শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৩৭

সরকার উপেক্ষা করছে : ওয়ার্কার্স পার্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো বিবৃতিতে বলেছে, করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে সরকার যে লকডাউন, লকডাউন খেলা খেলছে, তা সামগ্রিক পরিস্থিতি সম্পর্কে তাদের উপেক্ষার মনোভাবের পরিচয় বহন করে। মন্ত্রীরা করোনা সংক্রমণে নিজেরা কোনো দায় না নিয়ে জনগণকে দোষারোপ করছে। এতে আরও বলা হয়, স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে জনগণের উদাসীনতা যত দায়ী, তার চেয়ে বেশি দায়ী সরকারের অব্যবস্থাপনা, অদক্ষতা, দুর্নীতি। গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে শ্রমজীবী, গরিব ও অপ্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকদের জন্য আরও ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়ার দাবি জানানো হয়।  এতে আরও উল্লেখ করা হয়, ১৪ তারিখ থেকে ‘কঠোর’ লকডাউনের যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে তাতে ‘দিন আনা মানুষগুলো’র জন্য কি ব্যবস্থা নেওয়া হবে- তা বলা হচ্ছে না। গতবার এই খাতে ১ হাজার ৫০ কোটি টাকার যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল, তার মাঝে সংবাদপত্রের রিপোর্ট অনুযায়ী ৯১২ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে, ফেরত এসেছে ১০১ কোটি টাকা- যা বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের কাছে জমা আছে। অন্যদিকে, শ্রমিকদের প্যাকেজের ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকার মাঝে মাত্র ৫ কোটি টাকা বিতরণ করতে পেরেছে। আমলাতান্ত্রিক নীতিমালা ও তার বাস্তবায়নে ব্যর্থতা এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল। ফলে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া টাকা দুর্গত মানুষের কাছে পৌঁছয়নি। প্রধানমন্ত্রীকে কাগুজে হিসাব দেখানো হয়েছে। সার্বিকভাবে জনপ্রতিনিধিদের বাদ দিয়ে গৃহীত ব্যবস্থার প্রথম কিছুদিন উচ্চপদস্থ আমলাদের ফটোসেশন, নিজ নিজ বাহিনীর প্রচার ছাড়া কাজের কাজ কিছু হয় নাই।

বিবৃতিতে, সরকারকে লকডাউন বাস্তবায়নে জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্ব দিয়ে সরকারি বিভিন্ন বাহিনী ও প্রতিষ্ঠানের কার্যকর ব্যবস্থা নিশ্চিত করার পাশাপাশি শ্রমজীবী, গরিব ও শ্রমিকদের জন্য বরাদ্দ প্যাকেজের অব্যয়িত অর্থের সঙ্গে আরও ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়াসহ ওই অর্থ বিতরণে মহানগরের ক্ষেত্রে সিটি করপোরেশনের চেয়ারম্যান ও জেলার ক্ষেত্রে উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রধান করে স্থানীয় সংসদ সদস্যকে অন্তর্ভুক্ত করে তালিকা প্রণয়ন ও বিতরণ বাস্তবায়ন করার দাবি জানানো হয়।

এই বিভাগের আরও খবর