Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৮ জুন, ২০১৮ ০১:০৮ অনলাইন ভার্সন
যে কারণে বিশ্বকাপের পুরস্কার বর্জন মিশরের গোলরক্ষকের
অনলাইন ডেস্ক
যে কারণে বিশ্বকাপের পুরস্কার বর্জন মিশরের গোলরক্ষকের
bd-pratidin

বিশ্বকাপে ম্যাচ সেরার পুরস্কার নেননি মিশরের গোলরক্ষক মোহামেদ এল-শেনাবি। কারণ, ম্যাচসেরার ওই পুরস্কারের স্পন্সর একটি শীর্ষ মদ কোম্পানি। আর তাই বিনয়ের সঙ্গে তিনি এ পুরস্কার বর্জন করেছেন। মূলত উরুগুয়ের বিপক্ষে গোল পোস্টের নিচে দারুণ নৈপুণ্য দেখান এ গোলরক্ষক। আর এর স্বীকৃতি হিসেবে ম্যাচসেরা হিসেবে তার নাম ঘোষণা করা হয়।

ওই ম্যাচে লুইস সুয়ারেজ ও এডিনসন কাভানির মতো মহাতারকাদের বিপক্ষে নজরকাড়া পারফরম্যান্স দেখান শেনাবি। সুয়ারেজদের মুহুর্মুহু আক্রমণকে দীর্ঘ সময় ঠেকিয়ে রাখেন তিনি। তার অসাধারণ সেভের কারণেই ম্যাচের শেষ মিনিট পর্যন্ত গোল পেতে অপেক্ষা করতে হয় উরুগুয়েকে। ৮৯ মিনিটে হোসে গিমেনেসের একমাত্র গোলেই শেনাবির প্রতিরোধ ভেঙে পড়ে।
 
ম্যাচে পরাজিত দলের খাতায় নাম উঠলেও পুরো সময় গোলবারে অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকায় থাকা মিশর গোলরক্ষকের হাতেই ওঠে ম্যাচসেরার পুরস্কার। কিন্তু পুরস্কারের স্পন্সর মদ কোম্পানি বুডওয়েসের বলেই ধর্মপ্রাণ মুসলমান শেনাবি তা নিতে অস্বীকৃতি জানান।
 
বুডওয়েসের ইউরোপের শীর্ষ বিয়ার কোম্পানির একটি। রাশিয়া বিশ্বকাপে অফিসিয়াল মদ সরবরাহকারী হিসেবে ফিফার সাথে তাদের চুক্তি রয়েছে। কিন্তু, মদ ইসলাম ধর্ম অনুসারে নিষিদ্ধ বস্তু। তাই নিজের ধর্মীয় বিশ্বাসে অটল থেকে বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে পাওয়া ম্যাচসেরার পুরস্কার নেননি মিশরের গোলরক্ষক শেনাবি।
 
মিশরের খেলোয়াড়দের ধর্মপ্রীতি নতুন কিছু নয়। মিশর হচ্ছে রাশিয়া বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া সাত মুসলিম প্রধান দেশের অন্যতম। বাকি দেশগুলো হল- সৌদি আরব, মরক্কো, ইরান, তিউনিসিয়া, সেনেগাল ও নাজেরিয়া।
 
চলতি বিশ্বকাপে ধর্মপ্রাণ তারকা মুসলিম ফুটবলার আছেন- ফ্রান্সের পল পগবা, জার্মানির মেসুত ওজিল এবং শেনাবির মিশরীয় সতীর্থ মোহামেদ সালাহ।
 
এদিকে মিশরের গোলরক্ষকের ম্যাচসেরার পুরস্কার নিতে অস্বীকৃতি বেশ আলোড়ন তুলেছে। আগামী ১৯ জুন সৌদি আরবের বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামবে মিশর। ২৫ জুন গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক রাশিয়া। পরের ম্যাচেই মাঠে নামতে পারেন মিশরের সবচেয়ে বড় তারকা মোহামেদ সালাহ। দলের সাথে অনুশীলনে ঘাম ঝরিয়ে যাচ্ছেন এই লিভারপুল তারকা।

বিডি-প্রতিদিন/ ই-জাহান

আপনার মন্তব্য

up-arrow