শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:৩৭

ঢাকার ৬৬ শতাংশ ভবন নিয়ম না মেনে তৈরি

----- গৃহায়ণমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকার ৬৬ শতাংশ ভবন নিয়ম না মেনে তৈরি

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, রাজধানীর অনেক অবকাঠামো হয়েছে কোনো ধরনের পরিকল্পনা ছাড়াই। প্রায় ৬৬ শতাংশ ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে কোনো নিয়ম মানা হয়নি। এগুলোর  বেশ কিছুর কোনো নকশাও মানা হয়নি। গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে ‘ঢাকাকে একটি বাসযোগ্য, সমৃদ্ধ এবং ঘাতসহনশীল মেগাসিটিতে রূপান্তর’ শীর্ষক সেমিনারে প্যানেল বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এর আয়োজন করে। গৃহায়ণমন্ত্রী বলেন, অনুমোদন

না নিয়ে তৈরি ভবনগুলোতে অগ্নিকা- বা অন্য দুর্ঘটনা ঘটলে ফায়ার সার্ভিসসহ অন্য উদ্ধারকর্মীরা যথা সময়ে পৌঁছতে পারেন না। ঢাকায় ১ হাজার ৮১৮টি উচ্চ ভবন রয়েছে। এগুলোর মালিক প্রভাবশালী ব্যক্তিরা। ক্ষমতার অপব্যবহার করে তারা এসব কাজ করেছেন। এদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে নথি পাঠানো হয়েছে। দুদক এ ব্যাপারে কাজ করছে। ধানমন্ডি আবাসিক এলাকায় কোনো কমার্শিয়াল স্থাপনা থাকতে দেওয়া হবে না। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমানের সঞ্চালনায় প্যানেল আলোচনায় আরও অংশ নেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ড. সুলতান আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, আন্তর্জাতিক মেট্রোপলিটন সিটি ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞ মি. ফিলিপ ভ্যান রেনেভেল্ড, বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ জন রোম এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের পরিচালক ড. মার্সি টেম্বন।

সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, আমাদের প্রথম প্রাধান্য বাসযোগ্য ঢাকা গড়ে তোলার সঙ্গে সঙ্গে সমগ্র দেশের জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়ন করা। আমরা গত ১০ বছরে মাথাপিছু আয় একটি সম্মানজনক জায়গায় নিয়ে এসেছি যা এখনো ক্রমবর্ধমান। হঠাৎ উন্নয়নের জন্যই অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও শিল্পায়ন ঘটেছে। যার ফলে নগর কর্তৃপক্ষ পড়েছে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে। সময় এসেছে আমাদের সমন্বয় করে কাজ করতে হবে।

ঢাকা উত্তর সিটি কনপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ঢাকা হবে স্মার্ট সিটি, তবে অবশ্যই এলাকাভিত্তিক জনগণের চাহিদা ও প্রয়োজনকে মাথায় রেখেই ডিজাইন করা হবে, নানামুখী উন্নয়ন প্রকল্প ও মেট্রোরেলের মতো মেগা প্রকল্পের মাঝে ঢাকাকে সচল রাখাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর