শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:২৬

গাজীপুরে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে তিতাসের গ্যাসলাইনে আগুন

গাজীপুর প্রতিনিধি

গাজীপুর সদর উপজেলার ভাওয়াল মির্জাপুর কলেজের সীমানা প্রাচীরের ওপর দিয়ে যাওয়া ৩৩ হাজার কেভি বিদ্যুতের লাইনে হঠাৎ স্পার্কিংয়ের পর বিকট শব্দে একটি তার ছিঁড়ে যায় এবং তা নিচে তিতাসের সরবরাহ লাইনের ছিদ্রপথে নির্গত গ্যাসের ওপর পড়ে অগ্নিকান্ডের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে জয়দেবপুর ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিটের কর্মীরা গিয়ে আগুন নেভান। গতকাল সকালে  ওই অগ্নিকান্ডে  কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। তবে গতকাল বিকালেও একাধিক লিকেজ দিয়ে গ্যাস বেরোচ্ছে। যে কোনো সময় আবার দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

ভাওয়াল মির্জাপুর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. এনামুল হক জানান, কলেজের পূর্ব পাশের সীমানা প্রাচীরের ওপর দিয়ে গাজীপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ৩৩ হাজার কেভির লাইন চলে গেছে। মঙ্গলবার সকাল থেকেই বিদ্যুৎ যাওয়া আসা করছিল। ১১টার দিকে পাশে থাকা ট্রান্সফরমারে একটি বিকট শব্দে স্পার্কিং হয়। বিষয়টি জানাতে স্থানীয় পল্লীবিদ্যুৎ অফিসে একাধিকবার ফোন করলেও তা কেউ রিসিভ করেনি। এর প্রায় ১০ মিনিট পর আবারও বিকট শব্দে বিদ্যুতের তারে স্পার্কিং হয় এবং ৩৩ হাজার ভোল্টের একটি তার ছিঁড়ে নিচে থাকা তিতাসের সরবরাহ লাইনের ছিদ্রপথে নির্গত গ্যাসের ওপর পড়ে অগ্নিকাে র সৃষ্টি হয়। পরে স্থানীয় গ্যাস অফিস ও ফায়ার সার্ভিসে খবর দেওয়া হয়।

জয়দেবপুর ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো. আবু ইউসুফ জানান, কলেজের সীমানা প্রাচীর ঘেঁষে তিতাস গ্যাসের একটি সরবরাহ লাইন চলে গেছে। এ লাইনটির স্থানে স্থানে লিকেজ রয়েছে। ওই লিকেজ দিয়ে গ্যাস বেরোচ্ছে। গতকাল সকালে বিদ্যুতের ছেঁড়া তার ওই নির্গত গ্যাসের ওপর পড়ে গেলে স্পাার্কিংয়ের আগুন থেকেই অগ্নিকাে র সৃষ্টি হয়। তবে আগুনে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। পাইপ লাইনের ফুটো বন্ধ করা হয়নি। ফলে আবারও দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

গাজীপুর তিতাস গ্যাস অ্যান্ড ট্রান্সমিশন অফিসের সুপারভাইজার সামশুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ওই লাইনটি বন্ধ করার জন্য ভাল্বটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাই গতকাল গ্যাস লাইনটির সংযোগ বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। বুধবার সকালে লোকবল নিয়ে লাইনটি উচ্ছেদ করা হবে।

গাজীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২-এর ডিজিএম মো. জিল্লুর রহমান জানান, রাতে বৃষ্টিপাতের সময় ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটে মূল লাইনে সমস্যা হলে তা বন্ধ রেখে বিকল্প হিসেবে কলেজ রুটের লাইনটি ব্যবহার করা হচ্ছিল। এতে ওভারলোড হওয়ায় লাইনের জাম্পারে স্পার্কিং হয়ে বিদ্যুতের তার বিচ্ছিন্ন হয়ে নিচে পড়ে যায়। পরে মঙ্গলবার দুপুরে তার মেরামত করে লাইনটি সচল করা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য