো এই শহরে সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা— নিরাপত্তা, সড়ক, ট্রাফিক, ড্রেনেজ, আবর্জনা সরানো, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সরবরাহ এক মিনিটও থেমে যাওয়ার সুযোগ নেই। নিউইয়র্কের এসব চ্যালেঞ্জ কাঁধে নিয়েছেন মেয়র বিল ব্লাসিও। চার বছর ধরে নিউইয়র্কের উন্নয়নে কাজ করে চলেছেন তিনি। সবার চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে থাকার কথা দিয়ে নগরবাসীর মেয়র হয়েছিলেন তিনি।

 

বড় শহর দেখভালের মডেল তিনি

চীনের সাংহাই বিশ্বের প্রধান শহরগুলোর একটি। ২৪ মিলিয়ন মানুষের শহর সাংহাই। ইয়াং শিয়ং ২০১৩ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সাংহাইয়ের মেয়র ছিলেন। মানুষে চাপে ধুঁকতে থাকা এই শহরে বাসা ভাড়া খুব বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি প্রচণ্ড ট্রাফিক জ্যামে নাকাল হয়ে পড়ে। এছাড়া বায়ু দূষণের কারণেও সংকটে পড়তে হয় সাংহাইকে। ব্যবসায়িক কেন্দ্র হওয়ার সাংহাই শহরের বিশ্রামের সুযোগ নেই। ইয়াং শিয়ং রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হওয়ায় মেয়র পদে বসে তিনি আরও বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েন। মেয়র পদে বসেই তিনি নাগরিক সুবিধা বাড়ানোর দিকে মনোযোগ দেন। ২০১৭ সালে তিনি পদত্যাগ করলে সাংহাইয়ের নতুন মেয়র হন ইং ইয়ং। এই সময় বড় শহর সামলানোর উদাহরণ হতে পারেন তিনি।

up-arrow