শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ আগস্ট, ২০২১ ২৩:২২

অরক্ষিত স্লুুইসগেট এখন কৃষকের গলার ফাঁস!

খুলনায় বৃষ্টির পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ৯৩১ হেক্টর বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

Google News

পানি নিষ্কাশনের জন্য খুলনার উপকূলের বেড়িবাঁধে প্রায় ৫৭৯টি স্লুইসগেট রয়েছে। নদীতে জোয়ারের সময় লোকালয়ে পানি ঢুকতে বাধা ও ভাটার সময় পানি নদীতে নিষ্কাশনের জন্য এসব স্লুইসগেট করা হয়। কিন্তু দীর্ঘদিনেও সংস্কার না করায় ১৬৩টি স্লুইসগেট একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে। আরও প্রায় দেড় শ স্লুইসগেট অকার্যকর। কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, অকেজো ও ভরাট হয়ে যাওয়া স্লুইসগেট এখন কৃষকের গলার ফাঁস হিসেবে দেখা দিয়েছে। গত ২৭ থেকে ৩০ জুলাই অতিবৃষ্টির পানি ভাটার সময় স্লুইসগেট দিয়ে নদীতে নিষ্কাশন না হওয়ায় জলাবদ্ধতা তৈরি হয়। এতে খুলনার কয়রাসহ বিভিন্ন স্থানে ৯৩১ হেক্টর জমির বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. হাফিজুর রহমান বলেন, ভাটার সময় বৃষ্টির পানি স্লুইসগেট দিয়ে নদীতে নেমে যাওয়ার কথা। কিন্তু কয়রার ২০টি স্লুইসগেটের বেশির ভাগ পাটাতন (কপাট) নষ্ট ও গেট থেকে নদী সংযুক্ত খালগুলো ভরাট হয়ে গেছে। ফলে ভাটার সময়ও বৃষ্টির পানি বের করা সম্ভব হয়নি। এতে আমন বীজতলার ১০ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়েছে। জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতায় স্লুইসগেট পরিচালনার জন্য একসময় স্লুইস খালাসি কর্মরত ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে স্লুইসগেট স্থানীয় সুবিধাভোগীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর